টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

৭ শর্তে চট্টগ্রামে আদালতেই প্রেমিক-প্রেমিকার বিয়ে

চট্টগ্রাম, ২২ মার্চ (সিটিজি টাইমস) :: বিয়ে করতে চাইছিলেন না প্রেমিক। তাই সাত মাসের অন্তঃসত্ত্বা প্রেমিকা আইনি প্রতিকার চেয়ে চট্টগ্রাম জেলা লিগ্যাল এইড কার্যালয়ে আবেদন করেন। তার আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতেই ডাকা হয় সালিশি বৈঠক। বৈঠকে দু’পক্ষের সমঝোতা হয়। এরপর কাজি ডেকে ধর্মীয় বিধান অনুযায়ী প্রেমিক-প্রেমিকার বিয়ে পড়ানো হয়।

মঙ্গলবার বিকেলে চট্টগ্রাম আদালত ভবনের নিচতলায় এ বিয়ে অনুষ্ঠিত হয়েছে।

এ প্রসঙ্গে জেলা লিগ্যাল এইড কর্মকর্তা ও সিনিয়র সহকারী জজ মুজাহিদুর রহমান বলেন, ‘উভয়পক্ষের সমঝোতার ভিত্তিতে ৭ শর্তে তরুণ ও তরুণী বিয়ে করতে সম্মত হন। কাজি ডেকে এনে অফিসেই তাদের বিয়ে পড়ানো হয়। এক লাখ টাকা কাবিন ধার্য করা হয়। বিয়ের পর তারা হাসিমুখে আদালতপাড়া ছেড়ে যান।’

আদালতে বিয়ের পিঁড়িতে বসা এ যুগলের বাড়ি বোয়ালখালী উপজেলার পূর্ব গোমনদণ্ডী এলাকায়। যে ৭ শর্তে বিয়ে হয়েছে সেগুলো হলো- তরুণীর সঙ্গে শারীরিক সম্পর্কের বিষয়টি স্বীকার করেছেন তরুণ, অনাগত সন্তানকে নিজের সন্তান বলে স্বীকৃতি দিয়েছেন, ১ লাখ টাকা দেনমোহর দেন, তরুণ আর্থিকভাবে অসচ্ছল হওয়ায় আগামী ৬ মাসের মধ্যে তরুণীকে তার বাবার বাসা থেকে তুলে নেবেন, নিজ বাড়িতে না নেওয়ার আগ পর্যন্ত স্ত্রী ও সন্তানের ভরণপোষণের জন্য প্রতি মাসে দুই হাজার টাকা করে খরচ দেবেন এবং উভয়ে স্বামী ও স্ত্রী হিসেবে একে অপরকে সম্মান করবেন।

লিগ্যাল এইডের আইন সহায়তাকারী মোহাম্মদ এরশাদুল ইসলাম বলেন, ‘৩ মার্চ তরুণী লিগ্যাল এইড কার্যালয়ে অভিযোগ করেন। অভিযোগটি আমলে নিয়ে অভিযুক্ত তরুণকে লিগ্যাল এইড কার্যালয়ে হাজির হতে পরদিন নোটিশ দেওয়া হয়। তারা উভয়ে মঙ্গলবার হাজির হন। বিয়েতে উভয়পক্ষের স্বজনসহ দু’জন আইনজীবীকে সাক্ষী করা হয়েছে।’

মতামত