টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

পৌর নির্বাচন: চূড়ান্ত প্রার্থী কারা, স্পষ্ট হবে আজ

চট্টগ্রাম, ১৩ ডিসেম্বর (সিটিজি টাইমস):: পৌর নির্বাচনে প্রার্থিতা মনোনয়পত্র প্রত্যাহারের শেষ দিন আজ রবিবার। সকাল ৯ টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত প্রার্থীরা তাদের মনোনয়ন প্রত্যাহার করতে পারবেন। আগামীকাল সোমবার থেকে বৈধ প্রার্থীদের মাঝে প্রতীক বরাদ্দ করবেন রিটার্নিং অফিসাররা। তবে মনোনয়পত্র প্রত্যাহার না করার সিদ্ধান্তে এখনো অটল বেশিরভাগ বিদ্রোহী প্রার্থী। দল থেকে বহিষ্কারের হুমকি দেয়া হলেও তা মানতে নারাজ প্রার্থী ও সমর্থকেরা। নির্বাচনে শেষ পর্যন্ত চূড়ান্ত প্রার্থী কারা হচ্ছেন তা আজই স্পষ্ট হবে।

আজ রবিবার মনোনয়ন প্রত্যাহারের শেষ দিন। গতকাল শনিবার পর্যন্ত আওয়ামী লীগ ও বিএনপির বিদ্রোহী প্রার্থীরা মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করেননি। দল মনোনিত প্রার্থীদের সমর্থন দিতে দলের বিদ্রোহী প্রার্থীদের কড়া নির্দেশনা দেয় আওয়ামী লীগ। এরপর কিছু জায়গায় স্থানীয় নেতারা উভয়পক্ষকে নিয়ে সমোঝতার চেষ্টাও চালায়। নেত্রকোণার মদন পৌরসভার বিদ্রোহী প্রার্থী আব্দুল হান্নান তালুকদার শামীমকে নিয়ে বৈঠকে বসেন আওয়ামী লীগের জেলা, উপজেলা, পৌর কমিটির নেতাসহ দলীয় মনোনয়নপ্রাপ্ত প্রার্থী সাইফুল ইসলাম হান্নান। এক পর্যায়ে বিদ্রোহী প্রার্থীকে তার সমর্থকরা বৈঠক থেকে তুলে নিয়ে যায়, সভা হয় পণ্ড।

সব জায়গায় এমনটি না হলেও দলের সিদ্ধান্ত মানতে নারাজ বিদ্রোহী প্রার্থীরা। ঢাকা বিভাগের ১৫টি জেলার ৬৫টি পৌরসভায় আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী আছেন ২৭ জন। আর বিএনপির ১১। তবে ঢাকার সাভার, ধামরাই ও গাজীপুরের শ্রীপুরে কোন দলেরই বিদ্রোহী প্রার্থী নেই। চট্টগ্রাম বিভাগে নির্বাচন হবে ১০টি জেলার ৩৭টি পৌরসভায়। এখানেও আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী ১৩ এবং বিএনপির আছেন তিন জন।

রাজশাহী বিভাগের ৮টি জেলার ৪৯টি পৌরসভায় আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী ২১ জন আর বিএনপির আছেন ২২ জন। রংপুর বিভাগের ৮টি জেলার ১৯টি পৌরসভায় আওয়ামী লীগের ১২ এবং বিএনপির ৭ জন বিদ্রোহী প্রার্থী আছেন।

খুলনা বিভাগের ১০টি জেলার ২৯টি পৌরসভায় মোট মেয়র প্রার্থী আছেন ১১৭ জন। এর মধ্যে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী আছেন ২৪ জন এবং বিএনপির চার জন।

বরিশাল বিভাগের ছয়টি জেলার১৭টি পৌরসভায় আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী ১৪ এবং বিএনপির আছেন দুই জন।

সিলেট বিভাগের চার জেলার ১৬টি পৌরসভা আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী আছেন আট জন এবং বিএনপিতে আছেন চার জন।

প্রধান দুটি দলের নেতারা বলছেন, মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের দিনেই সব কিছুর সমাধান হয়ে যাবে। তবে নির্বাচন সংশ্লিষ্টরা বলছেন সমস্যার সমাধান না হলে নির্বাচনের ফলাফলে ব্যাপক প্রভাব ফেলবে বিদ্রোহী প্রার্থীরা।

কমিশন সচিবালয় থেকে জানা গেছে, ২৩৪টি পৌরসভায় মেয়র পদের নির্বাচনে অংশ নিয়েছে মোট ১৯টি দল। এর মধ্যে আওয়ামী লীগের প্রার্থী ২২৭টি, বিএনপির ২১৮টি এবং জাতীয় পার্টির (জাপা) ৮১টি পৌরসভায় প্রার্থী মনোনয়ন দিয়েছে।

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত