টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

চট্টগ্রামে নতুন শুরুর প্রত্যাশা দলগুলোর

BPLচট্টগ্রাম, ২৯ নভেম্বর (সিটিজি টাইমস)::  মাঠের বাইরের উত্তাপটা ছিলই। তবে টোয়েন্টি২০ ক্রিকেটে চার-ছক্কার ধুন্ধুমার লড়াইটা খুব কমই হয়েছে। সাধারণত ক্রিকেটের সবচেয়ে সংক্ষিপ্ত এই ফরম্যাটে বোলারদের অস্বাভাবিক দাপট লক্ষ্য করা গেছে। একই মাঠে টানা ৬ দিন দুটি করে ম্যাচ হওয়ায় পিচে ব্যাটসম্যানরা স্বাভাবিকটা খেলতে পারেননি বলে বরাবরই শোনা গেছে। শুক্রবার শেষ হয়েছে ঢাকায় প্রথমপর্ব। দুই দিন বিরতি দিয়ে সোমবার চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে শুরু হচ্ছে দ্বিতীয়পর্বের খেলা।

চট্টগ্রামে দ্বিতীয়পর্বের খেলা চলবে আগামী ৩ ডিসেম্বর পর্যন্ত। এই পর্বের প্রথম ম্যাচ দুপুর ২টায় এবং দ্বিতীয়টি সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় শুরু হবে। সোমবার প্রথম দিনে স্বাগতিক চিটাগাং ভাইকিংসের প্রতিপক্ষ বরিশাল বুলস। আর দ্বিতীয় ম্যাচটি হবে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স ও সিলেট সুপারস্টার্সের মধ্যে।

নতুন ভেন্যুতে দ্বিতীয়পর্বের খেলা। তাই এই পর্বে ব্যাট-বলের লড়াই আরও জমজমাট হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। তা ছাড়া স্বাগতিক হিসেবে চট্টগ্রামের ম্যাচগুলোতে স্থানীয় দর্শকদের আগ্রহ থাকবে। অবশ্য চিটাগাং ভাইকিংস প্রথম ৪ ম্যাচের ৩টিতে হেরে যাওয়ায় দর্শকরা হয়তো দু-একটি ম্যাচ দেখে নিতে চাইবেন।

তবে চিটাগাং অধিনায়ক তামিম ইকবাল আশা করছেন, তারা এখানে ঘুরে দাঁড়াতে পারবেন। তিনি বলেছেন, ‘প্রথমপর্ব খুব ভাল কাটেনি আমাদের। খুব ক্লোজ কিছু ম্যাচ হেরেছি। যে ম্যাচগুলো আমাদের জেতা উচিত ছিল, সেগুলোই হেরে গেছি। তবে যা চলে গেছে, সেটা অতীত। এখন আমাদের ঘরের মাঠ, নিজেদের দর্শক। একটু বাড়তি সুবিধা থাকবেই। এই ৪টি ম্যাচ আমাদের জন্য খুব গুরুত্বপূর্ণ। বিশেষ করে আগামীকালের ম্যাচ। জয়ে শুরু করতে পারলে ভাল হয়।’

ছেড়ে কথা বলবে না প্রথম ম্যাচে চিটাগাংয়ের প্রতিপক্ষ বরিশালও। দলটির অন্যতম সদস্য ব্রেন্ডন টেলর বলেছেন, ‘প্রস্তুতিটা বেশ ভালই হয়েছে। যেভাবে নেটে ব্যাটিং করেছি তাতে আমি সন্তুষ্ট। আগামীকাল (সোমবার) নতুন একটি ম্যাচ হবে। আমরা এই ম্যাচে বড় একটি জয়ের দিকেই মনযোগী। একই সঙ্গে টুর্নামেন্টের শেষ পর্যন্ত ধারাবাহিকতা রাখতে চাই।’

দিনের দ্বিতীয় ম্যাচটি হবে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স ও সিলেট সুপারস্টার্সের মধ্যে। কুমিল্লা অঞ্চল চট্টগ্রাম বিভাগেরই অন্তর্ভুক্ত। তাই এই ম্যাচ নিয়েও আগ্রহ থাকবে যথেষ্ট। সেই আগ্রহের জায়গাটা শক্তিশালী করতে চান দলটির কোচ মোহাম্মদ সালাহউদ্দিন। নতুন ভেন্যুতে খেলা নিয়ে তিনি বলেছেন, ‘প্রত্যাশা বলতে আমরা ম্যাচ বাই ম্যাচ এগোচ্ছি। এখানে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব উইকেটে মানিয়ে নেওয়া। আমাদের বোলিং এবং ব্যাটিং যেভাবে হচ্ছে সেই ধারাবাহিকতা রাখতে পারলে ইনশা আল্লাহ পরের ম্যাচগুলোতেও কোনো সমস্যা হবে না।’

নতুন ভেন্যুতে নতুন উদ্যমে সূচনা করতে চায় সিলেটও। দলটির পেসার রুবেল হোসেন চট্টগ্রামেই হয়তো ফিরছেন। প্রথমপর্বে সবকটি ম্যাচ হারের পর তারা ঘুরে দাঁড়াতে চান। রুবেল বলেছেন, ‘আমরা এখানে অনেক ম্যাচ খেলেছি। এখানে ঢাকার মতো উইকেট হবে না। কালকের ম্যাচটা আমরা হয়তো অন্যভাবে শুরু করব।’

একই মাঠে টানা ১২টি ম্যাচ হওয়ার পর নতুন ভেন্যুতে এবার হবে বিপিএল। সবার আশা, এবার হয়তো তুলনামূলক ভাল পিচে খেলতে পারবেন ক্রিকেটাররা। ৩ ডিসেম্বর দ্বিতীয়পর্বের খেলা শেষ হলে দু’দিন বিরতি থাকবে। আগামী ৬ ডিসেম্বর ঢাকায় শুরু হবে তৃতীয়পর্বের খেলা, যা শেষ হবে ১০ ডিসেম্বর। সেমিফাইনাল-ফাইনালসহ টুর্নামেন্টের সমাপ্তি হবে ১৫ ডিসেম্বর।

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত