টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

রাঙ্গুনিয়ায় চুপসে গেল জামাই-শ্বশুড়ের ভোট যুদ্ধ

আব্বাস হোসাইন আফতাব
রাঙ্গুনিয়া প্রতিনিধি 

চট্টগ্রাম, ১৩ ডিসেম্বর (সিটিজি টাইমস): রাঙ্গুনিয়া পৌরসভা নির্বাচনে আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থী চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আওয়ামীলীগের বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক কামরুল ইসলাম চৌধুরী মেয়র পদে জমা দেয়া তার মনোনয়ন পত্র প্রত্যাহার করে নিয়েছেন। মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করে তিনি নৌকা মার্কার পক্ষে ভোট চেয়েছেন। এতে রাঙ্গুনিয়ায় মূলত আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থীতা ছাড়াও চুপসে গেছে জামাই শ্বশুড়ের ভোটযুদ্ধ। পারিবারিক আত্মীয়তার দিক দিয়ে কামরুল ইসলাম চৌধুরী আওয়ামীলীগের মেয়র প্রার্থী শাহজাহান সিকদারের আপন বড় ভাইয়ের মেয়ে জামাই। দলের সিদ্ধান্তের প্রতি আনুগত্য ও সভানেত্রীর নির্দেশ মেনে সর্বোপরী রাঙ্গুনিয়ার সাংসদ সাবেক মন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদের পরামর্শে তিনি মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত নেন বলে জানান। রোববার দুপুরে মনোনয়ন প্রত্যাহারের শেষ দিনে নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা ও রাঙ্গুনিয়ার ইউএনও সাইফুল ইসলাম মজুমদারের কাছে তিনি মনোনয়ন পত্র প্রত্যাহারের আবেদন জমা দেন। এসময় তার সাথে আওয়ামীলীগের দলীয় মনোনয়ন প্রাপ্ত মেয়র প্রার্থী উত্তর জেলা আওয়ামীলীগের ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক শাহজাহান সিকদার, উপজেলা চেয়ারম্যান মুহাম্মদ আলী শাহ, উপজেলা আ.লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারন সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার শামসুল আলম তালুকদার, আওয়ামীলীগ নেতা সাবেক চেয়ারম্যান লোকমানুল হক, মোজাহেরুল ইসলাম, আরিফুল ইসলাম চৌধুরী, এনাম উদ্দিন, মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার খায়রুল বশর মুন্সি, উত্তর জেলা ছাত্রলীগের সহসভাপতি বিকে লিটন চৌধুরীসহ দলীয় নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন। এসময় কামরুল ইসলাম চৌধুরী ও শাহজাহান সিকদার কোলাকুলি করে উপস্থিত নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে বক্তব্য রাখেন। কামরুল ইসলাম চৌধুরী উপস্থিত নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে বলেন, যেহেতু দলীয় প্রতিকের নির্বাচন হচ্ছে, সেহেতু আমরা যারা আওয়ামীলীগ করি আমরা সবাই দলের ও শেখ হাসিনার সিদ্ধান্তের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই আমার দলের কোন কর্মী দলের বাইরে গিয়ে কাজ করুক সেটা আমি প্রত্যাশা করিনা। সকলকে নৌকা মার্কার পক্ষে নির্বাচনে ভোট যুদ্ধে নামার আহবান জানান তিনি। দলের সিদ্ধান্ত মেনে নিয়ে মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করায় কামরুল ইসলাম চৌধুরীকে অভিনন্দন জানিয়ে আওয়ামীলীগ মনোনীত মেয়র প্রার্থী শাহজাহান সিকদার বলেন, ছাত্র অবস্থা থেকে তিনি বঙ্গবন্ধুর পরীক্ষিত সৈনিক। তিনি অবশ্যই যোগ্য প্রার্থী এবং ভোটের মাঠে আমার চেয়ে অভিজ্ঞতাও বেশি তার। রাঙ্গুনিয়ায় ড. হাছান মাহমুদের উন্নয়নের রোড ম্যাপ বাস্তবায়নে পৌরসভা নির্বাচনে নৌকা মার্কার পক্ষে তার বলিষ্ট হাত বাড়িয়ে দেবেন। এর আগে সকাল এগারটায় আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী মেয়র প্রার্থী কামরুল ইসলাম চৌধুরী রাঙ্গুনিয়া প্রেস ক্লাব কার্যালয়ে আয়োজিত এক সাংবাদিক সম্মেলনে মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের ঘোষণা দেন। এসময় তিনি বলেন, ২০০২ সালে রাঙ্গুনিয়া পৌরসভার প্রথম নির্বাচনে বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের আমলে যখন কেউ আওয়ামীলীগের নাম উচ্চারণ করতে ভয় পেতো তখন প্রতিকুল পরিস্থিতিতে আমি মেয়র পদে নির্বাচন করেছি। তখন দলের সভানেত্রী শেখ হাসিনা আমাকে সাহস ও অর্থ দিয়ে সহযোগীতা করেছিলেন। ২০১০ সালের নির্বাচনেও আমি জনগণের চাহিদা অনুযায়ি ভোট করার চেষ্ঠা করেও ব্যর্থ হয়েছি। এবারও দলের মনোনয়ন না পেয়ে নির্বাচন থেকে সড়ে দাঁড়ালাম। নির্বাচন থেকে সড়ে দাঁড়ানোর কারণে নিজের অনুসারী ও দলীয় নেতাকর্মীসহ সাধারণ ভোটারদের কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করেন তিনি।

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত