টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

সাতকানিয়ায় ইউপি নির্বাচন: আ’লীগ সহ প্রধান তিন দলেই হ-য-ব-র-ল পরিস্থিতি

শহীদ ইসলাম বাবর
দক্ষিণ চট্টগ্রাম প্রতিনিধি

চট্টগ্রাম, ৩০ এপ্রিল (সিটিজি টাইমস)::  তৃনমূল সভা,সম্ভাব্য প্রার্থীদের সাক্ষাতকার ও চট্টগ্রাম দক্ষিন জেলা কমিটি বৈঠক করে দক্ষিন চট্টগ্রামের সাতকানিয়ার প্রার্থী তালিকা চুড়ান্ত করলেও কেন্দ্র থেকে এখনো (৩০ এপ্রিল) পর্যন্ত মনোনীত প্রার্থীদের নাম ঘোষনা করা হয়নি। ফলে মনোনয়ন পাওয়া প্রার্থীদের মাঝে উৎকন্ঠা বেড়েই চলেছে। উপজেলা ও জেলা কমিটি মনোনয়ন নিশ্চিত করলেও কেন্দ্র থেকে নিশ্চিত ঘোষনা না পাওয়ায় বেশ দুশ্চিন্তাগ্রস্থ তারা। এদের অনেকেই ঢাকায় অবস্থান করে নিজের মনোনয়ন নিশ্চিত করার জন্য শেষ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন।

এদিকে নানা সমস্যার মধ্যে থাকা বিএনপির পক্ষ থেকে প্রার্থী ঘোষনা করা হয়েছে। বাকি ইউনিয়ন সমূহেও একাধিক প্রার্থীদের মধ্যে থেকে বাচাই করে তুলনামূলক জনপ্রিয় ব্যাক্তিকে মনোনয়ন দেওয়া হবে বলে সিটিজি টাইম্‌সকে জানিয়েছেন সাতকানিয়া বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মুজিবুর রহমান।

অপরদিকে ২০১৩ সালের সহিংসতা ও ৫ জানুয়ারীর জাতীয় সংসদ নিবাচনকে কেন্দ্র করে ব্যাপক মামলায় জড়িয়ে নাজুক অবস্থায় থাকা জামায়াত ইসলামী রয়েছেন পরিস্থিতি পর্যবেক্ষনে। প্রকাশ্যে প্রার্থী ঘোষনা দিলে প্রার্থী মামলা হামলার শিকার হতে পারে এমন আশংকায় অনেকটা নীরবে কাজ করছে দলটি। সংশ্লিষ্ট দল সমূহের নেতাদের সাথে কথা বলে এ তথ্য পাওয়া গেছে।

স্থানীয় পর্যায়ে সভা ও সাক্ষাতকার নিয়ে প্রার্থী নির্ধারনের পরও কেন্দ্র থেকে প্রার্থীদের চুড়ান্ত তালিকা প্রকাশ না করার বিষয়ে সাতকানিয়া আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক কুতুব উদ্দিন চৌধুরী বলেন, আমাদের কাজ ছিল তৃনমূল সভা করে সম্ভাব্য প্রার্থীদের নামের তালিকা জেলা কমিটিতে প্রেরণ করা। এর পরে জেলা কমিটি মনোনয়ন প্রত্যাশীদের সাক্ষাতকার গ্রহণ করে কেন্দ্রে প্রেরণ করেছেন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে চট্টগ্রাম দক্ষিন জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক মফিজুর রহমান সিটিজি টাইম্‌সকে বলেন, সাতকানিয়ার ইউপি নির্বাচনটি অনুষ্ঠিত হবে ৪ জুন। আমরা প্রার্থীদের তালিকা তৈরী করে তা কেন্দ্রে জামা দিয়েছি। আগামী মে মনোনয়ন বোর্ড়ে সভা হওয়ার কথা রয়েছে। ঐ সভার পর দলীয় মনোনয়ন প্রাপ্তদের তালিকা প্রকাশ করা হবে বলে কেন্দ্র থেকে জানানো হয়েছে।

অপরদিকে, দীর্ঘ দিন সাতকানিয়ায় বেশ এগিয়ে থাকা দল জামায়াত ইসলামী এখন কঠিন সময় পার করছে। আদালত কর্তৃক নিবন্ধন বাতিল করায় দলীয় প্রতীকে কোন নির্বাচন করতে পারছেনা দলটি। এর মধ্যে সামনে চলে আসা এ ইউপি নির্বাচনে প্রার্থী দেওয়া নিয়ে চলছে বেশ সংকট। খোজঁ নিয়ে জানা যায়, সাতকানিয়া উপজেলার মধ্যে চরতী, কাঞ্চনা, মার্দাসা, সোনাকানিয়া ও সাতকানিয়া সদর ইউনিয়নে গত নির্বাচনে জামায়াত সমর্থিত প্রার্থীরায় নির্বাচিত হয়েছিল। কিন্তু বর্তমানে সোনাকানিয়ার চেয়ারম্যান হাজি নুর আহমদের আওয়ামীলীগে যোগদান, চরতীর ডা.রেজাউল করিম কারাগারে আটক মার্দাসার মোহাম্মদ ইব্রাহীম ও সাতকানিয়া সদরের মাওলানা মাহমুদুল হক নির্বাচন না করার আবাস দেওয়ায় ঐ সব ইউনিয়নে কারা নির্বাচন করতেছে তা এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে চট্টগ্রাম দক্ষিন জেলা জামায়াতের সেক্রেটারী অধ্যাপক মোহাম্মদ নুরুল্লাহ সিটিজি টাইম্‌সকে বলেন, আমাদের শত শত নিরীহ নেতাকর্মীকে অন্যায় ভাবে মিথ্যা মামলায় গ্রেপ্তার করে কারাগারে আটক রাখা হয়েছে। এসব মামলা থেকে জনপ্রতিনিধিরাও বাদ যাচ্ছেনা। চরতীর চেয়ারম্যান ডা. রেজাউল করিম এখনো কারাগারে আটক রয়েছে। কাঞ্চনার চেয়ারম্যান মাওলানা মোজাফ্ফর আহমদ দীর্ঘ দিন কারাগারে থেকে মারাত্মক অসুস্থ হয়ে পড়েছে। এরপরও মাম্যলার কারনে তাকে দায়িত্ব থেকে বহিস্কার করে নতুন নির্বাচন দেওয়া হয়েছে। তার পরেও জামায়াত ইসলামী আসন্ন নির্বাচন নিয়ে চিন্তা করছে। যথাসময়ে ঘোষনা দেওয়া হবে।

মতামত