টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

প্রচণ্ড গরমে ঠাণ্ডা থাকার কিছু উপায়

abhaoক্রমেই বাড়ছে তাপমাত্রা। জীবনযাত্রা হয়ে উঠছে কষ্টসাধ্য। তারপরও বাধ্য হয়েই বের হতে হচ্ছে রাস্তা-ঘাটে। শহরে কিংবা গ্রামে গরমের কমতি নেই কোথাও। তাই বলে কি আর ঘরের মধ্যে সবসময় বসে থাকলে চলে!

এমন অবস্থায় শরীর ঠাণ্ডা না রাখলে বাইরে বেরিয়ে গরমে আচমকা অসুস্থ হয়ে পড়তে পারেন যে কেউ। শরীর ঠাণ্ডা রাখার জন্য ঘরোয়া কিছু উপায় এবং পানীয়ের খোঁজ দিয়েছে এবেলা।

পেঁয়াজের রস নিয়ে কানের পিছনে এবং বুকের ওপর লাগালে আপনার শরীরের তাপমাত্রা কমবে। শুধু তাই নয়, জিরা এবং মধুর সঙ্গে একটু রোস্টেড পেঁয়াজও আপনার শরীর ঠাণ্ডা রাখতে সাহায্য করবে। তাছাড়া, গরমে কাঁচা পেঁয়াজ এমনিতেই উপকারী।

তেঁতুলে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন, মিনারেল এবং ইলেক্ট্রোলাইটস থাকে। ফুটন্ত গরম জলের মধ্যে তেঁতুল ফেলে রস মতো তৈরি করুন। এর পরে জলটা ছেঁকে নিয়ে একটু চিনি মিশিয়ে খেলে আপনার শরীর ঠাণ্ডা হবে।

আম-পান্না। যেমন খেতে সুস্বাদু, তেমনই শরীর ঠাণ্ডা রাখতে এর জুড়ি মেলা ভার। কারণ, এর মধ্যে কাঁচা আম থাকে যা ইলেক্ট্রোলাইট হিসেবে কাজ করে। তাছাড়াও, আম-পান্নায় বিট লবণ, জিরার মতো বিভিন্ন মশলা এবং উপাদান থাকে যা শরীর ঠাণ্ডা রাখতে সাহায্য করে। গরমে দিনে দুই থেকে তিনবার আম-পান্না খেতেই পারেন।

গরমে ঘামাচি এবং গায়ে জ্বলুনি অত্যন্ত সাধারণ একটা সমস্যা। ধনে পাতা বা পুদিনা পাতার রস সামান্য চিনি দিয়ে মিশিয়ে খেলে শরীর ঠাণ্ডা হওয়া ছাড়াও ত্বকের চুলকানি, জ্বলনি থেকে আরাম পাওয়া যাবে।

অ্যালোভেরা জুস- প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন এবং মিনেরেলে ঠাসা। বাইরের পরিবেশে পরিবর্তনের সঙ্গে শরীরের মোকাবিলা করার ক্ষমতা বৃদ্ধি করে। গরমে ঘামাচি এবং ত্বকের জ্বলুনি থেকে মুক্তি পেতে অ্যালোভেরা জেলও ব্যবহার করেত পারেন।

চন্দনকাঠের গুঁড়ো জলের সঙ্গে মিশিয়ে কপালে এবং বুকের ওপর লাগালে শরীর ঠাণ্ডা হবে। তা না হলে স্যান্ডেলউড অয়েল কপালে মালিশ করলেও আরাম পাবেন। ত্বকের জ্বলুনি কমাতেও এটি উপকারী।

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত