টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

সীতাকুণ্ডে অবৈধভাবে ব্যাটারী চালিত অটোরিক্সা চার্জিং, বিদ্যুৎ ভোগান্তি চরমে

মোঃ ইমরান হোসেন
সীতাকুণ্ড প্রতিনিধি

চট্টগ্রাম, ২৬ এপ্রিল (সিটিজি টাইমস) ::  সীতাকুণ্ডে যত্রযত্র গড়ে উঠছে ব্যাটরী চালিত অটোরিক্সার চার্জিং গ্যারেজ। অবৈধ চার্জিং গ্যারেজের ফলে বিভিন্ন এলাকায় বিদ্যুৎ ঘাটতি দেখা দেয়ায় ভোগান্তিতে পড়েছে বিদ্যুৎ ব্যবহারকারী হাজার হাজার গ্রাহক। বিদ্যুৎ বিভাগের অসাধু কর্মকর্তা-কর্মচারীরা জড়িত থাকার কারনে বন্ধ হচ্ছে না অবৈধ গ্যারেজ। প্রতিনিয়ত এসব অবৈধ গ্যারেজের সংখ্যা বৃদ্দি পেতে থাকায় দিনে দিনে সমস্যা আরো মারান্তক আকার ধারণ করেছে।

মহাসড়কে সিএনজি অটোরিক্সা বন্ধ হওয়ায়র পর সীতাকুণ্ডে বৃদ্ধি পেতে থাকে সিটিতে নিষিদ্ধ ব্যাটারী চালিত অটোরিক্সা । আর অটোরিক্সার বৃদ্ধির সাথে সাথে এক শ্রেনীর ব্যবসায়ী উপজেলার বিভিন্ন স্থানে খুলে বসে অটোরিক্সার চার্জিং গ্যারেজ্ । যখনি অটোরিক্সা চার্জিং গ্যারেজ বৃদ্ধি পেতে শুরু করে, তখনি শুরু হয় বিদ্যূৎ ঘাটতি এবং গ্রাহক ভোগান্তি । এদিকে যত্রতত্রভাবে অবৈধ বিদ্যুৎ চার্জিং গড়ে উঠলেও এ ব্যাপরে বিদ্যুৎ বিভাগের তোড়জোড় পরিলক্ষিত হয় না। মাসিক মাসোয়ারায় বিদ্যুৎ বিভাগের যোগসাজশে এসব অবৈধ চার্জিং গ্যারেজ চলছে বলে অভিযোগ এলাকাবাসীর।

পেশকার পাড়া গ্রামের রফিক উদ্দিন জানান, সার্বক্ষনিক বিদ্যুৎতের শর্ট সাকিট চলতে থাকায় ঘর বাড়ির টিভি-ফ্রিজসহ সকল প্রকার ইলেট্রনিক্স যন্ত্রপাতি নষ্ট হয়ে পড়ছে। বিদ্যুৎ বিভাগের লোকজন দেখেও না দেখার ভান করে চলে যায়। এ অবস্থায় বিদ্যুৎ বিল প্রদান করে বিদ্যুৎ সুবিধা হতে বঞ্চিত হতে হচ্ছে না। একইভাবে অভিযোগ করেন হাসান গোমস্থা জামে মসজিদ, সোবহান বাগসহ কয়েকটি গ্রামের এলাকাবাসী।

এদিকে গ্রাহক ভোগান্তি চরম আকার ধারন করলেও মাসোয়ারা বন্ধ হওয়ার আশংকায় অবৈধ গ্যারেজের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহনে গড়িমসি করছে বিদ্যুৎ বিভাগ। অবৈধ গ্যারেজ হতে মিটার রিডার জয়নাল আবদীনের চাঁদাবাজীর কারণে চরম বিদ্যুৎ ঘটাতি দেখা দিয়েছে বিভিন্ন এলাকায়। ইতিমধ্যে মিটার রিডার ও এক সহকারী ইঞ্জিনিয়ারের চাঁদাবাজী সর্বজন সীকৃতি লাভ করেছে। উর্ধতন মহলের যোগসাজশে এই দুই কর্মকর্তা ধরাকে সরা জ্ঞান করছে বলে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কর্মকর্তা-কর্মচারীরা জানান।

এ বিষয়ে বাড়বকুণ্ড নির্বাহী প্রকৌশলী কার্যালয়ের নিব্র্হাী প্রকৌশলী প্রসনজিৎ কুমার দাশ বলেন,‘ মিটারের মধ্যেমেও ব্যাটারী চাজিং গ্যারেজ চলানোর কোনো বৈধতা নেই। যে সব স্থানে এসব অবৈধ গ্যারেজ গড়ে উঠেছে তা চিহ্নিত করে খুব শীঘ্রই মোবাইল কোর্টের মাধ্যমে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

মতামত