টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

ফটিকছড়িতে নিভে গেল দরিদ্র পিতার একমাত্র আশার প্রদীপ

মীর মাহফুজ আনাম
ফটিকছড়ি থেকে

fatickchariচট্টগ্রাম, ২৯ মার্চ (সিটিজি টাইমস) :  ফটিকছড়িতে সড়ক র্দুঘটনায় নাঈম উদ্দিন (১৪) নামের এক স্কুল ছাত্রের মর্মান্তিক মৃত্যু ঘটেছে। সে উপজেলার হাইদচকিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের ষষ্ট শ্রেণির ছাত্র। সূত্র জানায়, গতকাল সোমবার স্কুল ছুটির পর সহপাঠীদের সাথে সাইকেল চালিয়ে বাড়ি ফেরার পথে সূর্যগিরী আশ্রম সংলগ্ন এলাকায় পৌঁছলে; পেছন দিক থেকে আসা অপর একটি ইঞ্জিনচালিত পিক-আপ ভ্যান সজোড়ে ধাক্কা দিলে নাঈমের মাথায় প্রচন্ড আঘাত হয়। এতে প্রচুর রক্তক্ষরণও হয় তার। সাথে সাথে স্থানীয় একটি চিকিৎসা কেন্দ্রে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক অবস্থার অবনতি দেখে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করেন। সর্বশেষ আজ (মঙ্গলবার) সকাল ৮ টায় মৃত্যুর সাথে পেরে উঠতে না পেরে নিভে যায় ভ্যান চালক বাবার একমাত্র ছেলে নাঈমের জীবন প্রদীপ।

অপরদিকে, মঙ্গলবার ঘাতক চালকের শাস্তির দাবীতে আজিমপুর সড়কে ব্যারিকেড দিয়ে প্রতিবাদ জানান হাইদচকিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা।
সরেজমিনে নাঈমের বাড়িতে গিয়ে জানা যায়, সে উপজেলার পশ্চিম হাইদচকিয়া আরবানী সরকার বাড়ীর ভ্যান চালক মাহাবুবুল আলমের একমাত্র পুত্র সন্তান। দরিদ্র পিতার অন্ধকার ঘরে একমাত্র আশার প্রদীপ ছিল পুত্র নাঈম। বড়ো হয়ে লেখা পড়া শেষে ভালো চাকরি-বাকরি করে সংসারের দুঃখ ঘুচাবে এমন আশায় ধার-দেনা করে পুত্রের লেখা-পড়ার খরচ যোগাতেন মাহবুব। পুত্রের অকাল মৃত্যু তার ভবিষ্যতকে অন্ধকার করে দিয়েছে। শশুড় বাড়ী থেকে আসা একমাত্র বোন ভাইয়ের মৃত্যুতে বার বার মূর্ছা যাচ্ছিলেন। বলছিলেন, ‘আমার দরিদ্র বুড়ো মা-বাবাকে দেখার কেউ রইলোনা। আমার ভাইকে ফিরিয়ে দাও। ’

মঙ্গলবার বিকেল পাচঁটায় স্থানীয় মসজিদ মাঠে জানাযা তার দাফন সম্পন্ন হয়। বাড়ীতে তার মরদেহ নিয়ে আসলে শেষ বারের মতো তাকে দেখতে দূর-দূরান্ত থেকে ছুটে আসেন বিদ্যালয়ের সহপাঠী-শিক্ষকরা।

ফটিকছড়ি থানার উপ-পরিদর্শক ইখতিয়ার উদ্দিন বলেন, ‘ ঘাতক গাড়িটি থানায় জব্ধ করা হয়েছে। চালক ফরহাদ পলাতক। নিহতের পরিবার থেকে এখনো পর্যন্ত মামলা করেনি। ’

মতামত