টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

বাঁশখালী ট্রাজেডি: বিদ্যুৎ কেন্দ্র বাতিলের ঘোষণা না দিলে কঠোর কর্মসূচি

bashkhaliচট্টগ্রাম, ২৪ এপ্রিল (সিটিজি টাইমস):  চট্টগ্রামের বাঁশখালীর গণ্ডামারায় এস আলম গ্রুপের কয়লা বিদ্যুৎ বিরোধী আন্দোলন ফের চাঙ্গা হচ্ছে।

১৫ দিনের জন্য অন্দোলন কর্মসূচি স্থগিত হওয়ার সময় শেষে আগামী মঙ্গলবার বিকেলে আবার সেই পশ্চিম গন্ডামারা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় সংলগ্ন মাঠে সমাবেশের ডাক দিয়েছে গণ্ডামারা বসত ভিটি ও গোরস্থান রক্ষা কমিটি।

রবিবার দুপুরে বাঁশখালিতে অয়োজিত এক জনাকীর্ণ সংবাদ সম্মেলনে এ কর্মসূচি ঘোষণা করেন সংগঠনের আহবায়ক মো. লেয়াকত আলী।

সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, গণ্ডামারা জনগণকে লাশ বানিয়ে কয়লা বিদ্যুৎ প্রকল্প করা যাবে না। সরকার কয়লা বিদ্যুৎ প্রকল্প বাতিলের নির্দেশ না দিলে কঠোর কর্মসূচী আসতে পারে বলে তিনি জানান।

সংবাদ সম্মেলনে লিয়াকত আলী আরো বলেন, ৪ জন শহীদ হয়েছেন। আরও হাজার হাজার লোক শহীদ হওয়ার জন্য প্রস্তুত রয়েছেন।

তিনি আরো বলেন, জাতীয় তেল গ্যাস ও বিদ্যুৎ রক্ষা কমিটির নেতৃবৃন্দ সরকারকে যে দাবি গুলো জানিয়েছেন তাদের দাবির সাথে আমিও একমত। তাই তারা যেমন সরকারকে আগামী ১৫ মে পর্যন্ত সময় দিয়েছেন আমিও ১৫ মে পর্যন্ত সময় দিলাম।

তিনি আরো বলেন, এই প্রকল্প কার্যক্রম বান্তবায়ন করতে বিশেষজ্ঞদের যতদিন সময় লাগবে আমরা ততদিন সময় দিতে প্রস্তুত।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে উদ্দেশ্য করে লিয়াকত বলেন, তিনি কখনও জনগণের বিপক্ষে অবস্থান নেন না। কারণ যাদের পিতা মাতা নেই তাদের পিতা মাতা হয়ে অনাথকে যেমন বিয়ে সাদী দিয়ে ঘর সংসারী হওয়ার সুযোগ দেন। সেই প্রধানমন্ত্রী জনগণের কোন ক্ষতি হয় সেই প্রকল্প গ্রহণ করবেন না।

তিনি বলেন, বর্তমান প্রেক্ষাপটে অনেকে অনেক রকম দাবি দিচ্ছে। আমার দাবি হচ্ছে একটাই কয়লা বিদ্যুৎ হবে না। ৯ দফা ৬ দফা বুঝি না। বাঁশখালীর রাজনৈতিক নেতারা বিক্রি হয়ে গেছে। তাই তারা জনগণের কাতারে এসে তারা কোন কথা বলতে পারছে না।

আওয়ামী লীগ নেতা আবদুল্লাহ কবির লিটন তিনি আমাদেরকে কথা দিয়েছিলেন। হয়তো তিনিও চাপের মুখে আমাদের কথা যথাযথ ভাবে রাখতে পারছেন না। বর্তমানে বিভিন্ন কয়লা বিদ্যুৎ প্রকল্প পরিদর্শনের জন্য অনেকেই লাইন ধরছেন। আমাদের পরিদর্শন করাতে হবে না।

মানবাধিকার নেত্রী ব্যারিস্টার সুলতানা কামাল, অর্থনীতিবিদ ও জাতীয় তেল গ্যাস বিদ্যুৎ রক্ষা কমিটির সম্পাদক অধ্যাপক আনু মোহাম্মদকে পরিদর্শন করালে আমরা বিশ্বাস করি। তাদেরকে পরিদর্শন করাতে কেন ভয় পায় তা আমরা জানি না।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন বসত ভিটা ও গোরস্থান রক্ষা কমিটির সদস্য আবু আহমদ, সাবেক মেম্বার আলী নবী, সাংবাদিক শফকত হোসাইন চাটগামী, সাবেক মেম্বার শামীমুল জান্নাত, মুফতি আবুল কালাম আজাদ, নুরুল ইসলাম, নুরুল আলম, এসএ এমরান, মৌলভী আমিন উল্লাহসহ অসংখ্য গ্রামবাসী।

উল্লেখ্য বিদ্যুৎ কেন্দ্র পক্ষে বিপক্ষে পাল্টাপাল্টি সমাবেশকে ঘিরে গত ৪ঠা এপ্রিল বাশঁখালি গণ্ডামারা গ্রামে পুলিশের গুলিতে ৪ গ্রামবাসী নিহত ও পুলিশ সহ অর্ধশত লোক আহত হয়।

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত