টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূতকে পাকিস্তান থেকে দেশে ফেরার নির্দেশ

woচট্টগ্রাম, ৩০ ডিসেম্বর (সিটিজি টাইমস): বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত সোহরাব হোসেনকে পাকিস্তান থেকে দ্রুত দেশে ফেরত আসার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। মঙ্গলবার তাকে আনুষ্ঠানিকভাবে চিঠি দিয়ে এ নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের একজন উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা বলেন, সোহরাব হোসেন চুক্তিভিত্তিক নিয়োগে আছেন। তার মেয়াদ আগামী এপ্রিল মাসে শেষ হওয়র কথা। কিন্তু তার মেয়াদ শেষ হওয়ার আগেই তাকে ডেকে পাঠানো হয়েছে। তিনি আরও জানান, ওই রাষ্ট্রদূত পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কাছে জানতে চেয়েছিলেন, তিনি সম্পূর্ণ মেয়াদ শেষ করে আসতে পারবেন কি না। তাকে জানানো হয়েছে দ্রুত দেশে ফেরত আসার জন্য।

জানা গেছে, সম্প্রতি তার কিছু কর্মকাণ্ডে সরকার বিব্রত বোধ করে।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের আরেকজন কর্মকর্তা জানান, মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে সালাহউদ্দিন কাদের চৌধুরী ও আলী আহসান মোহাম্মাদ মুজাহিদের ফাসি কার্যকর হওয়ার পরপরই তিনি ইসলামাবাদ ত্যাগ করে ঢাকা চলে আসেন।

ওই কর্মকর্তা জানান, নভেম্বরের শেষ দিকে দুদেশের মধ্যে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ ও যুদ্ধাপরাধ বিষয় নিয়ে অস্বস্তিজনক পরিবেশ সৃষ্টি হয়। কিন্তু ওই সময়ে সোহরাব হোসেন প্রতিকূল পরিবেশের মুখোমুখি না হয়ে ঢাকায় অবস্থান করেন। গোটা ঘটনা সামলানোর দায়িত্ব পড়ে একজন কনিষ্ট বাংলাদেশি কূটনীতিকের কাঁধে।

ওই কর্মকর্তা আরও জানান, বাংলাদেশ পাকিস্তানের রাষ্ট্রদূতকে তলব করার পরপরই ইসলামাবাদ বাংলাদেশের ভারপ্রাপ্ত রাষ্ট্রদূতকে তলব করে। একজন কনিষ্ঠ কূটনীতিককে গোটা প্রতিকূল পরিস্থিতি সামাল দিতে হয়। তিনি বলেন ডিসেম্বরের প্রথম সপ্তাহে সোহরাব হোসেনকে বার বার পাকিস্তানে ফেরত যাওয়ার কথা বললেও এ মুক্তিযোদ্ধা কূটনীতিক ইসলামাবাদে যেতে গড়িমসি করেন। অবশেষে তিনি ডিসেম্বরের ৯ তারিখে ইসলামাবাদ ফেরত যান।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ওই কর্মকর্তা আরও জানান, আমরা আরেকজন পেশাদার ‍কূটনীতিককে সেখানে পাঠানোর জন্য পাকিস্তানের অনুমতি চেয়েছি। অনুমতি পাওয়ার পর তাকে সেখানে পাঠানো হবে।

উল্লেখ্য, সোহরাব হোসেন ২০১০ সালে দু’বছরের জন্য পাকিস্তানে রাষ্ট্রদূত হিসেবে চুক্তিভিত্তিক নিয়োগ পান। পরবর্তী সময়ে দুই দফায় চার বছর চুক্তির মেয়াদ বাড়ানো হয়।

সুত্রঃ বাংলা ট্রিবিউন

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত