টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

মিরসরাই ও বারইয়ারহাট পৌরসভার সব ভোট কেন্দ্র ঝুঁকিপূর্ণ

সুষ্ঠ নির্বাচন নিয়ে শংকিত বিএনপি সমর্থীত প্রার্থীরা, দুই প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন

এম মাঈন উদ্দিন
মিরসরাই  প্রতিনিধি 

চট্টগ্রাম, ২৯ ডিসেম্বর (সিটিজি টাইমস):মিরসরাই ও বারইয়ারহাট পৌরসভা সবগুলো কেন্দ্রকে ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে চি‎িহ্নত করেছে উপজেলা নির্বাচন কমিশন। এদিকে নির্বাচনকে ঘিরে সব ধরনের প্রস্তুতি স¤পন্ন করেছে প্রশাসন।মিরসরাই পৌরসভায় এক প্লাটুন বিজিবির পাশাপাশি তিন জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও বারইয়ারহাট পৌরসভায় এক প্লাটুন বিজিবির পাশাপাশি চার জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মাঠে কাজ করছেন।

উপজেলা সহকারী রিটানিং কর্মকর্তা মোহাম্মদ তোফায়েল হোসেন জানান, মিরসরাই পৌরসভার মধ্য ১নং ওয়ার্ডে তালবাড়িয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্র, ২নং ওয়ার্ডে ইউনিয়ন স্বাস্থ্য পরিবার কল্যাণ কেন্দ্র, ৩ নং ওয়ার্ডে নোয়াপাড়া ফোরকানিয়া মাদ্রাসা কেন্দ্র, ৪নং ওয়ার্ডে উপকূলীয় বনবিভাগ কেন্দ্র, ৫ নং ওয়ার্ডে মিরসরাই সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্র, ৬নং ওয়ার্ডে উত্তর গোভনিয়া গিয়াস উদ্দিন ফোরকানিয়া মাদ্রাসা, ৭নং ওয়ার্ডে কবির মেমোরিয়াল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্র, ৮নং ওয়ার্ডে নাজির গ্রাম শফি উদ্দিন পৌ: প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্র, ৯নং ওয়ার্ডে সিদ্দিকুর রহমান মিয়া জামে মসজিদ সংলগ্ন ঈদগাহ মাঠ কেন্দ্রগুলোকে প্রাথমিক ভাবে ঝুঁকিপূর্ন হিসেবে চি‎িহ্নত করা হয়েছে। মিরসরাই পৌরসভায় ৯টি ভোট কেন্দ্রে মোট ভোট কক্ষের সংখ্যা ২৬টি, অস্থায়ী কেন্দ্র ২টি। পৌরসভার মোট ভোটার ১১ হাজার ৭৬ জন। বারইয়ারহাট পৌরসভার ১নং ওয়ার্ডের চিংকি আস্তানা সি.এন্ড.বি বাংলো কেন্দ্র, ২নং ওয়ার্ডে মাখন কাজী বাড়ীর সম্মুখে অস্থায়ী কেন্দ্র, ৩নং ওয়ার্ডে বারইয়ারহাট বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড অফিস, ৪নং ওয়ার্ডে বারইয়াহাট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্র, ৫ নং ওয়ার্ডে হিংঙ্গুলী বোর্ড অফিস, ৬নং ওয়ার্ডে সারেংবাড়ী ফোরকানিয়া মাদ্রাসা, ৭নং ওয়ার্ডে জামালপুর নিজামিয়া ফোরকানিয়া মাদ্রাসা, ৮নং ওয়ার্ডে কেরানী বাড়ির সামনে অস্থায়ী কেন্দ্র, ৯নং ওয়ার্ডে শান্তির হাট মাদ্রাসা কেন্দ্র প্রাথমিকভাবে ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে চি‎িহ্নত করা হয়েছে। পৌরসভায় ৯টি কেন্দ্রে ভোট কক্ষ সংখ্যা ১৯টি, অস্থায়ী ভোট কেন্দ্র ১টি। মোট ভোটার ৭ হাজার ৫’শ ৭২ জন।

এদিকে মিরসরাই ও বারইয়ারহাট পৌর নির্বাচনকে কেন্দ্র করে মিরসরাই সদর ও বারইয়ারহাট পৌর এলাকায় বহিরাগত লোকজন অবস্থান করছেন। বহিরাগতরা নির্বাচনে বিভিন্ন প্রার্থীদের প্রচার মাইক ভাংচুর, হামলা ও সমর্থকদের হুমকী দিচ্ছে বলে আইনশৃঙ্খলা সভায় অভিযোগ করেন কয়েকজন প্রার্থী। বহিরাগতদের নিয়ে আতঙ্কে রয়েছে উপজেলার দুই পৌরসভার প্রার্থীরা। দুই পৌরসভার বিভিন্ন বাসাবাড়ী ও ফ্ল্যাটে থাকছে বহিরাগতরা। বিএনপি প্রার্থীদের অভিযোগ পাশ্ববর্তী ইউনিয়নের আ’লীগ, যুবলীগ ও ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা ভোটের দিন কেন্দ্র দখল, জালভোট মারা সহ অন্যদলের প্রার্থীদের উপর হামলা করার জন্য পৌরসভায় আশ্রয় নিচ্ছে। এছাড়া বারইয়ারহাট ও মিরসরাই পৌরসভায় অবস্থিত বিএনপি-জাময়াত নেতা-কর্মীদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে পুলিশ তল্লাসী করছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। অনেক প্রার্থীকে ভোটের পূর্বে বাড়ি ছেড়ে চলে যাওয়ার হুমকি দেয়।

পৌর নির্বাচনে উপজেলা প্রশাসনের সাথে প্রার্থীদের আইনশৃঙ্খলা নিয়ে মতবিনিময় সভায় মিরসরাই পৌর নির্বাচনে বিএনপির মেয়র প্রার্থী রফিকুল ইসলাম পারভেজ অভিযোগ করেন, মিররসাই সদরে বহিরাগতদের আনাগোনা বেড়েছে। তার প্রচার মাইক ও গাড়ি ভাংচুর করেছে। কিন্তু হামলাকারীরা কেউ স্থানীয় নয়। তারা দিনে গনসংযোগ করে সন্ধার পর হামলা করছে। তিনি আরো জানান, প্রচারনার শুরু থেকে প্রতিদিন একটি করে মাইক ভাংচুর করছে। প্রচার কর্মীদের ওপর হামলার ঘটনা ঘটছে। মতবিনিময় সভায় বারইয়ারহাট পৌর নির্বাচনে বিএনপির মেয়র প্রার্থী মাঈন উদ্দিন লিটনের বাবা খায়েজ আহম্মদ অভিযোগ করেন, তাদের কর্মী এবং দলীয় উপজেলা ও জেলা নেতাদের নির্বাচনী প্রচার চালাতে দিচ্ছে না প্রতিদ্ব›িদ্ব প্রার্থীর সমর্থকরা। নির্বাচনী প্রচার করতে নামলে প্রার্থীর প্রধান নির্বাচন সমন্বয়কারী উপজেলা চেয়ারম্যান নুরুল আমিন, সাবেক মেয়র হাজী জালাল, কেন্দ্রীয় বিএনপির সদস্য এমডিএম প্রফেসর কামাল উদ্দিনসহ প্রার্থীর স্ত্রী ও চাচার ওপর হামলা করে সন্ত্রাসীরা। বারইয়ারহাট ৭ নন্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী নুর মোহাম্মদ মানিক অভিযোগ করেন, গত বৃহস্পতিবার মহাজনবাড়ি এলাকায় বহিরাগত সন্ত্রাসী মো.হাসান তার প্রচার গাড়িতে হামলা চালিয়ে মাইক ভাংচুর করে। প্রচারকর্মীদের টাকা ও মোবাইলফোন ছিনতাই করে নিয়ে যায়। সোমবার সন্ধ্যায় বারইয়ারহাট পৌরসভার কাউন্সিলর প্রার্থী নুরুল হুদা হামিদীর বাড়িতে ককটেল হামলা করেছে সন্ত্রাসীরা। এসময় তার পোষ্টার, ব্যনার লিফলেট ও নির্বাচনের সব প্রয়োজনীয় কাগজপত্র পেট্রোল ঢেলে পুড়ে ফেলে। অভিযোগকারী প্রার্থীরা জানান, প্রতিটি ঘটনায় উপজেলা রির্টানিং কর্মকর্তা বরাবরে লিখিত অভিযোগ দিয়েও কোন প্রতিকার পাননি প্রার্থীরা। বারইয়ারহাট পৌর বিএনপি আহবায়ক দিদারুল আলম মিয়াজী অভিযোগ করেন, বারইয়ারহাটে বহিরাগত সন্ত্রাসীদের পাশাপাশি পুলিশও প্রতিরাতে বিএনপি নেতাকর্মীদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে অভিযান চালিয়ে আতঙ্ক সৃষ্টি করছে।

মিরসরাই থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ইমতিয়াজ উদ্দিন ভূঁঞা ও জোরারগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা জাহিদুল কবির এ বিষয়ে বলেন, বহিরাগতদের বিষয়ে কোন প্রার্থী লিখিত অভিযোগ দিলে রির্টানিং কর্মকর্তা মাধ্যমে আমরা আইনগত ব্যবস্থা নেব। উপজেলা রির্টানিং কর্মকর্তা জিয়া আহম্মদ সুমন জানান, পৌর এলাকায় বহিরাগতদের অবস্থান নিয়ে কোন প্রার্থী সুনির্দিষ্ট ভাবে এখনও অভিযোগ করেনি। অভিযোগ পেলে অবশ্যই ব্যবস্থা নেয়া হবে।

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত