টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

‘ডিজিটাল ম্যারেজ রেজিস্ট্রেশনে প্রতারণা রোধ করা সম্ভব’

justiseচট্টগ্রাম, ১৬ এপ্রিল (সিটিজি টাইমস) :: ‘অন-লাইন বা ডিজিটাল ম্যারেজ রেজিস্ট্রেশন সিস্টেম চালু করে সেন্ট্রাল ম্যারেজ ব্যুরো প্রতিষ্ঠা করে সারা দেশে নিকাহ্ রেজিস্ট্রি অফিস গুলোকে সমন্বয় ও নিয়ন্ত্রণের মাধ্যমে বৈবাহিক প্রতারণা রোধ করা সম্ভব বলে মন্তব্য করেছেন সুপ্রীম কোর্টের হাইকোর্ট বিভাগের বিচারপতি কৃষ্ণা দেবনাথ।

শনিবার সকালে চট্টগ্রাম জিলা পরিষদ মিলনায়তনে মানবাধিকার সংগঠন বাংলাদেশ হিউম্যান রাইটস ফাউন্ডেশন-(বিএইচআরএফ) চট্টগ্রাম চ্যাপ্টার আয়োজিত ‘বৈবাহিক প্রতারণা প্রতিরোধে আইনজীবী, বিচারক, সাংবাদিক, মানবাধিকার কর্মী, প্রশাসন ও জনপ্রতিনিধির ভূমিকা’ শীর্ষক এক্সেস টু জাস্টিস কর্মশালায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখতে গিয়ে তিনি মন্তব্য করেন ।

বিচারপতি কৃষ্ণা দেবনাথ বলেন, ম্যারেজ ব্যুরো’র কেন্দ্রীয় অফিস থাকবে ঢাকায়, বিভিন্ন জেলা ও থানায় তার শাখা অফিস থাকবে। প্রত্যেক নাগরিক বিবাহ রেজিস্ট্রিকালে তার বা তাদের বৈবাহিক স্ট্যাটাস সম্পর্কে তথ্য সম্বলিত ফাইল অনলাইনে ম্যারেজ ব্যুরো কেন্দ্রীয় অফিস বা নিকাহ্ রেজিস্টার ব্যুরোর ওয়েবসাইট কিংবা শাখা অফিসে প্রেরিত হবে। প্রতিটি বিয়ে রেজিস্ট্রির তথ্য বা তালিকা নিয়মিত আপডেট হবে শাখা অফিস ও কেন্দ্রীয় অফিসের সমন্বয়ে।

এভাবে বিবাহ রেজিস্ট্রি হলে তথ্য গোপন, বাল্যবিবাহ, বহুবিবাহ, নারী ও শিশু নির্যাতন, পাচার প্রভৃতি সহ যাবতীয় বৈবাহিক প্রতারণা বহুলাংশে কমে যাবে। যার যার অবস্থান থেকে আমরা সবাই সচেতন হলে বৈবাহিক প্রতারণা বন্ধ হবে। বিবাহ বহির্ভুত সম্পর্ক একটি বৈবাহিক প্রতারণা, এটি একটি সামাজিক সংকট তৈরী করে।

বিএইচআরএফ চেয়ারপারসন এডভোকেট এলিনা খানের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত উক্ত কর্মশালায় মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন সংগঠনের পরিচালক (অর্গানাইজিং) ও চট্টগ্রাম চ্যাপ্টার সভাপতি এডভোকেট জিয়া হাবীব আহসান।

স্বাগত বক্তব্য রাখেন, পরিচালক (পাবলিসিটি এন্ড কমিউনিকেশন) এবং চট্টগ্রাম চ্যাপ্টারের সেক্রেটারি এডভোকেট মোহাম্মদ শরীফ উদ্দিন, কর্মশালায় অন্যান্যের মধ্যে আলোচনায় অংশ গ্রহণ করেন, নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল নং- ১ এর বিচারক মো. রফিকুল ইসলাম, অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ ৪র্থ মোঃ নজরুল ইসলাম, চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন এর প্যানেল মেয়র চৌধুরী হাসান মাহমুদ হাসনী, সিনিয়র সহকারী জজ মোহাম্মদ নাঈম ফিরোজ, মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট নওরিন আকতার কাঁকন, চট্টগ্রাম জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি এডভোকেট কফিল উদ্দীন চৌধুরী, জেলা জি পি নাজমুল আহসান খান আলমগির, জেলা পি পি একেএম সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী, প্রফেসর ড. জয়নব বেগম, দৈনিক আজাদীর বার্তা সম্পাদক সাংবাদিক এ. কে.এম. জহুরুল ইসলাম, প্রতিবন্ধী কবি আবসার আহম্মদ, কাউন্সিলর আঞ্জুমান আরা আঞ্জু, দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী আইনজীবী খাদেমুল ইসলাম চৌধুরী।

ইলমা’র নির্বাহী পরিচালক জেসমিন সুলতানা পারু, সিডিসি নির্বাহী পরিচালক লুৎফুরনেছা রূপসা, বিএইচএইচআরএফ লামা শাখার সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল আজিজ, সাংবাদিক হেলাল হুমায়ূন, সাংবাদিক নাজিম উদ্দিন শ্যামল, এ.এস.পি (সিআইডি) অহিদুর রহমান, নিকাহ্ রেজিস্টার এসোসিয়েশনের সভাপতি আবুল কাসেম নিজামী, মানবাধিকার আইনজীবী সুনীল কুমার সরকার, এডভোকেট মুহাম্মদ আলী, এডভোকেট পরেশ চন্দ্র দাশ, সৈয়দ আবুল কাসেম, আবু সুফিয়ান, নুরুল আবছার, জান্নাতুল নাঈম রুমানা, আশফাক আহমেদ চৌধুরী, কাজী মোজাহেরুল কাদের, এডিশনাল পি পি এডভোকেট সানাউল্লাহ সানু, নোটারী পাবলিক এসোসিয়েশন এর সভাপতি এডভোকেট আবদুর রহমান জাহাঙ্গীর, এডভোকেট আছিয়া খানম, বিএইচআরএফ সাতকানিয়া শাখার সাধারন সম্পাদক সাংবাদিক শহিদুল ইসলাম বাবর প্রমুখ

কর্মশালায় বৈবাহিক প্রতারণা বন্ধে ৩১টি সুপারিশমালা পেশ করা হয় । যার মধ্যে কাবিনামায় বর কনের ছবি সংযোজন, আকদের ৭২ ঘণ্টার মধ্যে বিয়ে রেজিস্ট্রি না করলে আয়োজকদের শাস্তির ব্যবস্থা, বিয়ের কমপক্ষে ৩দিন পুর্বে নিকাহ্ রেজিঃ অফিসে বর-কনের তথ্য সরবরাহ করা, ৩ পার্বত্য জেলায় পারিবারিক আদালত প্রতিষ্ঠা ও বিচারক নিয়োগ, পারিবারিক আদালতের বিচারক ও আইনজীবীদের বিশেষ প্রশিক্ষণ সহ বৈবাহিক সম্পর্ক থেকে উদ্ভুত যাবতীয় অপরাধের বিচার ভিন্ন ভিন্ন আদালতে (দেওয়ানী- ফৌজদারী) না করে উচ্চ ক্ষমতা সম্পন্ন একই আদালতে বিচারের জন্য সরকারের আইন কমিশন ও বিচার মন্ত্রনালয় বরাবরে জন গুরুত্বপুর্ণ সুপারিশমালা বা প্রস্তাব পেশ করা হয়।

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত