টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

প্রবাসীর স্ত্রীসহ ইসলামি ব্যাংকের অফিসার আটক

jhen_105046চট্টগ্রাম, ০৯ মার্চ (সিটিজি টাইমস) ::  ঝিনাইদহে ইসলামী ব্যাংকের সিনিয়র প্রিন্সিপাল অফিসার (এসপিও) তৌহিদুর রহমানকে এক প্রবাসীর স্ত্রীসহ আটক করেছে পুলিশ। তাদের বিরুদ্ধে মালামাল লুটের অভিযোগও রয়েছে।তবে জিজ্ঞাসাবাদে তারা বিয়ের কথা স্বীকার করেলেও সংশ্লিষ্ট কাজী তা অস্বীকার করেছেন।

বুধবার দিনভর জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তাকে থানায় আটক রাখা হয়। ব্যাংকটির ম্যানেজার (ভিপি) শেখ আব্দুস সালাম খবরের সত্যতা স্বীকার করেছেন। তৌহিদুর রহমান খুলনার গল্লামারি এলাকার এনায়েত হোসেনের ছেলে।

ঝিনাইদহ সদর থানার এসআই আমিনুল ইসলাম জানান, ঝিনাইদহ জেলা শহরের কাঞ্চন নগর পাড়ার আলী আহম্মদের সৌদি প্রবাসী ছেলে নুর আলমের স্ত্রী ছিলেন আমিনা পারভীন স্মৃতি। নাতাশা আইভি নামের ৮ বছর বয়সের একটি কন্যা সন্তান রয়েছে তাদের। বিদেশ থেকে স্বামীর পাঠানো টাকা উত্তোলনের জন্য স্ত্রী আমিনা পারভীন স্মৃতি প্রায় ব্যাংকে যাতায়াত করতেন। এ ফাঁকে ব্যাংকের এসপিও তৌহিদুর রহমানের সঙ্গে প্রেমের সর্ম্পক গড়ে ওঠে। তারা গত বছরের আগস্ট মাসে একটি ভুয়া কাবিন নামা তৈরি করে স্বামী-স্ত্রী হিসেবে বসবাস করতে থাকে।

বিষয়টি সন্দেহ জনক হওয়ার কারণে পুলিশ তাদের জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ডেকে আনে।

এদিকে স্মৃতির দেবর ফারুক হোসেন ঝিনাইদহ সদর থানায় একটি চুরির মামলা করেছেন। তাতে অভিযোগ করা হয়েছে তার ভাবী স্মৃতি ও ইসলামী ব্যাংকের সিনিয়র প্রিন্সিপাল অফিসার (এসপিও) তৌহিদুর রহমান যোগসাজস করে বাসা থেকে নগদ ৫ লাখ টাকাসহ মোট ৯ লাখ টাকার মালামাল নিয়ে চম্পট দিয়েছে।

তিনি আরও জানান, তার ভাই নুর আলম দীর্ঘ ১৫ বছর প্রবাস থেকে স্ত্রীর নামে ইসলামী ব্যাংকের স্থানীয় শাখায় ২০৫৬১ নাম্বার সঞ্চয়ী হিসাবে লাখ লাখ টাকা পাঠিয়েছে। এই টাকার মধ্যে ৬০/৬৫ লাখ টাকা নিয়ে তার ভাবি ভেগে গেছে। ভাইয়ের পাঠানো টাকায় সে জমিও কিনেছে।

থানায় আটক স্মৃতি খাতুন জানান, তার স্বামী দীর্ঘ ১৫ বছর খোঁজ নেয় না। এ কারণে ২০১৫ সালের মে মাসে তাকে আমি তালাক দিয়েছি।

ইসলামী ব্যাংকের সিনিয়র প্রিন্সিপাল অফিসার (এসপিও) তৌহিদুর রহমান জানান, আমার স্ত্রী মরিয়মের ব্যবহার ভাল না। তাই আমি সুখের কারণে স্মৃতিকে নিয়ে কাজি হাফিজুর রহমানের কাছে গিয়ে বিয়ে করেছি।

তবে, কাজি হাফিজ স্মৃতি ও তৌহিদের বিয়ে পড়াননি বলে দাবি করেছেন।

ইসলামী ব্যাংকের ম্যানেজারের দেয়া তথ্য মতে ২০১৫ সালে ২০৫৬১ নাম্বারের হিসাবটিতে ৩ লাখ টাকার বেশি জমা করা হয়েছে।

বিষয়টি নিয়ে ঝিনাইদহ সদর থানার এসআই আমিনুল ইসলাম জানান, সার্বিক বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। অভিযোগ প্রমাণিত হলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

মতামত