টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

ভাগ্য বদল হয়েছে অনেকেরঃ মিরসরাইয়ে ঝাঁড়– ফুল যাচ্ছে সারা দেশে

এম মাঈন উদ্দিন
মিরসরাই প্রতিনিধি 

Mirsarai-Jadu-Pul--(2)চট্টগ্রাম, ২৯ জানুয়ারি (সিটিজি টাইমস) : মিরসরাইয়ের ঝাঁড়– ফুল যাচ্ছে সারা দেশে। উপজেলার স্থানীয় বাজারগুলোতে জমজমাট বিকিকিনি চলছে ঝাঁড়– ফুলের। পাহাড়ী ঝাঁড়–ফুল বিক্রি করে অনেকের ভাগ্য বদল হয়েছে। উপজেলার বিভিন্ন বাজারে বসে সপ্তাহের বিভিন্ন দিন ঝাঁড়– ফুলের অস্থায়ী হাট। বিকেলে পাহাড় থেকে ফিরে ঝাঁড়– ফুল নিয়ে হাটে আসেন কাঠুরিয়ারা। বেচা কেনা চলে রাত পর্যন্ত। অনেক কাঠুরিয়া শীতের মৌসুমে কাঠ না কেটে ঝাঁড়– ফুলের ব্যবসা করেন।

জানা গেছে, উপজেলার বারইয়ারহাট, মিঠাছড়া, বড়তাকিয়া, বড়দারোগারহাট, করেরহাট সহ বিভিন্ন বাজারে ঝাঁড়– ফুলের জামজমাট বাজার বসে সপ্তাহের বিভিন্ন দিন। এসকল স্থান থেকে পাহাড় বেশি দূরে নয়। সুবিধার জন্য কাটুরিয়ারা কম দূরত্বের বাজারগুলো বেছে নেয়। এ ঝাঁড়–ফুলের যে এত চাহিদা এসে দরিদ্র শ্রেণীর মানুষের আয়ের এক বিকল্প উৎস হয়ে দাঁড়াবে তা কেউ আগে কখনো ভাবেনি। জানা যায়, ঘরের ঝাড়– হিসেবে ব্যবহার ছাড়াও এ ঝাড়–ফুল বিল্ডিংয়ের রং মিস্ত্রিদের রঙের কাজে ব্যবহৃত হওয়ায় দেশে এ ঝাড়–ফুলের চাহিদা দিনে দিনে বেড়ে গেছে। উপজেলার বিভিন্ন বাজারে পাহাড় থেকে ঝাড়–ফুল এনে বিক্রি করে স্থানীয় শ্রমিকরা। এরপর পাইকারী ব্যবসায়ীরা ক্রয় করে ঢাকা, চট্টগ্রাম, কুমিল্লাসহ বিভিন্ন জেলাতে নিয়ে যান খুচরা বিক্রি করার জন্য। ১০০ টি ঝাঁড়– ফুল বিক্রি হচ্ছে ৬০-৮০ টাকায়। তবে গত বছরের তুলনায় এবছর দাম কিছুটা বেড়েছে বলে জানান ব্যবসায়ীরা।

মিঠাছরা বাজারের আলাউদ্দিন নামে স্থানীয় এক ঝাঁড়– ফুল ব্যবসায়ী বলেন, সপ্তাহের প্রতি রবিবার ও বৃহস্পতিবার মিঠাছরা বাজারে আনুমানিক অর্ধলাখ টাকারও বেশী ঝাঁড়–ফুল বিক্রি হয়। তিনি আরো বলেন, ঝাঁড়–ফুলের এখনো পূর্ণ মৌসুম হয়নি; পূর্ণ মৌসুমে প্রতি বাজারে আরো বেশী টাকার ঝাঁড়–ফুল বাজারে বিক্রি হয়।

ঝাঁড়–ফুল মূলত একটি সাময়িক অর্থকরী প্রাকৃতিক বনজ সম্পদ। পাওয়া যায় উচু পাহাড়ে। উপজেলার মিরসরাই সদর ইউনিয়নের মহামায়া এলাকার ঝাঁড়– ফুল বিক্রেতা মোহন ত্রিপুরা বলেন, পাহাড় থেকে কাঠ কেটে তার বাড়ি এনে বিক্রয়ের উপযোগী করতে অনেক সময় ও শ্রমের প্রয়োজন হয়। কিন্তু ঝাঁড়– ফুল সংগ্রহ করতে তেমন পরিশ্রম হয় না। তাছাড়া দামও পাওয়া যায় ভালো। তিনি আরও বলেন পাহাড়ে সামাজিক বনায়নের কারণে ঝাঁড়– ফুলের সংখ্যা অনেক কমে এসেছে। এখন আগের মত পাওয়া যায় না। একদিনে ৩-৪শর ফুল কাটা যায়।

মতামত