টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

রাউজানে ভোট হবে কেবল মেয়র পদে, কাউন্সিলররা সবাই জয়ী

এস.এম. ইউসুফ উদ্দিন
রাউজান প্রতিনিধি 

Raozan-meyor-concilor-picচট্টগ্রাম, ১৪ ডিসেম্বর (সিটিজি টাইমস):  এবারের পৌর নির্বাচনে দলীয় প্রতিকে মেয়র প্রার্থী নিয়ে যখন মাঠ সরগরম আর ঠিক সেই মুহুর্তে দেশের মধ্য এবার নতুন রেকর্ড গড়েছেন চট্টগ্রামের রাউজান পৌরসভা নির্বাচন। এখানে পৗরসভার সবকটি কাউন্সিলর পদে আওয়ামী লীগ সমর্থিত ১২ প্রার্থীকে নির্বাচিত ঘোষণা করা হয়েছে। পৌরসভার নয়টি সাধারণ এবং তিনটি সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদে তাদের বিনা প্রতিদ্বন্দিতায় নির্বাচিত ঘোষণা করা হয়। গত ১৩ ডিসেম্বর মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের সময় শেষ হওয়ার পরপরই রাউজানের রিটার্নিং কর্মকর্তা কুল প্রদীপ চাকমা এই ঘোষণা দেন।

মেয়র পদে আওয়ামীলীগের দুই বিদ্রোহী প্রার্থী মনোনয়ন পত্র প্র্যাহার করে নিলেও স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি শফিকুল ইসলাম চৌধুরীর ছেলে সাইফুল ইসলাম চৌধুরী রানা গত ১৩ ডিসেম্বর রবিাবার আওয়ামীলীগের দলীয় সদস্য পদ থেকে পদত্যাগ করে নাগরিক কমিটির প্রার্থী পরিচয়ে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দি হিসেবে অনড় অবস্থানে রয়েছেন।

এদিকে মেয়র পদে আওয়ামীলীগের দলীয় প্রার্থী দেবাশীষ পালিত, বিএনপির দলীয় প্রার্থী কাজী আবদুল­াহ আল হাছান, স্বত্রন্ত্র প্রার্থী মীর মনছুর আলম বিভিন্নস্থানে গণসংযোগ অব্যাহত রেখেছেন।

Raozan-meyor-concilor-2এ উপজেলায় মেয়র পদে বিএনপির প্রার্থী থাকলেও ১২টি কাউন্সিলর পদে দলটির কোনো নেতা-কর্মীর মনোনয়নপত্র জমা পড়েনি। কয়েকটি কাউন্সিলর পদে আওয়ামী লীগ সমর্থক ও অন্য প্রার্থীরা থাকলেও মনোনয়ন প্রত্যাহারের মাধ্যমে তারা সরে দাঁড়িয়েছেন। বিনা প্রতিদ্বন্দিতায় নির্বাচিতদের একজন বলেছেন, “দুয়েকজন কাউন্সিলর প্রার্থীকে বুঝিয়ে শুনিয়ে মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করানো হয়েছে।”

রাউজানের রিটার্নিং কর্মকর্তা কুল প্রদীপ চাকমা বলেন, সাধারণ কাউন্সিলর পদে চারজন এবং সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদে দুইজন প্রার্থী রবিবার মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের পর সব কাউন্সিলর পদেই একক প্রার্থী হয়ে গেছে।

“এ কারণে বিকেল ৫টায় প্রত্যাহারের সময় শেষ হওয়ার পর রিটার্নিং কর্মকর্তা নয়টি কাউন্সিলর পদে এবং তিনটি সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদে থাকা প্রার্থীদের বিনা প্রতিদ্বন্দিতায় নির্বাচিত ঘোষণা করেছেন।”

এর আগে গত ৬ ডিসেম্বর মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাই শেষে রাউজানের পাঁচটি সাধারণ কাউন্সিলর ও একটি সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর পদে আওয়ামী লীগ সমর্থক একজন করে প্রার্থী ছাড়া অন্য কোনো প্রাার্থী ছিলেন না।

বাকি চারটি সাধারণ ওয়ার্ডে আটজন এবং দুটি নারী কাউন্সিলর পদে চারজন স্বতন্ত্র প্রার্থী মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করে নেবেন কি না তা নিয়ে তখন থেকেই এলাকায় আলোচনা চলছিল।

এদিকে কাউন্সিলর পদে বিনাপ্রতিদ্বন্ধিতায় যারা নির্বাচিত হয়েছেন তারা হলেন ১নং ওয়াডের বর্তমান কাউন্সিলর আলমগীর আলী, ২নং ওয়ার্ডে বর্তমান কাউন্সিলর বশির উদ্দিন খান, ৩নং সাবেক কমিশনার কাজী মোহাম্মদ ইকবাল, ৪নং ওয়ার্ডে (নতুন) শওকত হাসান, ৫নং ওয়ার্ডে সাবেক কমিশনার জানে আলম জনি, ৬নং ওয়ার্ডে এডভোকেট সমীর দাশ গুপ্ত, ৭নং ওয়ার্ডে বর্তমান কাউন্সিলর আজাদ হোসেন, ৮নং ওয়ার্ডে এডভোকেট দিলীপ কুমার চৌধুরী, ৯নং ওয়ার্ডে কাউন্সিলর জমির উদ্দিন পারভেজ। এছাড়াও সংরক্ষিত মহিলা ওয়ার্ডে ১,২,৩ নং ওয়ার্ডের মধ্য রয়েছেন নাছিমা আকতার, ৪,৫,৬ নং ওয়ার্ডে, জেবুন্নেছা,৭,৮,৯ ওয়ার্ড এর জান্নাতুল ফেরদৌস ডলি।

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত