টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

শেষ মূর্হুত্বের প্রচারণায় মানিকছড়িতে সর্বশক্তি নিয়ে আ’লীগ মাঠে, বিএনপি’তে সংকট!

আবদুল মান্নান
মানিকছড়ি (খাগড়াছড়ি) প্রতিনিধি 

চট্টগ্রাম, ২১  এপ্রিল (সিটিজি টাইমস) :: আগামী শনিবার ২৩ এপ্রিল মানিকছড়ি উপজেলার ৪টি ইউনিয়ন পরিষদে নির্বাচন। শুরু থেকেই আ’লীগ সর্বশক্তি নিয়ে মাঠে প্রচারণা চালিয়ে আসলেও বিএনপি পড়েছে উভয় সংকটে! ৪ নং তিনটহরী ইউপিতে বিএনপি’র প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বাতিল ও ৩ নং যোগ্যাছোলা ইউপিতে দলীয় প্রার্থীর বিরুদ্ধে স্বতন্ত্র প্রার্থীর শক্ত অবস্থানকে ঘিরে এ দু’নেতাকে দল থেকে বহিঃস্কার এবং ২নং বাটনাতলী ইউপিতে দলীয় প্রার্থীর বিরুদ্ধে উপজেলা বিএনপি নেতার অপ-প্রচারের অডিও ফাঁস! অন্যদিকে আ’লীগ তৃণমূলে প্রভাব বিস্তার করে ভোটারদেরকে নিজেদেও নিয়ন্ত্রণে নিতে চাপ প্রয়োগ অব্যাহত রখেছে। ফলে শেষ মূর্হূত্বে উভয় সংকটে পড়েছে বিএনপি! অপরদিকে ১ নং সদর ইউপিতে আন্ডারগ্রাউন্ডে প্রচারণা চালাচ্ছে বিএনপি। ৪ নং তিনটহরী ইউপিতে বিনা প্রতিদ্ব›িদ্বতায় আ’লীগ প্রার্থী বিজয়ী হওয়ায় অন্য ২টি আ’লীগ ও বিএনপি এবং ১টিতে এ দু’দলের সাথে স্বতন্ত্র প্রার্থীর ত্রিমূখী লড়াইয়ের পাশাপাশি এখানে হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের পূর্বাভাস পাওয়া গেছে।

নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা গেছে, মানিকছড়ির চারটি ইউপি নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে ৮জন, সংরক্ষিত পদে ৩১জন ও সাধারণ সদস্য পদে ৮২জনসহ ১২১জন প্রার্থী জয়ের আশায় কোমর বেঁধে মাঠে নেমেছেন। প্রার্থীদের ডাকে নিয়মিত ঘুম ভাংছে সাধারণ ভোটারদের, শুধু তাই নয় প্রার্থীদের সামনে এলাকার বিভিন্ন সমস্যা তুলে ধরছেন ভোটাররা। পাশাপাশি প্রার্থীরাও নির্বাচিত হলে সমস্যা সমাধানের আশ্বাস দিচ্ছেন। সরেজমিন ঘুরে দেখা গেছে, উপজেলার প্রত্যান্তঞ্চল প্রার্থীদের পোষ্টার-লিফলেটে ছেয়ে গেছে। চলছে জমজমাট ভোট ¯œায়ুযুদ্ধ। উপজেলার তৃণমূলে আ’লীগ সর্বশক্তি নিয়ে প্রচারণা চালালেও শেষ মূর্হুত্বে এসে বিএনপি নেতাদের কর্মকান্ডে কর্মী ও সমর্থকরা চিন্তিত হয়ে পড়েছে। ফলে প্রার্থীরা ত্যাগী নেতা-কর্মীদের নিয়ে কৌশলে শেষ মূর্হুত্বের প্রচারণা ব্যস্ত হয়ে পড়েছেন। আজ বৃহস্পতিবার প্রচারণায় শেষ দিন।

নির্বাচন যতই ঘনিয়ে আসছে, বিএনপি সমর্থীত প্রার্থীরা সরকার দলীয় প্রার্থী, নেতা-কর্মী কর্তৃক প্রভাব বিস্তার ও ভোট কারচুপির আশংকা করছেন। বিএনপির একাধিক প্রার্থীর দাবি অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ ভোট হলে সব কয়টি ইউনিয়নে তাঁরা বিজয়ী হবেন। তবে আ’লীগ প্রার্থীরা বলছেন নৌকা প্রতীকের বিজয় নিশ্চিত।

