টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

পর্যটন জোন হচ্ছে পতেঙ্গা ও পার্কি বীচ

jচট্টগ্রাম, ১১ ফেব্রুয়ারি (সিটিজি টাইমস) :: বাংলাদেশ পর্যটন করপোরেশনের অধীনে পতেঙ্গা সৈকতে ৫ একর এবং আনোয়ারার পারকিতে ৩৮ একর জমিতে হোটেল-মোটেল জোন করা হবে।


আগামী দুই মাসের মধ্যে এসব জমি অধিগ্রহণ করা হবে। এ ছাড়া আগামী এক বছরে চট্টগ্রামের এ দুটি সৈকতে দৃশ্যমান পরিবর্তন আসবে।

বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১১টায় জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে চট্টগ্রাম বীচ ম্যানেজমেন্ট কমিটির দ্বিতীয় সভায় জেলা প্রশাসক মেজবাহ উদ্দিন এসব তথ্য জানান।

এর আগে ২০১৪ সালের ২৭ অক্টোবর এ কমিটির প্রথম সভায় পতেঙ্গা ও পার্কি বীচকে পর্যটন জোন হিসেবে গড়ে তোলার প্রস্তাব করা হয়।

চট্টগ্রাম বীচ ম্যানেজমেন্ট কমিটির সভাপতি ও জেলা প্রশাসক মেজবাহ উদ্দিন বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার একান্ত আগ্রহে ও পুরো চট্টগ্রামকে সৌন্দর্য্যবান্ধব নগরী হিসেবে গড়ে তুলতে পতেঙ্গা ও পার্কি সী-বীচকে পর্যটন এলাকার আওতায় নিয়ে আসা হচ্ছে। পতেঙ্গার ৫ একর ও পার্কি সী-বীচের জন্য ৩৮ একর জমিগুলো খাসজমি, তাই কোনো জটিলতা ছাড়াই ভূমি মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে সহজে এ জমি পেয়ে যাচ্ছি। সব কিছু ঠিক থাকলে আগামী এক বছরের মধ্যে এ দু’টি বীচে পর্যটন এলাকা গড়ে তুলতে প্রকল্পের কাজ শুরু করে দিতে পারি।’

এসময় তিনি এ দু’টি সী-বীচের আশপাশে পর্যটকদের জন্য ফাইভ স্টার সুবিধা সম্বলিত হোটেলসহ বিভিন্ন রেস্টুরেন্ট ও মার্কেট গড়ে তোলা হবে বলে জানান। এছাড়াও অসামাজিক কাজসহ সব ধরনের অনিয়ম রোধে ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানান।

জেলা প্রশাসক বলেন, ‘এ দু’টি সী-বীচ যেহেতু পর্যটন এলাকায় নিয়ে আসা হবে তাই আগে এর যাতায়াতের দিকটিকে গুরুত্ব দিতে হবে। এ লক্ষ্যে পার্কি ও পতেঙ্গায় যাতায়াতের সুবিধার্থে উন্নতমানের গ্রীনরোড তৈরি করা হবে। এর মধ্যে পার্কি বীচের ৫ দশমিক ৪৫ কি.মি রাস্তার উন্নয়নের জন্য প্রায় ১ কোটি টাকার টেন্ডার ইতোমধ্যে দিয়ে দেয়া হয়েছে। যেটির আগামী বর্ষা মৌসুমের আগেই রাস্তা সম্প্রসারণের কাজ শেষ হবে। একই সঙ্গে পতেঙ্গার গ্রীণ রোড তৈরি করার কাজও শুরু হয়েছে।’

পর্যটন জোন তৈরীর কাজে যে কেউ এখানে অনুদান দিয়ে সহযোগিতা করতে পারবেন বলে উল্লেখ করে মেজবাহ উদ্দিন বলেন, ‘ভূমি বন্দোবস্তের পর বর্তমানে যারা ওখানে বসবাস করছেন তাদের জন্য পুনর্বাসনের ব্যবস্থা করা হবে। এছাড়াও বীচ ম্যানেজমেন্ট কমিটির সোনালী ব্যাংকের একটি একাউন্ট (৭০ ৫৮০১১-২৩১৮১) খোলা হয়েছে। যেটি নিয়ন্ত্রণ করবে এ কমিটি, চাইলে যে কেউ এখানে অুনদান দিয়ে সহযোগিতা করতে পারবেন।’

সভায় ম্যানেজমেন্ট কমিটির সদস্যরা বীচ ম্যানেজমেন্ট কমিটির সভাপতি ও জেলা প্রশাসক মেজবাহ উদ্দিনের কাছে বিভিন্ন দিকনির্দেশনা ও প্রস্তাব তুলে ধরেন।

পতেঙ্গা বীচের প্রতিনিধি মো. ওয়াহিদুল আলম বলেন, ‘বর্তমানে পতেঙ্গায় তাহের সাহেব নামে একজন প্রভাবশালী ব্যক্তি প্রায় ৪’শ ফুট জমি দখল করে রেখেছেন, যে জমিগুলো যদিও চট্টগ্রাম পানি উন্নয়ন বোর্ডের। এ জমিগুলো উদ্ধার করতে পারলে যে পর্যটকরা দেশ-বিদেশ থেকে গাড়ি নিয়ে বেড়াতে আসবেন তাদের গাড়ি পার্কিং’র জন্য কোনো সমস্যায় পড়তে হবেনা। এছাড়াও উন্নতমানের শৌচাগার নির্মাণ ছাড়াও গ্রীণ রোডের ফলে যে সকল মানুষ গৃহ হারা হবে তাদের পুনর্বাসনের জন্যও প্রস্তাব করেন তিনি।’

সভায় টুরিস্ট পুলিশ সুপার নওরোজ হাসান তালুকদার বলেন, ‘যেহেতু এ দু’টি প্রকল্প বড় ও পর্যটন এলাকা তাই কোনো অনিয়ম না হতে ও পর্যটনদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে তাদের জন্য স্থায়ী ফাঁড়ি নির্মাণের দাবি জানান। এছাড়াও অপরাধীদের বিরুদ্ধে তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা নিতে মোবাইল কোর্ট রাখারও দাবি জানান তিনি।’

বাংলামেইল২৪ডটকম/জেইউ/এএ

মতামত