টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

সীতাকুণ্ডকে ডিজিটাল পৌরসভা করতে কাজ করব: সিটিজি টাইমসকে নব নির্বাচিত মেয়র

মো. ইমরান হোসেন
সীতাকুণ্ড (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি

Meyor-Sitakund-puroshobaচট্টগ্রাম, ১৩ জানুয়ারি (সিটিজি টাইমস) :  ‘ আমি একজন ফ্রিডম ফাইটার, স্কুল জীবনে পড়া-লেখা অবস্থায় মুক্তিযুদ্ধে অংশ গ্রহন করেছি। তখন সবে মাত্র এসএসসিতে পড়ছি। পাকিস্তানীরা সীতাকুণ্ড বাজারে আক্রমন করায় হত্যাযজ্ঞ দেখে যুদ্ধে যাওয়ার আগ্রহ সৃষ্টি হয়। মার্চের প্রথমে টেনিংয়ে ভারতের হরিনা ক্যাম্পে যেতে হয়েছে। সেখান থেকে পালাটন ক্যাম্পে গিয়ে ট্রেনিং শেষে কমান্ডার বিএসসি তাহেরের নেতৃত্বে বারৈয়ার হাট ব্রীজ হয়ে বাংলাদেশে প্রবেশ করি। মীরশ্বরাইয়ের মিয়াটান ঘাটে অবস্থান নেয়ার খবর পেয়ে রাতে পাকিস্তানি বাহিনী আমাদের উপর আক্রমন চালায়। পরে আতœরক্ষায় আমার নেতৃত্বে ১০ জন ও বিএসসি তাহেরের নেতৃত্বে ১০ জন মুক্তিযোদ্ধাকে নিয়ে পাকিস্তানি বাহিনীর উপর হামলা করতে করতে নিরাপদ আশ্রয়ে চলে যায়। আমার সাথে যুদ্ধে অংশ নিয়েছিলেন উপজেলা আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মো.ইসহাক, কার্ডিওলজি বিভাগের হেড ডা. হানিফ,ডা.আলতাফসহ অনেকে। যুদ্ধের বহু ঘটনার মধ্যে মিরশ্বরাইয়ের যুদ্ধের ঘটনা খুব মনে পড়ে। কারণ এ যুদ্ধে বহু সহ-যোদ্ধাকে হারাতে হয়েছে, নিজেরাও ছিলাম জীবন-মরনের সন্ধিক্ষনে।

দীর্ঘ ৯ মাস যুদ্ধের পর দেশ স্বাধীন হলে পূনরায় পড়া-লেখা শুরু করি। ৭৪ সালে এইচ এসসি পড়া অবস্থায় প্রগতি ইণ্ডাষ্ট্রিজে চাকুরী নিই। পড়া অবস্থায় ৭৬ সালে বি,এ পরিক্ষায় অংশ নিয়েছিলাম। ৭৩ থেকে ৮৫ সাল পর্যন্ত প্রগতি ইণ্ডাষ্ট্রিজে চকুরী করার সময় শ্রমিকলীগের নেতৃত্ব দিতে গিয়ে শ্রমিক দলের রোষানলে পড়ে চাকুরী হারাতে হয়েছে। পরে ঠিকাদারী কাজ শুরু করে প্রথম শ্রেনীর ঠিকাদার হিসেবে কাজ করছি।

ব্যবসা-বানিজ্যের পাশাপাশি রাজনৈতিক কর্মকান্ডে নিয়োজিত থাকায় পৌর আওয়ামীলীগের সভাপতি দায়ীত্ব পালন করছি দীর্ঘ ২৫ বছর। এরই মধ্যৈ জনগনের ভালবাসায় ইউনিয়ন পরিষদের মেম্বারের দায়ীত্ব পালনসহ দুই বার পৌরসভার কাউন্সিলার ও বাজার কমিটির সভাপতি-সম্পদকের দায়ীত্ব পালন করে জনসেবায় করেছি। রাজনৈতিক জীবনে দলীয় কাজে নিযুক্ত থাকায় দলীয় প্রতিকে নির্বাচন করে মেয়র পদে নির্বাচিত হয়েছি। নানা ষড়যন্ত্র সত্তে¡ জনগেনের অশেষ কৃপায় নির্বাচনে বিপুল ভোট পেয়ে মেয়র পদে নির্বাচিত হয়েছি।’

সিটিজি টাইমসের প্রতিনিধির সাথে একান্ত সাক্ষাতকারে এসব কথা বলেন নব নির্বাচিত সীতাকুণ্ড পৌর মেয়র বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব বদিউল আলম।

তিনি আরো বলেন,‘ জীবনের সব পাওয়া হয়েছে। দুই ছেলের মধ্যে বড় ছেলে লন্ডনে ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে পড়া-লেখা করছে, ছোট ছেলে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান দেখা-শুনা করছে। এখন অবসর সময়ে জনসেবার ইচ্ছায় পৌরমেয়র পদে নির্বাচন করে জনগন ভালবাসায় বিজয়ী হয়েছি। পৌরবাসী আমাকে নির্বাচিত করেছে পৌরসভার উন্নয়নের জন্য। ক্ষমতায় অধীষ্ঠিত হয়ে পৌরবাসীকে নগরায়নের সব রকমের সুবিধা প্রদানে কর্ম পরিকল্পনা হাতে নেয়া হবে। বর্তমান সরকার আওয়ামীলীগের সরকার আর এই পৌরসভাও আওয়ামীলীগেরই অবদান। তাই সীতাকুণ্ড পৌরসভাকে ডিজিটাল বাংলাদেশের একটি রুপ রেখা হিসেবে দাঁড় করানোই পৌর মেয়র হিসেবে এটাই আমার প্রধান লক্ষ।

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত