টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

অনড় অবস্থানে সীতাকুণ্ড আওয়ামীলীগের দু’ বিদ্রোহী প্রার্থী

মো. ইমরান হোসেন
সীতাকুণ্ড (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি 

চট্টগ্রাম, ০৬ ডিসেম্বর (সিটিজি টাইমস):: সীতাকুণ্ডে একাধিক বিদ্রোহী প্রার্থীর নিয়ে নির্বাচনী মাঠে বেকায়দায় পড়েছে আওয়ামীলীগ। মেয়র পদ হতে কাউন্সিলার প্রার্থী রয়েছে একাধিক প্রার্থী। দলীয় সিদ্ধান্ত অনুযায়ী দলের একক প্রার্থী দেয়া হলেও মেয়র পদে মাঠে রয়েছে দলের হেভিওয়েট দুই প্রার্থী পৌর আওয়ামীলীগের সভাপতি ও বর্তমান মেয়র নায়েক (অব) শফিউল আলম। যাচাই-বাচাই ছাড়া পক্ষ-পাতিত্ব করে দলীয় প্রার্থী নির্ধারিত হওয়ায় এই পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে বলে দলীয় সুত্রে জানাযায়।

দলগত নির্বাচনের কারণে আওয়ামীলীগের প্রার্থী নির্ধারন করেন দলীয় প্রধান। এ সময় বহু যাচাই-বাচাই করে দল থেকে বর্তমান মেয়র নায়ক (অব) শফিউল আলমকে দলীয় প্রার্থী হিসেবে নির্ধারন করে মিডিয়াতে ঘোষনা দেয়া হয়। কিন্তু ২৪ ঘন্টা পার হতে না হতেই তা পরিবর্তন হয়ে যায়। এ নিয়ে দলের ভেতরে-বাইরে শুরু হয় নানা রকমের আলোচনা সমালোচনা। সে সাথে ক্ষিপ্ত হয়ে উঠেন তৃন মূলের নেতা-কর্মীরা। এরপরই দলের বাইরে অবস্থান নিয়ে নিজেকে নাগরিক কমিটির প্রার্থী ঘোষনা দিয়ে মনোনয়ন গ্রহন ও জমা করেন। একই সাথে সতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মাঠে নামেন দলের আরেক প্রার্থী সিরাজ-উদ দৌলা ছুট্টু। বিদ্রোহী এই দুই প্রার্থী বলেন,‘ দলের সুখে-দুখে আমরাই সব সময় দলের পাশে থেকে কাজ করছি। অথচ যে দলের সংকটময় মহুর্তে দেশের বাইরে ছিলেন তাকেই দল থেকে মনোনয়ন দেয়া হলো। দলের এই ধরনের স্বজনপ্রীতি আচরনে মর্মহত হয়েছি। তাই তৃনমূলের গ্রহন যোগ্যতা ও সাধাররন মানুষের পক্ষে নির্বাচনী মাঠে নেমেছি।’ একই সমস্যা দেখা দিয়েছে একাধিক কাউন্সিলার প্রার্থী নিয়ে। প্রতিটি ওয়ার্ডে নির্বাচনী মাঠে নেমেছে আওয়ামীলীগের প্রায় অর্ধশত প্রার্থী। এসব প্রার্থীরাও কেউ কাউকে ছাড় দিতে নারাজ। তবে কাউন্সিলার পদে দলের প্রত্যায়ন পত্র নেয়া নেতাদের চেয়ে মাঠ পর্যায়ে ত্যাগী নেতারা গ্রহনযোগ্যতায় এগিয়ে।

এদিকে মেয়র পদে দলের হেভিওয়েট দুই প্রার্থী মাঠে নামায় পক্ষ নিয়ে দ্বীধা-দ›েদ্ব পড়েছে দলীয় ভোটাররা। কৃষকলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক জুলফিকার আলি বলেন,‘ যেহেতু দলের একাধিক প্রার্থী নির্বাচন করার আগ্রহ প্রকাশ করেছে সেহেতু উচিৎ ছিল যাচাই-বাচাইয়ের। এরপরও দলী প্রার্থীকে বিজয়ী করতে হলে সব কিছু মুচে ফেলে সবাইকে একযাগে কাজ করতে হবে।’ এ পরিস্থিতিতে দলীয় প্রার্থীর বিজয় নিয়ে সন্দিহান হয়ে পড়েছেন সিনিয়য়র নেতারা। তবে নির্বাচনের আগ মহুর্তে সমস্যা সমাধানে দলের পক্ষ হতে সব রকমের চেষ্টা অব্যহত রাখা হয়েছে। এ লক্ষে প্রার্থীদের মধ্যে সমন্বয় আনতে কয়েকবার বৈঠক শেষ করা হয়েছে। নেতারা চাচ্ছে বিদ্রোহীদের বুঝিয়ে-শুনিয়ে নির্বাচনী মাঠ হতে সরিয়ে আনতে। কিন্তু আলাপ-আলোচনা সত্তে¡ বিদ্রোহীরা নিজেদের অবস্থানে অনড় রয়েছে বলে জানাযায়। তবে সব রকম ক্ষোভ-বিক্ষোভের মধেও চেষ্টা অব্যহত রয়েছে।

এ বিষয়ে উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আবদুল­া আল বাকের ভূইয়া বলেন,‘ বিদ্রোহী প্রার্থীদের নির্বাচনী মাঠ হতে সরিয়ে আনতে সব রকমের চেষ্ঠা অব্যাহত রয়েছে। কারণ সবাইকে চিন্তা করতে হবে রাজনীতিতে ব্যাক্তির চেয়ে দল বড়। অতএব দলের কথা ভেবে সবাই মিলে একসাথে কাজ করে দলীয় প্রার্থীকে বিজয়ী করতে হবে।

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত