টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

একের পর এক স্বর্নের দোকানে ডাকাতি: গ্রেপ্তার হয়না জড়িত কেউ, উদ্ধার হয়নি স্বর্ণ

এম মাঈন উদ্দিন
মিরসরাই প্রতিনিধি 

চট্টগ্রাম, ০৪  মার্চ (সিটিজি টাইমস) :  উত্তর চট্টগ্রামের বানিজ্যকেন্দ্র হিসেবে পরিচিত বারইয়ারহাট বাজারের শামীম জুয়েলার্সে ডাকাতির ঘটনার এক সপ্তাহ পার হয়ে গেলেও এখনো ঘটনার সাথে জড়িত কাউকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ। এতে করে ওই বাজারের শত শত ব্যবসায়ীদের মাঝে চরম আতংক গত কয়েক বছরে অন্তত তিনটি স্বর্নের দোকান ডাকাতির ঘটনায় প্রায় এক হাজার ভরি স্বর্ণ লুট হলেও এক ভরি স্বর্ণও উদ্ধার হয়নি। গ্রেফতার হয়নি কোনো আসামি। এদিকে গত বৃহস্পতিবার (৩ মার্চ) ভোরে বারইয়ারহাট কমপোর্ট প্রাইভেট হাসপাতালের একটি মাইক্রো গাড়ি চুরি হয়েছে।

হাসপাতালের চেয়ারম্যান মোঃ নিজাম উদ্দিন বলেন, প্রতিদিনের মত বৃহস্পতিবার রাতে হাসপাতালের সামনে গাড়িটি (যার রেজিষ্ট্রেশন নাম্বার ঢাকা মেট্রো চ-১৩-৮০০৯, ইঞ্জিন নম্বর ৭ক-০৭৫০০০৯.চেসিস নাম্বার কজ-৪২-৫০৩৯৯৮৬.সাদা রং) রেখে বাড়ি যায় চালক। সকালে এসে দেখে গাড়িটি চুরি হয়েছে। এরপর বিভিন্ন জায়গায় খোঁজ করে না পেয়ে জোরারগঞ্জ থানায় একটি অভিযোগ (নং ২৬৭/১৬) করা হয়েছে। এছাড়া গত ৬ মাসে বারইয়ারহাট থেকে প্রায় ১৪টি মোটর সাইকেল চুরি হয়েছে।

সর্বশেষ গত শুক্রবার সন্ধ্যায় বারইয়ারহাট বাজারের শামীম জুয়েলার্সে ডাকাতির ঘটনা ঘটে। এ সময় ডাকাতদল তিন শ ভরি স্বর্ণ লুট করে নিয়ে যায়। ডাকাতদলের ককটেলের আঘাতে ৭ জন আহত হন। ডাকাতির সাথে জড়িতদের সিসি ক্যামরায় দেখো গেলেও রহস্যজনক কারণে পুলিশ গ্রেপ্তার করছেনা বলে অভিযোগ করেছেন ভূক্তভোগী।

ডাকাতদলের সদস্যদের চিহিৃত করে অবিলম্বে আটক ও লুট হওয়া স্বর্ণ উদ্ধারের দাবিতে মানববন্ধন করেছেন স্থানয়ী ব্যবসায়ীরা।

জানা গেছে, ২০১২ সালের ৩০ ডিসেম্বর মসজিদ গলির রূপসী জুয়েলার্সে ডাকাতির ঘটনা ঘটে। এ সময় ডাকাতদল দোকানের মালিক নূর হোসেন রেদোয়ানকে কুপিয়ে ৩শ ভরি স্বর্ণ লুট করে নিয়ে যায়। ওই ঘটনায় দোকানের মালিক বাদি হয়ে জোরারগঞ্জ থানায় ডাকাতি মামলা দায়ের করলেও পুলিশ কাউকে আটক কিংবা লুট হওয়া স্বর্ণ উদ্ধার করতে সক্ষম হয়নি।

