টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

সাতকানিয়ায় চেয়ারম্যান পদে সম্ভাব্য প্রার্থীদের দৌড়-ঝাঁপ

সাতকানিয়া প্রতিনিধি 

চট্টগ্রাম, ২২ ফেব্রুয়ারি (সিটিজি টাইমস) :  সাতকানিয়া উপজেলার ১৭টি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে সম্ভাব্য চেয়ারম্যান ও মেম্বার প্রার্থীদের প্রচার প্রচারণা ব্যাপকভাবে শুরু হয়ে গেছে।

প্রতিটি ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে সরকার দলের একাধিক প্রার্থীর নাম শোনা যাচ্ছে। দোয়া ও শুভেচ্ছা জানিয়ে পোস্টার এবং ডিজিটাল ব্যানারে ছেয়ে গেছে রাস্তা ও দেয়াল।

এলাকার দোকান, হাট-বাজার, অফিস-আদালত সর্বত্র আলোচনার ঝড় বইছে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন নিয়ে। প্রত্যেক প্রার্থী নেতাদের ওপর প্রভাব বিস্তার করতে বিভিন্ন কার্যক্রম করে চলেছেন।

সব মিলিয়ে বলা যায়, চট্টগ্রামের সাতকানিয়া উপজেলার ১৭টি ইউনিয়নের সর্বত্র বইছে নির্বাচনী হাওয়া। দলীয় প্রতীকে নির্বাচন তাই প্রতি ইউনিয়নে অনেকে প্রার্থী হওয়ার চেষ্টা চালাচ্ছেন। এর মধ্যে অনেকে উপজেলার কর্ণধার থেকে শুরু করে দলের কেন্দ্রীয় নেতাদের সাথে ঘন ঘন যোগাযোগ করে যাচ্ছেন।

সাতকানিয়া উপজেলার ১৭টি ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে যাদের নাম শোনা যাচ্ছে তারা হলেন, সোনকানিয়া ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ থেকে সাবেক ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান আবু তাহের, আবদুল আলীম, এরফানুল করিম চৌধুরী, আলহাজ নূর আহমদ, সেলিম উদ্দিন চৌধুরী, জসিম উদ্দিন।

সাতকানিয়া সদর ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ নেজাম উদ্দিন, মাস্টার ফারুখ আহমদ, সেলিম উদ্দিন, এসএম আজিজ, জাভেদুর রশিদ।

মাদার্শা ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের আনম সেলিম চৌধুরী, রিদোয়ানুল হক, নজরুল ইসলাম সিকদার, আহমদুর রহমান। বিএনপির জামাল হোসেন।

চরতী ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের সোহেল মোহাম্মদ মনজুর, প্রদীপ কুমার চৌধুরী, মুস্তাকিম চৌধুরী, মমতাজ উদ্দীন, মোহাম্মদ রুহুল্লা চৌধুরী, জামায়াতের রেজাউল করিম।

আমিলাইশ ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের জিয়াউর রহমান, জামাল উদ্দীন, মো সোলাইমান, আবদুল করিম, সারওয়ার উদ্দীন চৌধুরী, জামায়াতের মোহাম্মদ হোসেন।

খাগরিয়া ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের রাশেদ আজগর চৌধুরী সুজা, আকতার হোসেন, জসিম উদ্দীন, হাসান মাহমুদ, বিএনপির হারুনুর রশিদ।

কাঞ্চনা ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের মিজানুর রহমান মারুফ, মোহাম্মদ সালাম, মোখলেছ উদ্দীন জাকের, রমজান আলী, বিএনপির মোরশেদুল আলম।

ধর্মপুর ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের গিয়াস উদ্দীন হিরু, মো. ইলিয়াছ চৌধুরী, কামাল উদ্দীন চৌধুরী, মফজল আহমদ চৌধুরী।

পশ্চিম ঢেমশা ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ থেকে আবু তাহের জিন্নাহ, আনজুমান আরা, মো. কাইসার, এলডিপির সরোয়ার কামাল।

কালিয়াইশ ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের হাফেজ আহমদ (মুক্তিযোদ্ধা), আবু ছালেহ, মো. মহিউদ্দীন, আবুল কালাম আজাদ, দেলোয়ার হোসেন, শওকত আলী বাবুল, হাকিম আলী, এলডিপির হোসেন উদ্দীন আহমদ, বিএনপির ছাব্বির আহমদ ওসমানী।

বাজালিয়া ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের নুরুল আমিন সিকদার, তাপস দত্ত, মো. শহীদুল্লাহ চৌধুরী, রফিক আহমদ চৌধুরী, তৌফিকুল ইসলাম চৌধুরী, এলডিপির নুরুল ইসলাম সিকদার।

কেওচিয়া ইউনিয়নে জাহাঙ্গীর আলম (সাংবাদিক), মনির আহমদ (ব্যবসায়ী), ওসমান গনি সিকদার (আওয়ামী লীগ), জসিম উদ্দিন (শ্রমিক লীগ), ফরুখ আহমদ (বিএনপি), সামশুল ইসলাম (বিএনপি)।

এওচিয়া ইউনিয়নে হাজী দেলোয়ার হোসেন (আওয়ামী লীগ), মাহামুদুল হক চৌধুরী (এলডিপি), সেলিমুল ইসলাম (বিএনপি), আবু ছালেহ (ছাত্রলীগ)।

পুরানগড় ইউনিয়নে আজাদ চৌধুরী (আওয়ামী লীগ), রাশেদ হোসাইন সিকদার দুলু (আওয়ামী লীগ), হুমায়ন কবির খোকন (যুবলীগ),  শাহেদ উদ্দিন সিকদার (ছাত্রলীগ)।

উত্তর ঢেমশা ইউনিয়নে কামাল উদ্দিন (আওয়ামী লীগ), আসাদুজ্জামান জনি (আওয়ামী লীগ) আবদুস ছোবহান (যুবলীগ), আবদুল মজিদ (কৃষক লীগ), রমজান আলী মো.সাইফুল্লাহ (এলডিপি), আবদুল মজিদ বজল (বিএনপি), শফর মুল্লুক রাশেদ (বিএনপি)।

ছদাহা ইউনিয়নে মোসাদ হোসাইন চৌধুরী (আওয়ামী লীগ), খানে আলম মিন্টু (আওয়ামী লীগ), আজহার উদ্দিন, (যুবলীগ), জসিম উদ্দিন (এলডিপি) ও

নলুয়া ইউনিয়নে তছলিমা আক্তার (যুবলীগ), আজম সেলিম (আওয়ামী লীগ), মোহাম্মদ মিয়া (আওয়ামী লীগ), আবদুস শুক্কুর (আওয়ামী লীগ), কামাল উদ্দিন (আওয়ামী লীগ), জুলফিকার আলী ভুট্টো (যুবলীগ), কামাল উদ্দিন (আওয়ামী লীগ), শাহ আলম (এলডিপি) দিদারুল ইসলাম (জামায়াত)।

মতামত