টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

প্রিমিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়ের ২৩ ছাত্রকে বহিষ্কার

চট্টগ্রাম, ০৫ এপ্রিল (সিটিজি টাইমস) :: বেসরকারি প্রিমিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র হত্যার ঘটনায় ১৬ ছাত্রকে আজীবন ও সাতজনকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।

আজীবন বহিষ্কার হওয়া  ২৯ মার্চ বিশ্ববিদ্যালয়টির দামপাড়া ক্যাম্পাসে ব্যবসায় প্রশাসন অনুষদে সংঘটিত হত্যাকাণ্ডের পরিপ্রেক্ষিতে গঠিত তদন্ত কমিটির প্রতিবেদন কর্তৃপক্ষের অনুমোদনক্রমে এ শাস্তি কার্যকর করা হয়।

মঙ্গলবার (৫ এপ্রিল) দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর আহমেদ রাজীব  এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

আজীবন বহিষ্কার হয়েছেন বিবিএর আশরাফুল ইসলাম, ওয়াহিদুজ্জামান নিশান, মো. জিয়াউল হায়দার চৌধুরী, এসএম গোলাম মোস্তফা,  তামিম উল আলম, মো. ইব্রাহীম (সোহান), এমবিএর কাজী মো. জয়নাল আবেদীন, সাইফ উদ্দিন, মো. আবু জাহেদ (উজ্জ্বল), মো. নিজাম উদ্দিন (আবিদ), এলএলবি অনার্সের সাইকুল মোহাম্মদ তারেক, এমবিএর নুরুল ফয়সাল (স্যাম), এলএলবি অনার্সের মো. সাইফুল ইসলাম সাকিব, এলএলএমের আবু ফয়েজ, বিবিএর মো. রাশেদুল হক (ইরফান) ও মো. নাজমুল হক। তারা সবাই হত্যা মামলার এজাহারভুক্ত আসামি।

বিশ্ববিদ্যালয়টির রেজিস্ট্রার আবু তাহের জানিয়েছেন, হত্যা মামলার এজাহারভুক্ত সব আসামিকে প্রিমিয়ার বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে। সেই সঙ্গে তাদের এ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে প্রদত্ত সব ডিগ্রিও বাতিল করা হয়েছে এবং বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নরত প্রোগ্রামগুলো থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে।

তবে, এজাহারভুক্ত আসামিদের মধ্যে কেউ অভিযোগ থেকে খালাস পেলে বা চার্জশিট থেকে বাদ গেলে তার আবেদনের ভিত্তিতে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ প্রয়োগকৃত শাস্তি পুনর্বিবেচনা করতে পারবেন।

সাবেক ছাত্র সাইকুল মোহাম্মদ তারেক এবং মো. নাজমুল হক বিশ্ববিদ্যালয় থেকে প্রাপ্ত এলএলবি (অনার্স) এবং বিবিএ ডিগ্রি বাতিলের ব্যাপারে আদালতের রায়ের পর কর্তৃপক্ষ সিদ্ধান্ত নেবে।

শাস্তিপ্রাপ্ত ছাত্ররা পরবর্তীতে অত্র বিশ্ববিদ্যালয়ে অন্যকোনো প্রোগ্রামে অধ্যয়নের জন্য ভর্তি হতে পারবে না। মামলা চলাকালীন সময়ে এই সব ছাত্রের এনরোলমেন্ট, ক্লাস, পরীক্ষা, সার্টিফিকেট এবং ট্রান্সক্রিপ্টের উত্তোলন প্রক্রিয়া বন্ধ থাকবে বলে জানান তিনি।

প্রসঙ্গত, গত ২৯ মার্চ আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে ছাত্রলীগের দু’গ্রুপের সংঘর্ষে সোহেল আহমেদ (২৪) নামে এক ছাত্রলীগ নেতা নিহত হন। নিহত সোহেল আহমেদ বিশ্ববিদ্যালয়ের ২১তম ব্যাচের শিক্ষার্থী এবং মহানগর ছাত্রলীগের সদস্য। তিনি কুমিল্লা সদর দক্ষিণ উপজেলার দয়াপুর গ্রামের আবু তাহেরের ছেলে। এ ঘটনার পরপরই বিশ্ববিদ্যালয় অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা করা হয়। এরপর গতকাল (৪ মার্চ) বিশ্ববিদ্যালয় খুলে ক্লাশ চালু হয়।

মতামত