টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

আনিস ও বাবলুকে বহিষ্কারের ইঙ্গিত, দুপুরে এরশাদের জরুরি সংবাদ সম্মেলন

চট্টগ্রাম, ১৮  জানুয়ারি (সিটিজি টাইমস) : ঢাকায় রওশন এরশাদের বাসায় জাপার সংসদ সদস্য ও প্রেসিডিয়াম সদস্যদের বৈঠকে রওশন এরশাদকে জাতীয় পার্টির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান ঘোষণা দেয়ার ঘটনাকে অবৈধ বলে দাবী করেছেন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদবলেছেন, “আমি যতদিন জীবিত আছি ততদিন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান আছি। এ ঘটনার মধ্য দিয়ে প্রমাণিত হলো কারা জাতীয় পার্টি করে, কারা করে না।” ওই বৈঠকের সাথে রওশন এরশাদ জড়িত নন বলেও জানান তিনি।

এদিকে, মঙ্গলবার দুপুর ২টায় এরশাদের বনানী অফিসে হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ জরুরি সংবাদ সম্মেলন ডেকেছেন। দলের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও এরশাদের প্রেস অ্যান্ড পলিটিক্যাল সেক্রেটারি সুনীল শুভ রায় সকালে গণমাধ্যমকে এ খবর নিশ্চিত করেছেন।

দলের আরেক কো-চেয়ারম্যান জিএম কাদের বলেছেন, “জাতীয় পার্টি সত্যিকার বিরোধীদল হিসেবে অবস্থান পরিষ্কার করার জন্য যখন কাজ করছে তখন এ ধরনের কাজের মাধ্যমে প্রমাণিত হলো তারা দলটিকে ধ্বংস করতে চায়।”

সোমবার রতে গুলশানে রওশন এরশাদের বাসায় বৈঠক শেষে জাতীয় পার্টির মহাসচিব জিয়াউদ্দিন বাবলু রওশন এরশাদকে জাতীয় পার্টির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান ঘোষণা করেন। এই ঘোষণা যখন দেয়া হচ্ছিল ঠিক তখনই চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ রংপুর মহানগরীর নর্থ ভিউ হোটেলে ডিনার করে সবেমাত্র হোটেলের লবিতে বসেছিলেন।

বিষয়টি জানতে পেরেই তাৎক্ষণিক এক প্রেস ব্রিফিংয়ে এরশাদ বললেন, “আমি জাতীয় পার্টির নির্বাচিত চেয়ারম্যান। আজও আছি। মৃত্যু অবধি থাকব। আমার বিরুদ্ধে কেউ কোনো কথা বলার অধিকার রাখে না। আমি যা করেছি গঠনতন্ত্র অনুযায়ী করেছি। আগামী এপ্রিল মাসে কাউন্সিলের মাধ্যমে কো-চেয়ারম্যানের পদটি গঠনতন্ত্রে সন্নিবেশিত করব।”

তিনি বলেন, “সরকারের মন্ত্রিসভা থেকে বেরিয়ে এসে আমি যখন পার্টিকে সতিক্যার বিরোধী দলে পরিণত করার চেষ্টা করছি তখন এ ধরনের উদ্যোগ দুঃখজনক।” তবে এতে দেশবাসীকে বিভ্রান্ত না হওয়ার আহবান জানান এরশাদ।

এ বিষয়ে রওশন এরশাদ কোনো বক্তব্য দেননি। তিনি জড়িতও নন দাবি করে এরশাদ বলেন, এ ঘটনার মাধ্যমে প্রমাণিত হলো কারা জাতীয় পার্টি করে কারা করে না। তিনি জিএম কাদেরকে কো-চেয়ারম্যান ও এরশাদ পরবর্তী চেয়ারম্যান ঘোষণার বিষয়টিকেও সঠিক বলে দাবি করেন তিনি।

ব্যারিস্টার আনিসুল ইসলাম মাহমুদ এবং জিয়াউদ্দিন বাবলুর নাম উল্লেখ করে এরশাদ বলেন, “আনিসকে যখন ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান করেছিলাম, হাওলাদারকে সরিয়ে যখন বাবলুকে মহাসচিব করেছিলাম, তখন তো কোনো কথা উঠে নি। এই দুজনকে তাদের দল থেকেও বহিষ্কারের ইঙ্গিত দিয়ে এরশাদ বলেন, “যথাসময়ে সিদ্ধান্ত হবে। তোমরা ওরিড হয়ও না।”

এরশাদ বলেন, “ওদের গাত্রদাহ হয়েছে। জিএম কাদেরকে আমি আমার যোগ্য উত্তরসুরি নির্বাচন করেছি। সে কয়েকবার মন্ত্রী ছিল। সে অনেস্ট। শিক্ষিত লোক। তাই আমার সিদ্ধান্ত সঠিক।”

কো-চেয়ারম্যান জিএম কাদের বলেন, “এ ধরনের সিদ্ধান্ত অবৈধ। গুটিকতেক ব্যক্তি ও রাজনৈতিক স্বার্থান্বেষী মানুষ জাতীয় পার্টিকে ধ্বংস করতে এটি করছে। এ ঘটনার মধ্য দিয়ে প্রমাণিত হলো তারা চায় জাতীয় পার্টি না ঘরটা না ঘাটকা থাকুক।”

রোববার সন্ধায় রংপুর মহানগরীর জাতীয় পার্টি কার্যালয়ে জিএম কাদেরকে এরশাদ পরবর্তী চেয়ারম্যান এবং রোববার থেকে কো চেয়ারম্যান করার ঘোষণা দেন এরশাদ। এ ঘটনার ২৪ ঘণ্টা পর বৈঠক করে সোমবার রাতে রওশন এরশাদকে ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান ঘোষণা দেন জিয়াউদ্দিন বাবলুরা।

মতামত