এদিকে নির্বাচন সামনে রেখে বিএনপি’তে দু’নেতাকে বহিঃস্কার ও দলীয় প্রার্থীর বিজয় ঠেকাতে আ’লীগ নেতার সাথে বিএনপি’র সেক্রেটারীর কথোপকথন ফাঁসকে ঘিরে সমালোচানার ঝড় উঠেছে! ফলে দলীয় প্রার্থী, নেতা-কর্মী ও সমর্থকরা দুঃচিন্তায় পড়েছেন।

বিএনপি’র দলীয় সূত্রে জানা গেছে, ৩ নং তিনটহরী ইউপিতে যুবদল নেতা মো. জাকির হোসেন সিরাজের মনোনয়ন বাতিলের ঘটনাকে নিয়ে দলে মতবিরোধ সৃষ্টি হয়েছে। কেউ বলছে সরকার দলীয় প্রার্থীর সাথে বিএনপি প্রার্থীর গোপন সমঝোতায় মনোনয়ন বাতিল হয়েছে! আবার কেউ বলছে এটি সরকার দলীয় নেতারা ঘটিয়েছে। অনদিকে ৩ নং যোগ্যাছোলা ইউপিতে দলের মনোনয়ন পেতে ব্যর্থ হয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করছেন দলের সিনিয়র নেতা মোহাম্মদ আলমাস। যার ফলে গত ১৬ এপ্রিল দল থেকে বহিঃস্কার করেছেন উপজেলা কমিটি। অপরদিকে ২ নং বাটনাতলী ইউপিতে বিএনপি’র দলীয় প্রতীক ধানের শীষ মার্কা নিয়ে নির্বাচন করছেন সাবেক উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মো. আবদুল কাদের। দলের বিজয় সুনিশ্চিত করতে তিনি বিএনপি’র বিদ্রোহী গ্রæপ(সমীরণ দেওয়ান) এর সাথে তার সখ্যতার কারণে দলের একাধিক সিনিয়র নেতা অপ-প্রচার চালাচ্ছেন বলে অভিযোগ করেছেন দলীয় প্রার্থী মো. আবদুল কাদের। এ বিষয়ে জানতে চাইলে বিএনপি’র সাংগঠনিক সম্পাদক মো.মজিবুল হক বাহার বলেন, এ ধরণের কানাঘুষা চলছে। যা দলের প্রার্থীর জন্য ক্ষতির কারণ হতে পারে! নিজেকে বিজয়ী করার জন্য যে কেউ কারো সাথে সু-সর্ম্পক করা অপরাধের কিছু দেখছিনা।

১নং মানিকছড়ি ইউনিয়নে বিএনপি প্রার্থী মো. আবুল কাশেম বলছেন প্রভাবমুক্ত পরিবেশে ভোটাররা যদি পছন্দনীয় প্রার্থীকে ভোট দিতে পারে তাহলে তাঁর বিজয় কেউ ঠেকাতে পারবে না। অবাধ, সুষ্ট ও নিরপেক্ষ পরিবেশ সৃষ্টিতে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ প্রয়োজন। এখানকার চার ইউপিতে নির্বাচনী মাঠে রয়েছেন মো. শফিকুর রহমান ফারুক (নৌকা), মো.শহিদুল ইসলাম মোহন (নৌকা), ক্যজয়রী মহাজন (নৌকা), বিএনপি সমর্থীত মো. আবুল কাশেম (ধানের শীষ),মো. আবদুল কাদের (ধানের শীষ), মো. জামাল উদ্দীন (ধানের শীষ) ও স্বতন্ত্র প্রার্থী মোহাম্মদ আলমাস (আনারস) চেয়ারম্যান পদে ৭ জন, সংরক্ষিত পদে ৩১জন এবং সাধারণ সদস্য পদে ৮২ জনসহ মোট ১২১জন প্রার্থী। আর বিনাপ্রতিদ্ব›িদ্বতায় নির্বাচিত হয়েছেন ৩ নং ইউপিতে আ’লীগ সমর্থীত চেয়ারম্যান মো. রফিকুল ইসলাম বাবুলসহ ১২জন জনপ্রতিনিধি। ভোট কেন্দ্র ৩৫টি,বুথ ১১৫টি। ভোটার পুরুষ-১৯ হাজার ৮ শত ৫০ জন এবং মহিলা ১৯ হাজার ৯ শত ৬৫ জন।

নির্বাচনের সর্বশেষ পরিস্থিতি সর্ম্পকে জানতে চাইলে উপজেলা নির্বাহী অফিসার যুথিকা সরকার এ প্রতিবেদককে বলেন, নির্বাচন সুষ্ট, অবাধ ও নিরপেক্ষ করতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। দশের অধিক কেন্দ্রকে ঝুঁকিপূণ চিহ্নিত করে ইতোমধ্যে প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয়েছে।

মতামত