টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

একসঙ্গে বহুদূর এগিয়ে যাওয়ার প্রত্যয়

চট্টগ্রাম, ২৩ মার্চ (সিটিজি টাইমস) : ত্রিপুরা থেকে বিদ্যুৎ আমদানি এবং বাংলাদেশ থেকে ব্যান্ডউইথ রপ্তানি দুই দেশের সম্পর্কের ক্ষেত্রে আরেকটি মাইলফলক স্থাপন করলো বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আর ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি একে ঐতিহাসিক বলে মন্তব্য করেছেন।

বুধবার সকালে ত্রিপুরা থেকে ১০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ আমদানির আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনকালে এসব কথা বলেন তারা।

এ সময় বাংলাদেশ থেকে ত্রিপুরায় ইন্টারনেট ব্যান্ডউইথ রপ্তানি কার্যক্রমেরও উদ্বোধন করা হয়। ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে যৌথভাবে ত্রিপুরা-কুমিল্লা আন্তঃদেশীয় গ্রিডের উদ্বোধন করেন শেখ হাসিনা ও নরেন্দ্র মোদি।

শেখ হাসিনা তার বক্তব্যে বলেন, বিদ্যুৎ আমদানি আমাদের জ্বালানির চাহিদা পূরণ হবে। বাংলাদেশ থেকে ব্যান্ডউইথ রপ্তানিতে ত্রিপুরাসহ এ অঞ্চলের বিকাশে ভূমিকা রাখবে। ২০০৯ সাল থেকে ভারতের সঙ্গে আমাদের সম্পর্ক গভীর হয়। বিদ্যুৎ-ব্যান্ডউইথ বিনিময় সে সম্পর্কের ক্ষেত্রে আরেকটি মাইলফলক স্থাপন করলো।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ত্রিপুরা থেকে নতুন করে বিদ্যুৎ আমদানির উদ্বোধনের মাধ্যমে আমাদের সরকারের আরেকটি প্রতিশ্রুতি পুরণ হলো। এছাড়া ভারতে ব্যান্ডউইথ রপ্তানির মাধ্যমে ভারতের কিছু এলাকাও উপকৃত হবে।

তিনি বলেন, ‘ব্যান্ডউইথ পাওয়ার ফলে ভারতের ত্রিপুরাসহ ঐ এলাকার মানুষের জীবন মানের উন্নয়নে বিশেষ অবদান রাখবে। দুই দেশের মধ্যে এ ধরনের সহযোগিতা উভয় দেশের মধ্যে বাণিজ্যিক সম্পর্ক বৃদ্ধিতে আরো গতি আসবে। আগামীতে এ ধরনের সহযোগিতা আরো বৃদ্ধি পাবে ‘

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘ভারতে থেকে ১০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ আমদানি এবং বাংলাদেশ থেকে ভারতে ব্যান্ডউইথ রপ্তানির মাধ্যমে সম্পর্কের ক্ষেত্রে বাংলাদেশ ও ভারত আরেকটি মাইলফলক অতিক্রম করলাম।’

শেখ হাসিনা ভিডিও কনফারেন্সে বলেন, আমরা চাই শান্তিপূর্ণ সহাবস্থান এবং দুই প্রতিবেশি দেশের জীবন মানের উন্নয়ন।

প্রধানমন্ত্রীর উদ্বোধনী বক্তৃতার পর ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি সে দেশে ব্যান্ডউইথ আমদানির উদ্বোধান করেন ও দুই দেশের সম্পর্ক উন্নয়নের নানা প্রতিশ্রুতি দিয়ে বক্তৃতা করেন। তিনি বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ জানান।

বাংলাদেশের সঙ্গে সুসম্পর্কের কথা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি বলেন. বাংলাদেশের সূচনালগ্ন থেকে ভারতের সঙ্গে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক বজায় রয়েছে। প্রতিবেশী দুই দেশের মধ্যে সম্পর্ক কেমন থাকতে হয় সেটা আমরা বিশ্ববাসীকে দেখিয়ে দিয়েছি। আমাদের এই সুসম্পর্ক বজায় থাকবে। আমরা একসঙ্গে আরও বহুদূর এগিয়ে যেতে চাই। বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটেও আমরা বাংলাদেশের সঙ্গে থাকতে চাই।

বক্তব্যের শুরুতে ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী বাংলায় এদেশের জনগণকে শুভেচ্ছা জানান। ভারতে ব্যান্ডউইথ রপ্তানি করায় তিনি বাংলাদেশের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান।

মোদি বলেন, দুই দেশের প্রধানমন্ত্রী এবং একটি প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী একসঙ্গে ভিডিও কনফারেন্স করাই বিশ্ববাসীকে জানিয়ে দিচ্ছে আমাদের মধ্যে সম্পর্ক কত গভীর। এই সম্পর্ককে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ায় তিনি শেখ হাসিনার প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান।

ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান আজীবন ভারতের অবদানের কথা স্মরণ করেছেন। বাংলাদেশের দুর্দিনে সবসময়ই ভারত পাশে ছিল। এখনও আছে, সামনেও থাকবে।

ভারতের একটি রাজ্যে বাংলাদেশের ব্যান্ডউইথ রপ্তানি হওয়ায় এর মাধ্যমে সেখানকার নতুন প্রজন্ম উপকৃত হবে বলে জানান নরেন্দ্র মোদি।

আজ ভারতে দোল উৎসব। এ উপলক্ষে মোদি বাংলাদেশের জনগণকে শুভেচ্ছা জানান। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও বাংলায় ভারতের জনগণকে শুভেচ্ছা জানান।

মোদি জানান, আজ আমরা ভিডিও কনফারেন্স করছি, রাতে ভারত-বাংলাদেশ ক্রিকেট ম্যাচও আছে। আমরা এই খেলাটিও ভালো করে উপভোগ করবো।

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত