টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

মিরসরাইয়ে স্বর্ণ লুটের ঘটনা দেখা গেল সিসি ক্যামেরায়

এম মাঈন উদ্দিন
মিরসরাই প্রতিনিধি 

চট্টগ্রাম, ২৭ ফেব্রুয়ারি (সিটিজি টাইমস) :  চট্টগ্রামের মিরসরাই উপজেলার জোরারগঞ্জ থানার বারইয়ারহাটে গতকাল শুক্রবার সন্ধ্যায় শামীম জুয়েলার্স নামের একটি সোনার দোকানে এ ডাকাতির ঘটনা ঘটে। আর এ ডাকাতির দৃশ্য ধরা পড়েছে দোকানে থাকা সিসি ক্যামেরায়।

সিসি ক্যামেরায় দেখা যায় স্বর্ণের দোকানে ক্রেতার আশায় বসে ছিলেন কর্মচারীরা। সেই দোকানে ঢুকলেন কয়েকজন ব্যক্তি। কোনো কিছু বুঝে উঠার আগেই তাঁদের দুজন কোমর থেকে বের করলেন আগ্নেয়াস্ত্র। চারদিকে আতঙ্ক ছড়িয়ে দিতে দোকানের বাইরে ফাটানো হলো বোমা। দোকানে ঢোকা ব্যক্তিরা দ্রুত স্বর্ণালংকার প্যাকেটে ও পকেটে ভরে নিলেন। এরপর বেরিয়ে তার ​নিয়ে পালিয়ে যান।

এ ঘটনায় স্বর্ণ ব্যবসায়ীদের মধ্যে বিরাজ করছে ক্ষোভ।

এদিকে, বারইয়ারহাটে একের পর এক সোনার দোকান লুট হওয়ার ঘটনায় ক্ষুদ্ধ ব্যবসায়ীরা রাজপথে নেমে প্রতিবাদ জানিয়েছে। শনিবার (২৭ ফেব্রুয়ারি) সকাল ১১টায় দোকানপাট বন্ধ করে তারা ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের পাশে দীর্ঘ মানববন্ধন করেছে বাজারের ব্যবসায়ীরা। এছাড়া সকাল থেকে পুলিশ ও গোয়েন্দা সংস্থার উর্দ্ধতন কর্মকর্তরা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে ক্ষতিগ্রস্থ সোনা ব্যবসায়ীকে ঘটনায় জড়িতদের গ্রেপ্তার ও সোনা উদ্ধারের ব্যাপারে আশ্বস্থ করেছে। মানববন্ধনে বারইয়ারহাট বণিক সমিতির সভাপতি রফিকুল ইসলামের সভাপতিত্বে এতে অন্যানের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, সহ-সভাপতি সাহাব উদ্দিন, সাধারণ সম্পাদক গিয়াস উদ্দিন পেয়ার, সাংগঠনিক সম্পাদক নূর উদ্দিন রেদোয়ান, কোষাদক্ষ্য দীলিপ বণিক, কারিগর সমিতির সভাপকি দুলাল বণিক, সাধারণ সম্পাদক সুমন শর্ম্মা প্রমুখ।

এদিকে সকালে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন চট্টগ্রাম উত্তরের অতিরিক্তি পুলিশ সুপার মোস্তাফিজুর রহমান, এএসপি সালাহ উদ্দিন, সিআইডির উপ-পরিদর্শক আব্দুল হামিদের নেতৃত্বে তিন জনের একটি তদন্ত দল। এছাড়া র‌্যাব সেভেনের একটি দল ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে।

মানববন্ধনের বক্তারা বলেন, অবিলম্বের ডাকাত সদস্যদের গ্রেফতার ও লুট হওয়া তিনশ ভরি স্বর্ণ উদ্ধারের দাবি জানান। তা না হলে ভবিষ্যতে কঠোর আন্দোলনের হুমকী দেন তারা।

লুট হওয়া শামীম জুয়েলার্স এর মালিক সাহাবুদ্দীন কোম্পানী সাংবাদিকদের কাছে দাবি করেন ‘মোট ৩শ ৫০ ভরি সোনা লুট হয়েছে। ঋণের বোঝায় এমনিতেই তিনি দিশেহারা। আত্মীয়-স্বজন বন্ধু বান্ধবের কাছে প্রায় ২৫ লাখ টাকা ঋণ রয়েছে। পুলিশ লুট হওয়া স্বর্ণ উদ্ধার করতে না পারলে আমার আত্মহত্যা করা ছাড়া কোন উপায়ন্তু থাকবে না।’

ডাকাতির সময় ওই জুয়েলারী দোকানের সিসিটিভি ক্যামেরায় ধারনকৃত ফুটেজ সংগ্রহ করেছে জোরারগঞ্জ থানা পুলিশ। এঘটনায় শুক্রবার রাতেই জোরারগঞ্জ থানায় অজ্ঞাতনামা ৭/৮ জনকে আসামী করে একটি মামলা (নং ৩১) দায়ের করেন ভুক্তভোগী সাহাবুদ্দিন।

পুলিশের তরফ থেকে সাংবাদিকদের বলা হয় ঘটনার সময় সিসি ক্যামেরায় ধারণকৃত ভিডিও ফুটেজের মাধ্যমে জড়িতদের গ্রেপ্তার এবং লুট হওয়া সোনা উদ্ধার সম্ভব হবে।

জোরারগঞ্জ থানার সেকেন্ড অফিসার এসআই বিপুল দেবনাথ জানান, স্বর্নের দোকানে ডাকাতির ঘটনায় জড়িতদের গ্রেফতারে পুলিশ সর্বাত্তক অভিযান চালিয়ে যাচ্ছে। অচিরেই তাদের গ্রেফতার করা সম্ভব হবে। এদিকে গৃহায়ন ও গনপূর্ত মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন জোরারগঞ্জ থানার ওসি জাহিদুল কবিরকে স্বর্ণের দোকানে ডাকাতির সাথে জড়িতদের দ্রæত গ্রেপ্তারের নির্দেশ দিয়েছেন এবং নামাজের সময় ওই এলাকার পুলিশের একটি টিম যেন টহল দেয়ারও কথা বলেন তিনি। কারণ বারইয়ারহাটে ডাকাতির ঘটনাগুলো নামাজের সময় যখন মুসল্লীরা মসজিদের থাকে তখন সংগঠিত হয়।

উল্লেখ্য গত শুক্রবার (২৬ফেব্রুয়ারি) মাগরিবের আযানের সময় মিরসরাইয়ের বাণিজ্যিক প্রাণকেন্দ্র বারইয়ারহাট পৌর বাজারের শামীম জুয়েলারী দোকানে দুর্ধর্ষ ডাকাতির ঘটনা ঘটেছিল। পৌরবাজারের মসজিদ গলির শামীম জুয়েলার্স নামের ওই সোনার দোকান থেকে প্রায় আড়াইশ ভরি সোনা লুট করে নিয়ে যায় ডাকাতরা। এসময় ডাকাতদের ছোঁড়া ককটেলের স্পিন্টারের আঘাতে ইমরান হোসেন অনিক (৬) নামের এক শিশু ও হাজী শাহজাহান নামের এক ব্যবসায়ী মারাত্মক আহত হয়েছেন।