টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

টাইগার প্রেমীদের বাঁধভাঙা উচ্ছ্বাস

sp6চট্টগ্রাম, ০৬  মার্চ (সিটিজি টাইমস) :  বাংলাদেশের ক্রিকেটের সবচেয়ে গৌরবের জায়গা এই দেশের দর্শক। এই দেশের দর্শকেরা বিশ্বসেরা।

বাংলাদেশের দর্শকদের প্রাণের উচ্ছ্বাস দেখে ২০১১ বিশ্বকাপের সময় ক্রিকইনফো লিখেছিল- বাংলাদেশ বিশ্বকাপকে তার প্রাণ ফিরিয়ে দিয়েছে।

তার পরিপূর্ণ প্রতিচ্ছবি ফুটে উঠেছে আজ মিরপুরে। ক্রিকেটপ্রেমী দর্শকদের উচ্ছ্বসিত প্রাণের মেলায় পরিপূর্ণ স্টেডিয়াম এলাকা।

রবিবার দুপুর ২টা থেকেই শুরু স্টেডিয়াম এলাকায় টাইগার ক্রিকেট সমর্থকদের ভিড়।

খেলা সন্ধ্যা সাড়ে সাতটায়। স্বপ্নের ফাইনালে শিরোপা লড়াইয়ের যুদ্ধে নামবে প্রিয় বাংলাদেশ এবং ভারত।

খেলা শুরু হতে ঢের বাকি। কিন্তু নিজের আরাধ্য আসনটা বুঝে নিতে সবাই রওনা হয়েছেন আগে। ঘরে ঘরে প্রস্তুতি টেলিভিশনে চোখ রাখার জন্য। সব আকর্ষণ যে আজ মিরপুর হয়ে টেলিভিশনেই। মাঠে দর্শকের আসন মোটে ২৫,০০০।

তাতে কি! আজ ৫৬,০০০ বর্গমাইলের দেশটির সবাই অপেক্ষায় টেলিভিশনের পর্দায় খেলাটা দেখার জন্য।

খেলা শুরুর আগেই দর্শকদের ভিড়ে একাকার মিরপুর স্টেডিয়াম এলাকা। হাতে হাতে ছোটো ছোটো পতাকা। আর হকাররা হাক দিয়ে যাচ্ছে মাথায় বাধার ব্যান্ড নিয়ে। বাংলাদেশের জার্সি শরীরে ছেলে বুড়ো জমা হয়েছে। শিল্পের রঙ্গেও কেউ কেউ রাঙ্গিয়ে নিচ্ছেন নিজেদের।

গালে মুখে বাংলাদেশকে ফুটিয়ে তুলছেন কেউ কেউ। কেউবা প্রিয় ক্রিকেটারের নামটাও লিখিয়ে নিচ্ছেন। বিভিন্ন কোম্পানি তাদের প্রচারের জন্য চার ছক্কার হ্যান্ড বোর্ডও বিলাচ্ছে।

অনেক অনেক বাঘ আজ মিরপুরে। নিজেদের বাঘের সাজে সাজিয়ে মাঠে গলা ফাটানোর অপেক্ষায় এই ক্রিকেট পাগল সমর্থকরা।

একটি টিকিটের জন্য আগের দিন মিরপুরে হয়েছে লঙ্কাকাণ্ড। পুলিশের লাঠিপেটা, কাঁদুনে গ্যাস, রবার বুলেট হজম করেও একটি টিকিট নিয়ে ফিরতে পেরেছেন যে সে মহা ভাগ্যবান।

ইতিহাসের সাক্ষী হওয়ার সুযোগ যে! কালোবাজারি এই দেশে ঠেকানো যায়নি কখনো। এই আকালেও কিছু টিকিট আছে তাদের হাতে।

জানা গেল, আগের দিন কেউ কেউ দেড়শো টাকার টিকিট এমন অবৈধ পথে ২ হাজার টাকা দিয়েও কিনেছেন। এদিন সেটা নাকি ৫ হাজার টাকায়ও বিকোচ্ছে! এর মধ্যে আবার জালিয়াত চক্র জাল টিকেটের পসরা খুলে বসেছে! কালোবাজারিতে এমন টিকেট কিনেও প্রতারণার শিকার হচ্ছেন অনেকে। এই টিকিট নিয়ে মাঠে ঢোকা যাবে না যে! টিকেটের গায়ে ‘বাংলাদেশ-ভারত ফাইনাল’ লেখা দেখলেই বুঝতে হবে ওটা জাল।

সারা দেশের মানুষের প্রার্থনা, ফাইনালে জিতুক বাংলাদেশ। হোক এশিয়ার সেরা। প্রথমবারের মতো কোনো আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্টের শিরোপা তুলুক ঘরে। সেই সাথে আরো কামনা, খেলার সময় বিদ্যুৎটা থাকুক নিরবিচ্ছিন্ন। যাতে খেলা উপভোগে বাধা পড়ে না কোনো। যার যা কাজ আছে সব খেলা শুরুর আগেই শেষ করে নিতে ব্যস্ত সবাই। অফিস ফিরতি মানুষের বাড়ির দূরত্ব বেশি হলে একটু আগেভাগে বের হওয়ার প্রস্তুতিও আছে। মিরপুরে যাওয়া হবে না। তবু টাইগারদের ইতিহাসের সতীর্থ তো হতেই হবে। ১৬ কোটি মানুষের গোটা দেশের সব চোখ, সব পথ, সব আকর্ষণ এখন তাই গিয়ে মিলেছে মিরপুরেই।

বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের জন্য রইল শুভকামনা। বাংলাদেশের ক্রীড়ামোদী দর্শকদের জন্য রইল অভিবাদন। আমরাই তো বাংলাদেশ। আমি সুন্দর, তো বাংলাদেশ সুন্দর।

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত