টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

রাঙ্গুনিয়ায় পিতাকে কুপিয়ে হত্যা করেছে সন্ত্রাসীরা : পুত্র গুরুতর আহত

আব্বাস হোসাইন আফতাব
রাঙ্গুনিয়া প্রতিনিধি

Rangunia-murder-pic-jpg-(1)চট্টগ্রাম, ০১ মার্চ (সিটিজি টাইমস) :: রাঙ্গুনিয়া উপজেলার সরফভাটা ইউনিয়নের দূর্গম পাহাড়ী এলাকা কালিছড়ি সেগুন বাগানে পিতা ও পুত্রকে কুপিয়েছে সন্ত্রাসীরা। ঘটনাস্থলে পিতা মারা গেলেও পুত্র মৃত্যুর সাথে লড়ছে। নিহত পিতার একটি হাত কেটে বিচ্ছিন্ন করা হয়েছে। পুত্রের হাত ও পা ক্ষতবিক্ষত করা হয়েছে। পুলিশ নিহতের লাশ উদ্ধার করে পোষ্টমর্টেমের জন্য মর্গে প্রেরন করেছে। গুরুতর আহতকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরন করা হয়েছে। তার অবস্থা আশংকাজনক। মঙ্গলবার (১মার্চ) সকাল ১০ টায় এ ঘটনা ঘটে। এ ব্যাপারে রাঙ্গুনিয়া থানায় হত্যা মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার সরফভাটা ইউনিয়নের পশ্চিম সরফভাটা গঞ্জম আলী সরকারের বাড়ির আবুল কালামের পুত্র উকিল আহমদ (৫৫) ও তার পুত্র মো.ইসমাইল (১৬) মঙ্গলবার সকালে জঙ্গল সরফভাটা গ্রামের কালিছড়ি সেগুন বাগানে যায়। সেখানে তাদের নিজস্ব গাছ বিক্রি করার জন্য স্থানীয় মো. আলীকে গাছ দেখাতে যায়। পূর্ব পরিকল্পিতভাবে একই এলাকার রশিদ, ওসমান, মঞ্জু, কাসেম ,দিদার সাইফু ধারালো কিরিচ দিয়ে এলোপাথারি কুপিয়ে হত্যা করে পিতা উকিল আহমদকে পুত্র ইসমাইলকে কুপিয়ে ক্ষতবিক্ষত করে। হত্যার ঘটনায় এলাকায় জানাজানি হলে আহতকে উদ্ধার করে স্থানীয় উপজেলা হাসপাতালে প্রেরন করে। তার অবস্থা বেগতিক দেখে কর্তব্যরত চিকিৎসক চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরন করে।

এলাকাবাসীরা জানিয়েছে, গত বছরের ৪ ফেব্রুয়ারি প্রবাসী ইদ্রিছকে গুলি করে হত্যা করে সন্ত্রাসীরা। হত্যা মামলায় উকিল আহমদ, মো. ইসমাইলসহ অনেকেই আসামী ছিলেন। প্রবাসী ইদ্রিছ হত্যাকান্ডের জের ধরে এ হত্যাকান্ড সংঘটিত হয় বলে জানান এলাকাবাসীরা। এলাকায় হত্যাকান্ডে অভিযুক্তদের বাড়ি গিয়ে কাউকে পাওয়া যায়নি। তাদের বক্তব্য নেওয়াও সম্ভব হয়নি।

নিহতের পিতা আবুল কালাম জানান, সকাল ৭ টায় সেগুন বাগানে আমার ছেলে ও নাতি গাছ বিক্রি করতে যায়। রশিদ, ওসমানের নেতৃত্বে সন্ত্রাসীরা আমার ছেলেকে কুপিয়ে হত্যা করে।

সরফভাটা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মুজিবুল ইসলাম সরফি জানান, ঘটনার খবর পুলিশকে জানিয়েছি। ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে লাশ উদ্ধারে প্রয়োজনীয় সহযোগিতা করেছি। পূর্ব শত্র“ুতার জের ধরে এ হত্যাকান্ড হয় বলে তিনি জানান।

রাঙ্গুনিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ মো. হুমায়ুন কবির জানান, ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশ উদ্ধার করেছি। ঘটনার বিষয়ে তদন্ত করা হচ্ছে। এলাকার পরিস্থিতি স্বাভাবিক।

মতামত