টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

ফটিকছড়িতে চা-বাগানের দুই ম্যানেজারকে পিটিয়েছে ইউপিডিএফ

মীর মাহফুজ আনাম
ফটিকছড়ি প্রতিনিধি
fatickchari(mardor)pic-17-0চট্টগ্রাম, ১৭ জানুয়ারি (সিটিজি টাইমস) : ফটিকছড়ি উপজেলার দুই চা-বাগানের ম্যানেজারকে ডেকে নিয়ে পিটিয়েছে পাহাড়ি শসস্ত্র ইউপিডিএফের ক্যাডাররা। আজ (রোববার) সকালে ফটিকছড়ি – পার্বত্য জেলা খাগাড়াছড়ির লক্ষীছড়ি সিমান্তের দুইধ্যাখোলা এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। বাগানের সাথে স¤প্রতি ভূমি নিয়ে বিরোধের জের ধরে এ ঘটনা ঘটেছে বলে পুলিশ জানিয়েছেন।
ঘটনায় আহতরা হলেন কর্ণফুলী চা-বাগানের ম্যানেজার শাহনেওয়াজ মো. আহসান ভূঁইয়া (৫০) ও টেকবাড়িয়া চা-বাগানের ব্যবস্থাপক মো. ইলিয়াছ রহমান (৫২)। তারা বর্তমানে চমেক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।
স¤প্রতি বাগান কর্তৃপক্ষ ও পাহাড়ীদেরে সাথে সৃষ্ট বিরোধ নিরসনের জন্য গতকাল শনিবার রাতে ইউপিডিএফের অমর চাকমা নামের এক সদস্য মুঠোফোনে দুই ম্যানেজারকে ডেকে পাঠান। তাঁরা দুজন গতকাল(রোববার) সকাল দশটায় স্থানীয় লেলাং ইউপি সদস্য মুহাম্মদ আবুল হোসেনকে সাথে নিয়ে সেখানে যান।
ইউপি সদস্য মুহাম্মদ আবুল হোসেন জানান, সাড়ে দশটায় সেখানে পৌঁছালে আগে থেকেই অবস্থান করা ১৫-২০ যুবক দুই ম্যানেজারকে কিল, ঘুষি, লাথি এবং লাঠি দিয়ে বেদম প্রহার করেন। এসময় তাঁরা ব্যবস্থাপকদের মুঠোফোন কেড়ে নেন এবং মোটরসাইকেলটি ভাংচুর করেন। তাদের প্রত্যেকেই আধিবাসী যুবক এবং বয়স ২৫ থেকে ৩৫।
স্থানীয় সূত্র জানায়, বাগানের ২০০ একর ভূমি দীর্ঘদিন থেকে ইউপিডিএফের কর্মী সমর্থকেরা জবর দখল করে রয়েছেন। এ নিয়ে গত ১৩ জানুয়ারী বাগান কর্তৃপক্ষের লোকজন এবং ইউপিডিএফের সদস্যদের মাঝে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। একইদিন বাগানের অভ্যন্তরের ৯টি টং ঘরও দুর্বৃত্তরা আগুনে পুড়ে দেয়। ঘটনার রেশ ধরে গত বৃহস্পতিবার লক্ষীছড়ি এবং ফটিকছড়ি উপজেলা প্রশাসন ও জনপ্রতিনিধিদের মধ্যে দ্বিপক্ষীয় এক বৈঠক হয়। বৈঠকে আগামী ২৮ জানুয়ারী দুই উপজেলার সীমানা নির্ধারণসহ যাবতীয় বিষয় নিষ্পত্তির কথা ছিল।
ফটিকছড়ি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি-তদন্ত) বিদ্যুৎ কুমার বড়ুয়া বলেন, ‘এলাকার লোকজনের সাথে কথা বলে প্রাথমিক তদন্তে এ ঘটনায় ইউপিডিএফ সদস্যরা জড়িত থাকার প্রমান মিলেছে। এ ব্যাপারে মামলার প্রক্রিয়া চলছে।

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত