টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

ব্যালট পেপার নিয়ে ‘জটিলতার’ শঙ্কায় ইসি

চট্টগ্রাম, ২১ ডিসেম্বর (সিটিজি টাইমস):আসন্ন ২৩৪টি পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র প্রার্থীদের ব্যালট পেপার আগামী ২২ ডিসেম্বরের মধ্যে ছাপানো নিয়ে শঙ্কা দেখা দিয়েছে। মনোনয়নপত্র বাতিল হওয়া প্রার্থীরা আদালতের নির্দেশে প্রার্থিতা ফিরে পাওয়ায় এ শঙ্কা তেরি হয়েছে।

আগামী ২৬ ডিসেম্বর থেকে নির্বাচন কমিশন (ইসি) থেকে ব্যালট পেপার বিতরণের কথা রয়েছে। রোববার নির্বাচন কমিশন সূত্র থেকে এমন তথ্য জানা গেছে।

কমিশন সূত্র জানান, অন্তত পাঁচ মেয়র প্রার্থী মনোনয়নপত্র বাতিলের বিরুদ্ধে রিট পিটিশন করেছেন আদালতে। ইতিমধ্যে নির্বাচন কমিশনে মেয়র, সাধারণ ও সংরক্ষিত পদে অন্তত ১৯৪ জনের প্রার্থিতা ফিরে পাওয়ার আদেশ এসেছে।

গত ৫ ও ৬ ডিসেম্বর মেয়র, সাধারণ ও সংরক্ষিত পদে বাছাইয়ে ঋণখেলাপি, হলফনামায় মিথ্যা তথ্য, সমর্থন তালিকার স্বাক্ষরে ভুলসহ নানা ত্রুটিতে হাজার খানেক প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বাতিল হয়। যাদের অনেকে প্রার্থিতা ফিরে পেতে আদালতের দ্বারস্থ হন।

রোববার পর্যন্ত নির্বাচন কমিশনে অন্তত দুই মেয়র প্রার্থীর প্রার্থিতা ফিরে পাওয়া সংক্রান্ত আদালতের আদেশ পৌঁছেছে। এমন বৈধ প্রার্থীর সংখ্যা আরো বাড়বে আগামী এক সপ্তাহে।

ইসি কর্মকর্তারা বলছেন, ২৩৪টি পৌরসভার সাধারণ ও সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদের সিংহভাগ ব্যালট পেপার ছাপানো হয়ে গেছে। প্রার্থিতা প্রত্যাহার শেষে ১৪ ডিসেম্বর প্রতীক বরাদ্দ হওয়ার পর মেয়র প্রার্থীদের ব্যালট পেপার ছাপানো শুরু হয়। মেয়র পদের নাম ও প্রতীক দিয়ে ব্যালট পেপার ছাপানো চলছে। তবে বৈধ প্রার্থী হিসেবে আদালতের আদেশ পাওয়ার সংখ্যা বাড়তে থাকায় কিছু পৌরসভার ব্যালট পেপার ছাপানো বন্ধ রয়েছে।

কমিশন সূত্র আরও জানান, কাউন্সিলর পদে এ মুহূর্তে প্রার্থী বাড়লেও জটিলতা কিছুটা কম। তবে মেয়র পদে প্রার্থী এলে নতুন ব্যালট পেপার ছাপাতে হবে।

ইসির আইন শাখার যুগ্ম সচিব মো. শাহজাহান বলেন, এখন পর্যন্ত ১৯৪ জনের বিষয়ে আদেশ পেয়েছেন তারা। আদালতের আদেশ মেনে সংশ্লিষ্টদের বৈধ প্রার্থী হিসেবে অন্তর্ভুক্ত করে প্রতীক দিতে হবে তাদের। সেক্ষেত্রে ব্যালট পেপারে মেয়র পদে নাম, প্রতীক এবং কাউন্সিলর পদে প্রতীক বরাদ্দ থাকবে।

তিনি জানান, ব্যালট পেপার ছাপানো হলেও কিছু করার নেই। আদালতের আদেশ মানতে হবে।

তিনি আরও জানান, কাউন্সিলর পদে কমন ব্যালট পেপার থাকায় প্রার্থী বাড়লেও সমস্যা নেই। ইতিমধ্যে সব ব্যালট পেপার ছাপানো হয়েছে। অতিরিক্ত প্রতীক বাড়াতে হলেও সমস্যা হবে না। তবে মেয়র পদে প্রার্থী বাড়লেই ছাপানো ব্যালট নষ্ট করতে হবে। নতুন প্রার্থীকে নিয়ে নতুন করে ছাপাতে হবে ব্যালট পেপার। ২৬ ডিসেম্বরের মধ্যে এ কাজ শেষ করা হবে।

২৪ নভেম্বর ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী, ৩ ডিসেম্বর পর্যন্ত তিনটি পদে ২৩৪ পৌরসভায় ১৩ হাজারেও বেশি প্রার্থী মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। বাছাই ও প্রার্থিতা প্রত্যাহার শেষে এ চূড়ান্ত প্রতিদ্বন্দ্বী দাঁড়িয়েছে ১২ হাজার ৪৩ জন।

বাদ পড়াদের মধ্যে মেয়র পদে দেড় শতাধিক রয়েছে। প্রত্যাহার করেছেন ১৬২ জন। সাধারণ ও সংরক্ষিত পদে বাদ পড়েছে পাঁচ শতাধিক।

ইসির আইন শাখার একজন কর্মকর্তা জানান, অন্তত ৫০০ রিট পিটিশন হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। এরমধ্যে এক তৃতীয়াংশ ইসিতে এসেছে।

আদালতের শীতকালীন অবকাশ থাকায় গত সপ্তাহের মতো আর বেশি প্রার্থিতা ফিরে আসার সম্ভাবনা নেই বলে জানান এ কর্মকর্তা।

মেয়র, সাধারণ ও সংরক্ষিত পদের জন্য ভোটার সংখ্যার তিনগুণ হিসেবে ২ কোটি ১০ লাখের বেশি ব্যালট পেপার ছাপবে ইসি।-রাইজিংবিডি

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত