টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

মিরসরাইয়ে কলেজ ছাত্র নিহত

এম মাঈন উদ্দিন
মিরসরাই প্রতিনিধি 

Mirsarai-Tipu-Photoচট্টগ্রাম, ২৯ এপ্রিল (সিটিজি টাইমস)::  মিরসরাইয়ে ছাত্রলীগ-যুবলীগ কর্মীদের হামলায় গুরুত্বর আহত হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছে মমতাজ উদ্দিন টিপু নামের এক কলেজ ছাত্র। বৃহস্পতিবার (২৮ এপ্রিল) রাত সাড়ে নয়টায় চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে (চমেক) মারা যায় সে। টিপু চট্টগ্রাম সরকারি সিটি কলেজে অনার্স ২য় বর্ষের ছাত্র এবং কলেজ ছাত্রলীগের সদস্য। গত ৪ এপ্রিল মিরসরাইয়ের কমলদহ বাজারে ছাত্রলীগ-যুবলীগ কর্মীদের হামলায় গুরুত্বর আহত হয় টিপু। এঘটনায় টিপুর বড়ভাই রিয়াজ উদ্দিন নিলু বাদী হয়ে চট্টগ্রাম আদালতে ৫ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত ১০-১৫ জনের বিরুদ্ধে একটি মামলা (নং ১৩) দায়ের করেছেন। নিহত টিপু উপজেলার ১৫ নম্বর ওয়াহেদপুর ইউনিয়নের দক্ষিণ ওয়াহেদপুর গ্রামের মৃত মাষ্টার বশির আহমদের ছেলে।

রিয়াজ উদ্দিন নিলু বলেন, ৪ এপ্রিল বিকেলে কমলদহ বাজারে আমাদের ভাড়া দেয়া দোকানের ভাড়া তুলতে বাজারে যায় টিপু। এসময় বাজারের দক্ষিণপাশ্বে একটি চায়ের দোকানে বসা ছিলো সে। এসময় অস্ত্র-সস্ত্র নিয়ে দোকানে প্রবেশ করে মধ্যম ওয়াহেদপুর এলাকার খানসাবের ছেলে মিনহাজ উদ্দিন, রৌশনের জামানের ছেলে মোঃ শরীফ উদ্দিন সবুজ, খোরশেদ আলমের ছেলে মোঃ রুবেল, টুটুল ও নাজমুলের নেতৃত্বে অস্ত্র সস্ত্র নিয়ে অতর্কিত হামলা চালায়। তার মাথায় প্রচন্ড আঘাত করে। আমার ভাই প্রাণে বাঁচতে দৌড়ে পালিয়ে যেতে চাইলে তারা আবারো গতিরোধ করে তাকে টেনে হেঁচড়ে বড়কমলদহ নিয়ে যায়। সেখানে মরে গেছে ভেবে সড়কের পাশে ফেলে চলে যায়। পরে মুমুর্ষ অবস্থায় উদ্ধার করে প্রথমে সীতাকুন্ড হাসপাতালে ও শারীরিক অবস্থার অবনতি দেখে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যায়। হাসপাতালে চিকিৎসাধীন থাকা অবস্থায় ২৪দিন পর আমার ভাই মারা গেছে। এর পূর্বেও ওই সন্ত্রাসীরা আমি আমার বড় ভাই ও ছোট ভাইয়ের উপর হামলা করে। তার ভাইয়ের ময়নাতদন্ত শেষে আজ বিকেলে দাফন করা হবে জানান নিলু।

এদিকে টিপুর বাড়িতে গিয়ে দেখা গেছে, ৭ ভাই ২ বোনের মধ্যে আদরের ছোট ভাই চলে যাওয়াকে কিছুতেই মেনে নিতে পারছেনা তার ভায়েরা। মা-বোন আত্মীয় স্বজনদের আহাজারিতে পরিবেশ ভারী হয়ে উঠেছে। ঘরের মধ্যে বিলাপ করছেন মা-বোনরা। এসময় উপস্থিত কেউ চোখের পানি ধরে রাখতে পারেনি।

ওই এলাকার বৃদ্ধ সিরাজুল ইসলাম বলেন, টিপু খুবই নম্্র, ভদ্র ছেলে ছিলো। কিছুতে তাকে ভুলতে পারছিনা। কেন-যে এভাবে সন্ত্রাসীরা মেরে ফেললো বুঝতে পারছিনা।

নিহত টিপুর বড় ভাই জহির উদ্দিন বলেন, আমরা ৯ ভাই বোনের মধ্যে সবার ছোট টিপু। সে ছাত্র হিসেবে খুব মেধাবী ছিলো। আমার আদরের ভাইকে সন্ত্রাসীরা অন্যায়ভাবে খুন করেছে। আমি খুনিদের বিচার চাই।

এ বিষয়ে মিরসরাই থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইমতিয়াজ এমকে ভূঁইয়া বলেন, হামলার ঘটনায় যে মামলাটি হয়েছে তা এখন হত্যা মামলায় রূপান্তরিত হবে। ঘটনায় জড়িতদের গ্রেপ্তারে আমরা ইতমধ্যে অভিযান শুরু করেছি। আশা করছি শীঘ্্রই তাদের গ্রেপ্তার করতে পারবো।

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত