টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

পেছাবে না ভোট, প্রচারণার সুযোগ নেই এমপিদের

চট্টগ্রাম, ৩০ নভেম্বর (সিটিজি টাইমস):: ভোট ও মনোনয়নপত্র দাখিলের দিন পেছানোর দাবি নাকচ করে দিয়েছে নির্বাচন কমিশন। একই সঙ্গে মন্ত্রী-এমপিদের নিয়ে প্রচারণার সুযোগও দিচ্ছে না কমিশন।

সোমবার কমিশনারদের নিয়ে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী রকিবউদ্দিন আহমদ বৈঠক করেন। ওই বৈঠকে আইনি বাধ্যবাধকতার দিকটি সামনে এনে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

তবে এ বিষয়ে পরে সাংবাদিকদের আনুষ্ঠানিকভাবে জানানো হবে বলে জানিয়েছেন কমিশন সচিব মো. সিরাজুল ইসলাম।

তিনি বলেন, ‘কমিশন সভায় সার্বিক বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়েছে। আনুষ্ঠানিক সিদ্ধান্ত বিকেলে জানানো হবে।’

এর আগে গতকাল রবিবার আওয়ামী লীগ, বিএনপি, জাতীয় পার্টির প্রতিনিধি দল ইসিতে গিয়ে সিইসির সঙ্গে আলোচনা করে।

এদের মধ্যে বিএনপি নির্বাচন ১৫ দিন পেছানো এবং নির্বাচনী প্রচারণায় মন্ত্রী-এমপিদের অংশগ্রহণের সুযোগ না দিতে দাবি জানায়।

অন্যদিকে, ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ ও তাদের আশ্রয়ে থাকা বিরোধী দল জাতীয় পার্টি প্রচারণায় মন্ত্রী-এমপিদের অংশ গ্রহণের সুযোগ দিতে দাবি জানায়। একই সঙ্গে জাতীয় পার্টি নির্বাচনে মনোনয়নপত্র দাখিলের তারিখ ১০ দিন পেছানোর অনুরোধ করে।

তবে গতকালই সিইসি সাংবাদিকদের বলেন, ‘আইনের প্রতি শ্রদ্ধা রেখেই ২৩৬ পৌরসভায় ৩০ ডিসেম্বর ভোট করা হচ্ছে। যথেষ্ট সময় রেখেছি, যথেষ্ট সময় দেওয়া হয়েছে। ৩০ ডিসেম্বর ভোট করার লাস্ট চান্স।’

ভোট পেছানোর সমস্যা তুলে ধরে তিনি বলেন, জানুয়ারি ও ফেব্রুয়ারিতে হালনাগাদ তালিকা প্রকাশ, বিশ্ব ইজতেমা ও পরীক্ষার কারণে ডিসেম্বরে ভোট করার বাধ্যবাধকতার বিষয়টি সবার জানা।

সিইসি বলেন, ‘যদি ৩০ ডিসেম্বর ভোট করতে পারি, তা হবে লাস্ট চান্স। তা না হলে আইন ভঙ্গ হয়ে যাবে। ভোট ভোট যদি পেছাতে না পারি, তার কারণ কী, জানিয়ে দেব আমরা।’

দলগুলোর দাবি নিয়ে সোমবার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত কমিশনারদের নিয়ে বৈঠক করেন সিইসি কাজী রকিবউদ্দিন আহমদ। এই বৈঠকে ভোট না পেছানো এবং মন্ত্রী-এমপিদের প্রচারণার সুযোগ না দেওয়ার সিদ্ধান্ত এলো।

উল্লেখ্য, ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী, আগামী ৩০ ডিসেম্বর মেয়াদোত্তীর্ণ ২৩৬টি পৌরসভায় ভোট হবে। মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ সময় ৩ ডিসেম্বর। যাচাই-বাছাই ৫ ও ৬ ডিসেম্বর। মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ দিন ১৩ ডিসেম্বর।

মতামত