টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

করানীহাট-বান্দরবান সড়ক: বন্ধ করা যাচ্ছেনা চোলাই মদের ব্যবসা

শহীদ ইসলাম বাবর
সাতকানিয়া থেকে 

চট্টগ্রাম, ০৯ এপ্রিল (সিটিজি টাইমস) :  কেরানীহাট-বান্দরবান সড়ক দিয়ে চোলাই মদ পাচার হচ্ছে হরহামেশা। মাঝে মধ্যে পুলিশের অভিযানে চোলাই মদ উদ্ধার ও মাদক ব্যবসায়ী গ্রেপ্তার হলেও কোন ক্রমেই বন্ধ করা যাচ্ছেনা এ ব্যবসাটি। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর চোখ ফাকিঁ দেওয়ার জন্য ব্যবসায়ীরা নানা কৌশল অবলম্বন করে থাকে।

সূত্রে প্রকাশ, বান্দরবান পার্বত্য জেলার রেইছা, সুয়ালক, মাঝের পাড়া এলাকায় উপজাতীয়রা এ চোলাই মদ তৈরী করেন। পরে সাতকানিয়া,বাশখালী, লোহাগাড়া, চন্দনাইশ, পটিয়া, আনোয়ারা, বোয়ালখালীসহ চট্টগ্রাম নগরের বিভিন্ন পাইকার ও খুচরা ব্যবসায়ীরা সড়ক ও নদী পথে এ মদ পাচার করে থাকে। এসব মদ বিভিন্ন এলাকায় সহজলভ্য হয়ে পড়ার কারনে বেড়েই চলেছে মাতালের সংখ্যা।

সাতকানিয়া থানা পুলিশ সূত্র জানায়, পুলিশ কেরানীহাট-বান্দরবান সড়কের হলুদিয়া, বাজালিয়া, বড়দুয়ারা এলাকায় গাড়িতে তল্লাসী চালিয়ে সল্প সংখ্যক মদ ও মদ পানকারী মাতালকে গ্রেপ্তার করে থাকে। তাদেরকে ভ্রাম্যমান আদালতে হাজির করে যথাযথ সাজাও দেওয়া হয়। তবে মদের বড় চালান আটকের ঘটনা খুবই কম। এরি মধ্যে গত শুক্রবার ভোরে উপজেলার বাজালিয়া ইউনিয়নের বুড়ির দোকানের ভোর বাজার এলাকা থেকে অন্তত এক হাজার লিটার মদসহ দুই ব্যবসায়ীকে গ্রেপ্তার করতে সক্ষম হয় পুলিশ।

পুলিশ জানায়, থানার পরির্দশক (তদন্ত) দিপংকর রায়ের নেতৃত্বে এস আই ইয়াছির আরাফাত, এস আই ফজলুর রহমান, এস আই রুবেল, এএসআই নেয়ামত এএসআই মিজানুর রহমান সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে উপজেলার বাজালিয়া ইউনিয়নের বুড়ির দোকানস্থ ভোর বাজার সাঙ্গু নদীর ঘাট এলাকায় গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে প্রায় এক হাজার লিটার মদসহ উপরোক্ত দুই ব্যবসায়ীকে গ্রেপ্তার করে। তাদের কাছ থেকে ৫শটি ২ লিটারের মিনারেল ওয়াটারের বোতল ভর্তি ১ হাজার লিটার চোলাই মদ উদ্ধার করা হয়। এ বৎসরে উদ্ধারকৃত মদের মধ্যে এটিই বড় চালান।

মদসহ গ্রেপ্তারকৃতরা হলো, মোর্শেদুল ইসলাম (২৪) ও মোঃ জহির উদ্দিন (২৩)। এর মধ্যে মোরশেদুল আলম চন্দনাইশ উপজেলার দোহাজারী ইউনিয়নের দৌলত ইসলামের পুত্র। আর মোহাম্মদ জহির উদ্দিন সাতকানিয়ার কালিয়াইশ ইউনিয়নের পূর্ব কাটগড় এলাকার মৃত আহমদ শফির পুত্র।
এস আই ইয়াছির আরাফাত বলেন, সড়ক পথে কড়াকড়ির ফলে মাদক ব্যবসায়ীরা নদী পথে মদ পাচার করছিল। মাদক রোধে পুলিশের তৎপরতা আরো বাড়বে বলে জানান তিনি।

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত