টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

ক্ষমতাসীনরা বিএনপির প্রার্থীদের উপর হামলা করছে : মীর নাছির

bচট্টগ্রাম, ২২ ডিসেম্বর (সিটিজি টাইমস): বিএনপির চট্টগ্রাম বিভাগীয় নির্বাচন মনিটরিং সেল এর আহবায়ক, বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা মীর মোহাম্মদ নাছির উদ্দিন আসন্ন পৌরসভা নির্বাচনে চট্টগ্রামের ১০ টি সহ সারা দেশের পৌরসভাগুলোতে সেনা মোতায়নের দাবি জানিয়ে বলেন, ‘যেভাবে পৌরসভা নির্বাচনে বিভিন্ন এলাকায় ক্ষমতাসীন দলের লোকজন বিএনপির প্রার্থীদের উপর হামলা করছে, জোর পূর্বক এলাকা ত্যাগে বাধ্য করছে, প্রচারণায় বাধা দিচ্ছে তা নজিরবিহীন। এ কারণে পৌরসভা নির্বাচন সুষ্ঠ, অর্থবহ ও গ্রহনযোগ্য করতে চাইলে সেনা বাহিনী মোতায়নের কোন বিকল্প নেই।’ 

মঙ্গলবার চট্টেশ্বরী রোডস্থ বাসভবনে চট্টগ্রাম বিএনপি ও ২০দলীয় ঐক্যজোট নেতাদের এক সভায় তিনি বলেন, গত কয়েকদিনে বারইয়ারহাট পৌরসভা বিএনপি’র দুই নেতা লাঞ্চিত হয়েছেন। ২০ ডিসেম্বর লাঞ্চিত হন বিএনপি’র মেয়র প্রার্থী মঈনুদ্দীন লিটন এর স্ত্রী, হামলার শিকার হন প্রার্থীর ভাই সহ ৫জন কর্মী। প্রচারণার সময় সন্ত্রাসীরা মাইক ভাংচুর করে। মীরসরাই পৌরসভায় বিএনপি’র মেয়র প্রার্থী জেড এম রফিকুল ইসলাম পারভেজের নির্বাচনী প্রচারণায় ব্যাবহৃত ২টি গাড়ীতে ক্ষমতাসীন দলের লোকজন হামলা চালায়, ১টি সিএনজি অটোরিকসা ভাংচুর করে। এভাবে তারা এক ভয়ানক ও ভীতিকর পরিবেশ সৃষ্টি করেছে। মীরসরাই বারইয়ার হাটে বিএনপি দলীয় প্রার্থীর নির্বাচন পরিচালনা কমিটির প্রধান নুরুল আমিন এর উপর হামলা হয়েছে, গুরুতর অবস্থায় তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এমনকি তার টাকা ও মোবাইল ফোন ও ছিনিয়ে নেয়া হয়। অন্যদিকে আর এক বিএনপি প্রার্থীর সমন্বয়কারী হাজী জালালউদ্দিনকে লাঞ্চিত করে জোরপূর্বক তাকে বাসে তুলে দিয়ে এলাকা ত্যাগে বাধ্য করা হয়।

মীর নাছির বলেন, একইভাবে ক্ষমতাসীন দলের লোকজন সন্দ্বীপে বিএনপি’র মেয়র প্রার্থী আজমত আলী বাহাদুর এর নির্বাচনী এলাকার ৭, ৮ ও ৯ নং ওয়ার্ডের মাদ্রাসা কেন্দ্র, শাহ আলামীয়া মাদ্রাসা কেন্দ্র ও রহমতপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের পার্শ্ববর্তী এলাকায় বিএনপি প্রার্থীদের প্রচারণায় বাধা দিচ্ছে। রাউজান পৌরসভায় ২০ দলীয় জোটের কোন লোককে কাউন্সিলর পদে প্রার্থী ও হতে দেয়া হয়নি। সেখানে সরকার দলীয় ১২জন কাউন্সিলর বিনা প্রতিদ্বন্ধিতায় নির্বাচিত হয়। রাঙ্গুনীয়া পৌরসভায় পুলিশ বিএনপি নেতাকর্মীদের ঘরে ঘরে তল্লাশী করছে। বিভিন্ন অজুহাতে নির্বাচনী প্রচারণায় অংশ গ্রহনে বাধা দিচ্ছে।

তিনি বলেন , সীতাকুন্ড, পটিয়া, চন্দনাইশ ও সাতকানিয়ায় বিএনপি প্রার্থীদের একই রকম পরিস্থিতির সম্মুখীন হতে হচ্ছে। প্রত্রিকায় এসব সংবাদ ফলাও করে প্রচার করা হলেও নির্বাচন কমিশন নির্বিকার।

মীর নাছির বলেন, গ্রহণযোগ্য নির্বাচনের স্বার্থে চট্টগ্রামের ১০ টি পৌরসভাসহ সারাদেশের সেনা মোতায়েন করা অতীব জরুরী।

সভায় দক্ষিন জেলা বিএনপি’র সভাপতি জাফরুল ইসলাম চৌধুরী ধরপাকড, হুমকি ধমকি ও সকল বাধা বিপত্তি সত্ত্বেও দলীয় প্রার্থীর বিজয়ে ইস্পাত কঠিন শপথে কাজ করার জন্য বিএনপি নেতাকর্মীদের প্রতি আহবান জানান।

সভায় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন মহানগর বিএনপির সিনিয়র-সহসভাপতি আবু সুফিয়ান, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান ইদ্রিস মিয়া, দক্ষিনজেলা বিএনপি’র সহ-সভাপতি এডভোকেট ইফতেখার হোসেন চৌধুরী মহসিন, মহানগর বিএনপির সাবেক আইন বিষয়ক সম্পাদক এডভোকেট নাজিম উদ্দিন চৌধুরী, বিএনপি নেতা নুরুল আমিন, ইঞ্জিনিয়ার বেলায়েত হোসেন, রাঙ্গুনীয়া বিএনপি’র আহবায়ক শওকত আলী নুর, পৌর-বিএনপি’র আহবায়ক মাহবুব সাফা, প্রথম যুগ্ম আহবায়ক অধ্যপক মহসিন, মেয়র প্রার্থী হেলাল উদ্দিন শাহ, চেয়ারম্যান ইলিয়াস কাঞ্চন, বিএনপি নেতা এড. কামাল উদ্দিন, বাঁশখালী উপজেলা সভাপতি আলমগীর কবির, মহানগর যুবদলের সাধারণ সম্পাদক মোশারফ হোসেন দিপ্তী প্রমুখ।

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত