টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

নাজিরহাটে জেলা পরিষদের জায়গা সম্পূর্ণ মুক্ত করলো প্রশাসন

মীর মাহফুজ আনাম
ফটিকছড়ি প্রতিনিধি

Fatickchariচট্টগ্রাম, ১৩ ডিসেম্বর (সিটিজি টাইমস):  ফটিকছড়ি উপজেলার নাজিরহাট বাজারে বেদখলে থাকা জেলা পরিষদের জায়গা সম্পূর্ণভাবে মুক্ত করলো প্রশাসন। দু‘দফা উচ্ছেদ অভিযান চালিয়ে পরিষদের প্রায় ১ একর পাঁচ শতক জায়গায় দীর্ঘদিন ধরে গড়ে উঠা অর্ধ শতাধিক দোকান গুড়িয়ে দিয়ে নিজেদের দখলে নেয় জেলা পরিষদ। আজ (রোববার) উচ্ছেদ অভিযানে নেতৃত্ব দেন নির্বাহী হাকিম ও উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. জামিরুল ইসলাম। চট্টগ্রাম জেলা পরিষদের সচিব মুহাম্মদ সাব্বির ইকবাল, প্রকৌশলী মুহাম্মদ আনিসুর রহমান এবং ফটিকছড়ির উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. নজরুল ইসলামও উচ্ছেদ অভিযানে অংশ নেন। আজ এ অভিযানে প্রায় ৩০ টি দোকান উচ্ছেদ করে। এর আগে গত ৭ ডিসেম্বর অভিযান চালিয়ে প্রায় ২০ টি দোকান উচ্ছেদ করেছিল।

বাজারের একাধিক ব্যবসায়ী জানান, উপজেলার নাজিরহাট বাজারের পুরাতন ব্রীজ সংলগ্ন জেলা পরিষদের প্রায় ১ একর পাঁচ শতক জায়গার উপর আরফাত সিটি সেন্টারসহ দীর্ঘদিন ধরে অর্ধ শতাধিক অবৈধ দোকান গড়ে ওঠে। অবৈধ দোকানপাটের পাশাপাশি সেখানে বিভিন্ন কারখানাও স্থাপন করেন তাঁরা। এসব স্থাপনা ভাড়ায় দিয়ে মাসে লাখ লাখ টাকা আয় করতেন স্থানীয় দৌলতপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি এনামুল হক বাবুল এবং স্থানীয় জামায়াত নেতা উপজেলা জামায়াতের সদস্য আবু তাহের ওরফে বাচা। তবে তারা অভিযোগ অস্বীকার করেছেন।

এনামুল হক বাবুল সাংবাদিকদের বলেন, ‘এসব সম্পত্তি আমার বাপ-দাদারা ভোগ দখল করে আসছিলেন। বংশ পরমপরায় আমরা ভোগ দখল করে দোকান নির্মাণ করে ভাড়ায় লাগিয়েছিলাম।’

আবু তাহের বাচা বলেন, ‘এসব সম্পত্তি ফিরে পেতে আমি আদালতের মাধ্যমে আবেদন করব। তিনি এসব সম্পত্তি নিজেদের বলে দাবী করেন।’

নির্বাহী হাকিম মো. জামিরুল ইসলাম বলেন, ‘জেলা পরিষদের জায়গায় এসব নেতার অন্তত ৫০টি অবৈধ দোকান গড়ে উঠে। আজ ৩০টি দোকান উচ্ছেদ করা হয়, এর আগে গত ৭ ডিসেম্বর বাকি ২০টি দোকান উচ্ছেদ করা হয়েছিল। ওই স্থানে ভবিষ্যতে জেলা পরিষদের মার্কেট নির্মাণ করা হবে।’

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত