টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

মিরসরাইয়ে এখনো আসেনি প্রাথমিকের ১৬ বিষয়ের বই

এম মাঈন উদ্দিন
মিরসরাই  প্রতিনিধি 

চট্টগ্রাম, ১৪ জানুয়ারি (সিটিজি টাইমস) :  মিরসরাইয়ে এখনো আসেনি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ১৬টি বিষয়ের কোন বই। প্রত্যেক বছরের শুরুতে শিক্ষার্থীদের হাতে বিনামূল্যে সব বই বিতরণ করা হলেও এই বছর সব বই না আসাতে এখনো পুরোদমে শুরু হয়নি বিদ্যালয়ের ক্লাশ। উপজেলাতে নতুন বই সরবারহের হার ৩৮.০৪৮%। এদিকে উপজেলার অধিকাংশ বিদ্যালয়ে বই বিতরণের সময় টাকা নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে।

জানা গেছে, উপজেলার ১’শ ৯১টি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ও অর্ধশত কিন্ডার গার্ডেনের জন্য বরাদ্ধ করা হয় ২ লাখ ৫৯ হাজার ৮’শ ৪২টি। গত মাসের ১০ তারিখ পর্যন্ত উপজেলাতে বই আসে ৯৮ হাজার ৮’শ ৬৫টি উপজেলাতে বই সরবারহের হার ৩৮.০৪৮%। বই বিতরণের সময় বিদ্যালয়ের নিজস্ব খরচে প্রত্যেক শিক্ষার্থীর ছবি তোলার জন্য কর্তৃপক্ষকে নির্দেশ দেওয়া হলেও শিক্ষকরা প্রতি ছাত্র থেকে নিয়েছেন ৩০ থেকে ৫০ টাকা পর্যন্ত। বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের দাবী শিক্ষা অধিদপ্তরের পক্ষ থেকে ছবি তোলার জন্য বলা হলেও আমাদের কোন টাকা দেওয়া হয়নি। তাই শিক্ষার্থীদের থেকে টাকা নেওয়া হয়েছে। রোববার (১০ জানুয়ারী) পর্যন্ত তৃতীয় শ্রেণীর ইসলাম ধর্ম ও নৈতিক শিক্ষা, বৌদ্ধ ধর্ম ও নৈতিক শিক্ষা, খ্রিষ্টান ধর্ম ও নৈতিক শিক্ষা, চতুর্থ শ্রেণীর প্রাথমিক বিজ্ঞান, বাংলাদেশ ও বিশ্ব পরিচয়, ইসলাম ধর্ম ও নৈতিক শিক্ষা, হিন্দু ধর্ম ও নৈতিক শিক্ষা, বৌদ্ধ ধর্ম ও নৈতিক শিক্ষা, খ্রিষ্টান ধর্ম ও নৈতিক শিক্ষা, পঞ্চম শ্রেণীর আমার বাংলা বই, প্রাথমিক বিজ্ঞান, বাংলাদেশ ও বিশ্ব পরিচয়, ইসলাম ধর্ম ও নৈতিক শিক্ষা, হিন্দু ধর্ম ও নৈতিক শিক্ষা, বৌদ্ধ ধর্ম ও নৈতিক শিক্ষা, খ্রিষ্টান ধর্ম ও নৈতিক শিক্ষা বিষয়ের কোন বই আসেনি। সব বই না আসাতে এখনো পুরোদমে শুরু হয়নি প্রাথমিকের ক্লাশ। শিক্ষার্থীরা সব বই না পাওয়াতে প্রতিদিন দুই ঘন্টা বা তিন ঘন্টা করে বিদ্যালয় থেকে চলে যাচ্ছে ।

পূর্ব দুর্গাপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পঞ্চম শ্রেণীর শিক্ষার্থী মো. রুবেল হোসেন বলেন, অন্য ক্লাশের সবাই বই পেলেও আমরা এখনো সব বই পাইনি। তাই বিদ্যালয়ে যাওয়ার পর প্রতিদিন দুই ঘন্টা করে চলে আসি।

পূর্ব দুর্গাপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের তৃতীয় শ্রেণীর শিক্ষার্থী শয়ন ভৌমিক বলেন, বই দেওয়ার সময় স্যার বলেছেন ৩০ টাকা করে নেওয়ার জন্য। টাকা দিয়ে আমাদের ছবি তোলা হবে।

উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার গোলাম রহমান চৌধুরী বলেন, উপজেলাতে সরকারী ভাবে যে বই এসেছে সেগুলো সুষ্ঠভাবে শিক্ষার্থীদের মাঝে বিতরণ করা হয়েছে। এই বছর থেকে নতুন নিয়ম চালু হয়েছে বই বিতরণের সময় ছবি তোলার। শিক্ষার্থীদের ছবি তোলার সব খরচ বিদ্যালয় বহন করবে। তারপরও যেসব বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী বেশী তারা হয়তো কিছু টাকা নিচ্ছে। সব বই না পাওয়ার বিষয়ে আমরা জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসারকে জানিয়েছি। শীঘ্রই অবশিষ্ট বিষয়ের বই আসবে বলেও জানান তিনি।

মতামত