টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

পাবর্ত্য ভূমি বিরোধ নিষ্পত্তি আইন সংশোধন চলছে : মেনন

চট্টগ্রাম, ০১ ডিসেম্বর (সিটিজি টাইমস)::ঐতিহাসিক শান্তিচুক্তির পূর্ণ বাস্তবায়নে সরকার আন্তরিক। তাই পাবর্ত্য ভূমি বিরোধ নিষ্পত্তি কমিশন আইন-২০০১ যথাযথভাবে সংশোধন ও বাস্তবায়নের জন্য সরকার নিবিড়ভাবে কাজ করে যাচ্ছে বলে জানিয়েছেন বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটনমন্ত্রী রাশেদ খান মেনন।

রাজধানীর সিরডাপ মিলনায়তনে মঙ্গলবার ‘আদিবাসী বিষয়ক’ সংসদীয় ককাসের উদ্যোগে পার্বত্য চট্টগ্রাম শান্তিচুক্তি স্বাক্ষরের ১৮তম বার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন তিনি। দুপুরে বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয় থেকে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

রাশেদ খান মেনন বলেন, ‘শান্তিচুক্তি অনুযায়ী ৩৩টি বিভাগের মধ্যে রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদের কাছে ৩০টি, খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদের কাছে ৩০টি ও বান্দরবান পার্বত্য জেলা পরিষদের কাছে ২৮টি বিভাগ ইতোমধ্যে হস্তান্তর করা হয়েছে। বর্তমান সরকার পঞ্চদশ সংশোধনীর মাধ্যমে সংবিধানের ২৩ (ক) অনুচ্ছেদে প্রথমবারের মতো পার্বত্য অঞ্চলের উপজাতিদের ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘হতাশা, ক্ষোভ কিংবা অভিমান নয়, পার্বত্য শান্তি চুক্তির পূর্ণ বাস্তবায়নে সরকার এবং পার্বত্য জনসংহতি সমিতির মাঝে নিবিড় আলোচনা প্রয়োজন। এর মধ্যদিয়ে সন্দেহ ও অবিশ্বাস দূর হয়ে আস্থা এবং আন্তরিকতার পরিবেশ সৃষ্টি হবে।’

মন্ত্রী আরও বলেন, ‘ইতিহাস সাক্ষ্য দেয়, পৃথিবীর বিভিন্ন প্রান্তে এ ধরনের চুক্তি বাস্তবায়নে কিছু সমস্যা ও জটিলতার সৃষ্টি হয়। পার্বত্য জনপদের ভৌগোলিক বৈশিষ্ট্য, নৃতাত্ত্বিক বৈচিত্র্য মাথায় রেখে চুক্তির পূর্ণ বাস্তবায়নের পথ খুঁজতে হবে।’

অনুষ্ঠানে ‘আদিবাসী’ সংসদীয় ককাসের আহ্বায়ক ফজলে হোসেন বাদশার সভাপতিত্বে মূল বক্তব্য দেন ‘আদিবাসী সংসদীয়’ ককাসের সদস্য খালেদ মাহমুদ চৌধুরী, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন অনুষদের ডিন ড. আব্দুল্লাহ আল ফারুকী, অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন ‘আদিবাসী’ সংসদীয় ককাসের সমন্বয়ক প্রফেসর মেসবাহ কামাল।

মতামত