২০১৩ সালের ১২ জুলাই একই গলির মদিনা জুয়েলার্সে স্বর্ণ লুটের ঘটনা ঘটে। দোকানের মালিক রফিকুল ইসলাম কর্মচারিকে দোকানে রেখে জোহরের নামাজ পড়তে যায়। এ সময় কে বা কারা দোকানের সিন্দুকে থাকা প্রায় আড়াই শ ভরি স্বর্ণ লুট করে নিয়ে যায়। পুলিশ কয়েকজন কর্মচারিকে আটক করলেও লুট হওয়া স্বর্ণ উদ্ধার করতে পারেনি।

বাবারইয়ারহাট বাজারে থাকা কয়েকটি সিসি ক্যামরার ক্যাবল কেটে দেয় ডাকাত দলের সদস্যরা। তবে শামীম জুয়েলার্সে থাকা সিসি ক্যামরায় ডাকাতির ঘটনা পুরোটা ধারণ হয়ে যায়। আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ধারণকৃত ঘটনার ভিডিও ফুটেজ সংগ্রহ করেছে।

জানা গেছে, বিগত চার বছর আগে শামীম জুয়েলার্সের বাড়িতে ডাকাতির ঘটনা ঘটে। এসময় ডাকাতদল প্রায় দুই ভরি স্বর্ণ লুট করে নিয়ে যায়। এরপর থেকে শামীম জুয়েলার্সের মালিক হাজ্বী সাহাব উদ্দিন ঋণে জড়িয়ে পড়েন। সাহাব উদ্দিন জানান, বিগত চার বছর আগে তার বাড়ি ডাকাতি হয়। সে সময় স্বর্ণের দাম অনেক বেশি ছিল। তাই তাকে প্রায় ২৫ লাখ টাকা ঋণ নিয়ে আবারো ব্যবসায়ে পুঁজি দিতে হয়েছে।

এদিকে একই স্থানে বারইয়ারহাট ডাকাতির ঘটনায় সাধারণ ব্যবসায়ীদের মাঝে আতঙ্ক বিরাজ করছে। সাধারণ ব্যবসায়ীরা মসজিদ গলির দুপাশে পুলিশ বক্স বসানোর দাবি জানান।

বারইয়ারহাট জুয়েলার্স সমিতির সাধারণ সম্পাদক গিয়াস উদ্দিন পেয়ার বলেন, একই স্থানে বারবার ডাকাতির ঘটনা ঘটলেও পুলিশ কোনো প্রকার ক্লু খুঁজে পাচ্ছে না। তাই ব্যবসায়ীদের মাঝে আতঙ্ক বিরাজ করছে।

বারইয়ারহাট বাজার ব্যবসায়ী উন্নয়ন কমিটির সাধারণ সম্পাদক হেদায়েত উল্ল্যাহ বলেন, ডাকাতির ঘটনায় মামলা হয় কিন’ কোনো আসামি গ্রেপ্তার কিংবা লুট হওয়া স্বর্ণ উদ্ধার হয় না।

ডাকাতির ঘটনায় স্থানীয় কোনো মাদক ব্যবসায়ীর গডফাদার জড়িত থাকতে পারে বলে তিনি সন্দেহ প্রকাশ করেন। বারইয়ারহাট পৌরসভার নবনির্বাচিত মেয়র নিজাম উদ্দিন ভিপি বলেন, ডাকাতির ঘটনায় মামলা হয়েছে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনী তৎপর রয়েছে। আশা করি, এক সপ্তাহের মধ্যে একটি সুরাহা হবে।

মিরসরাইয়ের সাংসদ গৃহায়ন ও গনপূর্তমন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন বারইয়ারহাট বাজারে প্রতি ওয়াক্ত নামাজের সময় এক ঘন্টা করে পুলিশি টহল দিতে নির্দেশ দিয়েছেন জোরারগঞ্জ থানার ওসি জাহিদুল কবিরকে। কারণ ডাকাতদল নামাজের সময় টার্গেট করে ডাকাতির ঘটনা করে থাকে।

জোরারগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জাহিদুল কবির বলেন, সুনির্দিষ্ট তথ্য ছাড়া কাউকে গ্রেপ্তার করাতো যাবেনা। ভিডিও ফুটেজ দেখে ডাকাতদলের সদস্যদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে। এক কিছুদিনের মধ্যে আশা করি একটি ভালো ফলাফল পাওয়া যাবে।

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত