টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

চট্টগ্রামে আ.লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী ৩ বিএনপির ২

চট্টগ্রাম, ০৩ ডিসেম্বর (সিটিজি টাইমস)::  চট্টগ্রামে ১০ পৌরসভার মধ্যে আওয়ামী লীগ সাতটিতে মেয়র পদে একক প্রার্থী নিশ্চিত করলেও তিনটিতে বিদ্রোহ ঠেকাতে পারেনি। আর বিএনপি আটটিতে একক প্রার্থী নিশ্চিত করলেও দুটিতে বিদ্রোহী প্রার্থী মনোনয়ন পত্র জমা দিয়েছেন।

বৃহস্পতিবার মনোনয়নপত্র জমা দেয়ার শেষ দিনে রাঙ্গুনিয়া পৌরসভায় আওয়ামী লীগের একজন, রাউজান ও সীতাকুণ্ড দুজন করে চারজন বিদ্রোহী প্রার্থী স্বতন্ত্র হিসেবে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। একইভাবে রাঙ্গুনিয়ায় বিএনপির দুজন, পটিয়ায় একজন বিদ্রোহী প্রার্থী স্বতন্ত্র হিসেবে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন।

দলীয় সূত্র জানায়, চট্টগ্রামের রাউজানে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী দেবাশীষ পালিত মেয়র পদে মনোয়নপত্র জমা দেন। একই পদে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাবেক পৌর মেয়র শফিকুল ইসলাম চৌধুরী বেবীর ছেলে সাইফুল ইসলাম চৌধুরী রানা ও পৌর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আনোয়ারুল ইসলাম মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন।

সীতাকু-ে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী বদিউল আলম মনোনয়নপত্র জমা দেন। একই পদে বর্তমান পৌর মেয়র ও আওয়ামী লীগ নেতা অবসরপ্রাপ্ত নায়েক শফিউল আলম এবং পৌর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি সিরাজউদ্দৌলা ছুট্টু মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন।

রাঙ্গুনিয়া পৌরসভায় উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক শাহজাহান সিকদার মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। মনোনয়নবঞ্চিত হয়ে উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের বন ও পরিবেশ বিষয়ক স¤পাদক কামরুল ইসলাম চৌধুরীও মনোনয়নপত্র জমা দেন।

এছাড়া মিরসরাইয়ে গিয়াস উদ্দিন, বারৈয়ারহাটে নিজাম উদ্দিন, সন্দ্বীপে বদিউল আলম, পটিয়ায় অধ্যাপক হারুনুর রশিদ, বাঁশখালীতে সেলিমুল হক চৌধুরী, সাতকানিয়ায় মোহাম্মদ জোবায়ের এবং চন্দনাইশে মাহবুবুল আলম খোকা আওয়ামী লীগের একক প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন।

এদিকে রাঙ্গুনিয়ায় বিএনপির প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন জমা দিয়েছেন বর্তমান পৌর কাউন্সিলর হেলাল উদ্দীন। তবে দলের মনোনয়ন না পেয়ে সাবেক পৌর মেয়র উত্তর জেলা বিএনপি নেতা নুরুল আমিন তালুকদার এবং বিএনপি সমর্থক মফিজুল ইসলামও মনোনয়ন জমা দিয়েছেন। পটিয়ায় দক্ষিণ জেলা যুবদলের যুগ্ম-স¤পাদক তৌহিদুল আলম একক প্রার্থী হিসেবে মনোনয়পত্র জমা দিলেও বিএনপি নেতা ইব্রাহীম সওদাগর বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে চট্টগ্রাম উত্তর জেলা বিএনপির আহ্বায়ক আসলাম চৌধুরী বলেন, রাঙ্গুনিয়া ও পটিয়ায় বিদ্রোহী প্রার্থী মনোনয়নপত্র জমা দিলেও শেষ পর্যন্ত তারা প্রত্যাহার করে নেবেন বলে আশা করছেন।

চন্দনাইশ পৌরসভায় শরীক দল এলডিপির প্রার্থীকে ছেড়ে দিয়েছে বিএনপি। এতে এলডিপির সভাপতি ও বর্তমান মেয়র আইয়ূব কুতুবী ২০ দলীয় জোটের একক প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। তবে স্বতন্ত্রপ্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন ব্যবসায়ী জসিম উদ্দিন।

এছাড়া মিরসরাইয়ে পৌর বিএনপির যুগ্ম-আহ্বায়ক রফিকুল ইসলাম পারভেজ, বারৈয়ারহাটে পৌর বিএনপির সাবেক আহ্বায়ক মাইনুদ্দিন লিটন, সীতাকু-ে পৌর বিএনপির সদস্য আবুল মনছুর, সন্দ্বীপে পৌর যুবদলের সাবেক আহ্বায়ক আজমত আলী বাহাদুর এবং রাউজানে উত্তর জেলা বিএনপির সদস্য সচিব ও বর্তমান পৌর মেয়র কাজী আব্দুল্লাহ আল হাসান, সাতকানিয়ায় পৌর বিএনপির আহ্বায়ক রফিকুল আলম ও বাঁশখালীতে পৌর বিএনপির আহ্বায়ক কামরুল ইসলাম হোসাইনী একক প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন।

আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী সম্পর্কে জানতে চাইলে চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ স¤পাদক এম এ সালাম বলেন, পৌরসভার মেয়র পদে নৌকা প্রতীকের প্রার্থী চূড়ান্ত করেছেন স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। দলের প্রার্থীর বিরুদ্ধে কেউ নির্বাচনে দাঁড়ালে কেন্দ্র থেকে কঠোর ব্যবস্থা নেয়ার কথা ইতোমধ্যে ঘোষণা দেয়া হয়েছে। আশা করছি কেউ নেত্রীর মনোনীত প্রার্থীর বিরুদ্ধে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবেন না। আর একক প্রার্থী নিশ্চিত করার সুযোগ এখনও শেষ হয়ে যায়নি।

চট্টগ্রামের আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা মো. আব্দুল বাতেন জানান, মনোনয়নপত্র জমাদান প্রক্রিয়া শেষ হয়েছে। মেয়র, কাউন্সিলর ও সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদে ৫১৭ জন মনোনয়ন পত্র জমা দিয়েছেন। ৫ ও ৬ ডিসেম্বর মনোনয়নপত্র বাছাই করা হবে। ৩০ ডিসেম্বর নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

মতামত