টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

সামরিক পোশাক ও সরঞ্জামসহ খাগড়াছড়িতে আটক ৩

চট্টগ্রাম, ১১ জানুয়ারি (সিটিজি টাইমস) :  মায়ানমার আর্মির ব্যবহৃত কমব্যাক্ট জ্যাকেটসহ বিদেশী সামরিক বাহিনীর আগ্নেয়াস্ত্র বহনকারি ৪৫ সিলিং ও একটি মোটর সাইকেলসহ আঞ্চলিক সংগঠনের ৩ সন্ত্রাসীকে আটক করেছে বাংলাদেশ সেনা বাহিনীরা সদস্যরা। আটককৃত যুবকরা হলেন, বিবৃতি চাকমা(৩৪), পিতা উখিল প্রিয় চাকমা, ধনমনি চাকমা(৩৬) পিতা মহারুম চাকমা, কিরণ ত্রিপুরা(২৩), পিতা কৃষ্ণমোহন ত্রিপুরা। সোমবার বিকেলে জেলা সদরের উপকন্ঠ বীজিতলা চেকপোষ্ট এর সামনে থেকে তাদের আটক করা হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছে নিরাপত্তা বাহিনীর দায়িত্বশীল সূত্র। আটককৃতদেরকে বিকেলেই খাগড়াছড়ি সদর থানায় সোর্পদ করা হয়েছে এবং তাদের বিরুদ্ধে মামলা দায়েরের প্রক্রিয়া চলছে বলে সিএইচটি টাইমস টোয়েন্টিফোর ডটকমকে নিশ্চিত করেছেন খাগড়াছড়ি সদর থানা অফিসার ইনচার্জ মোঃ শামসুদ্দিন ভূঁইয়া। নিরাপত্তা বাহিনী সূত্রে জানাগেছে, মহালছড়ি হয়ে খাগড়াছড়িতে ঢুকবে এমন একটি তথ্য আমরা আগেই জানতে পারি সোর্সের মাধ্যমে। পরে আমরা নিরাপত্তা চেকপোষ্টে তল্লাসী চালাতে থাকি দুপুর থেকে। বিকেল সাড়ে তিনটার সময় বীজিতলা চেকপোষ্ট দিয়ে একটি মোটর সাইকেলযোগে তিনজন পাহাড়ি যুবক পার হওয়ার সময় তাদের থামিয়ে তল্লাসির চালানো হয়। এসময় তাদের কাছ থেকে সামরিক বাহিনীর অস্ত্র বহনের সিলিং ৪৫টি, মায়ানমারের আরাকান আর্মির ব্যবহৃত একটি কমব্যাক্ট জ্যাকেট উদ্ধার করা হয়। পরে মোটর সাইকেলসহ আটককৃত তিন পাহাড়ি যুবককে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদ শেষে সদর থানা পুলিশের নিকট হস্তান্তর করা হয়। সূত্র জানায়, আটককৃতরা তিন পাহাড়ি যুবক জিরো মাইলে দিকে যাচ্ছিলো। নিরাপত্তা বাহিনীর সূত্রটি সিএইচটি টাইমস টোয়েন্টিফোর ডটকমকে জানিয়েছে, বাংলাদেশ বা ভারতে এ ধরনের সিলিং ব্যবহার করা হয় না। এগুলো মূলত আরাকান আর্মি বা মিয়ানমারের সামরিক বাহিনীর বিভিন্ন অস্ত্রে ব্যবহার করা হয়ে থাকে। আটককৃত যুবকরা হলেন, বিবৃতি চাকমা(৩৪), পিতা উখিল প্রিয় চাকমা, ধনমনি চাকমা(৩৬) পিতা মহারুম চাকমা, কিরণ ত্রিপুরা(২৩), পিতা কৃষ্ণমোহন ত্রিপুরা। আটককৃতদের মধ্যে বিবৃতি চাকমার বাড়ি সদরের চম্পাঘাট এলাকায় এবং বাকি দুইজনের বাড়ি পানছড়ি। আটক সন্ত্রাসীরা স্থানীয় উপজাতীয় সংগঠনের নিযুক্ত চাঁদা আদায়কারী। এদের মধ্যে বিবৃতি চাকমা পেশায় হোন্ডা চালক হলেও মহালছড়িতে চাঁদা আদায়ের দায়িত্ব, কিরণ ত্রিপুরার চাঁদা আদায় এলাকা পানছড়ি হলেও সম্প্রতি তাকে রাঙামাটির ১৮ মাইল এলাকায় পোস্টিং দেয়া হযেছে।

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত