টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

‘প্রতি লাখে দেশে ১৭০ জন গর্ভবতি মহিলা প্রসবজনিত ফিস্টুলায় মারা যায়’

fistula-Pic_1ইমাম খাইর, কক্সবাজার ব্যুরো:
‘ফিস্টুলা’ মেয়েদের অস্বাভাবিক একটা রোগের নাম। এ রোগে আক্রান্ত মহিলার যোনিপথে অবিরত প্রস্রাব ও পায়খানা ঝরতে থাকে। দেশে প্রতি বছর ৩ হাজারের অধিক মহিলা  ফিস্টুলা রোগে আক্রান্ত। আর প্রতি লাখে ১৭০ জন গর্ভবতি মহিলা প্রসবজনিত ফিস্টুলায় মারা যায়।
‘মহিলা জনিত ফিস্টুলা যোগাযোগে গণমাধ্যম কর্মীদের ভূমিকা’ শীর্ষক কক্সবাজারে এক কর্মশালায় এ তথ্য জানানো হয়।
২৬ নভেম্বর বৃহস্পতিবার শহরের অভিজাত হেটল সী-গালের সম্মেলন কক্ষে এ সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন এনজেন্ডারহেলথ বাংলাদেশ’র প্রতিনিধি ডা. আবু জামিল ফয়সাল।
তিনি বলেন, মহিলাদের ফিস্টুলা রোগ সভ্যতার জন্য ‘অভিশাপ’। সবাই মিলে এ রোগ প্রতিরোধ করা সম্ভব। কোথাও ফিস্টুলা রোগীর সন্ধান পেলে সাথে সাথে ঠিক জায়গায় ওই রোগীকে পাঠানোর ব্যবস্থা করতে হবে।
তিনি বলেন, ফিস্টুলা রোগের জন্য জনসচেতনতার অভাব ও বাল্য বিবাহ দায়ী। তবে প্রধান কারণ হিসাবে ‘দীর্ঘস্থায়ী বা বাধাগ্রস্ত প্রসব’ বলেও তিনি মন্তব্য করেন।
তার মতে, ফিস্টুলা আক্রান্তদের চিহ্নিতকরণ,পাবারিক পূণর্মিলন, চিকিৎসা ও পূনর্বাসনের ব্যবস্থা করা আমাদের দায়িত্ব। সবার সম্মিলিত প্রচেষ্টায় ফিস্টুলামুক্ত বাংলাদেশ গড়া সম্ভব।

Fistula-1_1
কর্মশালার শুরুতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন হোপ ফাউন্ডেশন’র দেশীয় প্রতিনিধি হাসনাইন সবিহ্ নায়ক।
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় ও হোপ ফাউন্ডেশনের যৌথ আয়োজনে কর্মশালায় সভাপতিত্ব করেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় এর ফিস্টুলা সেন্টারের উপদেষ্টা অধ্যাপক সালেহা বেগম চৌধুরী।
মহিলা জনিত ফিস্টুল সম্পর্কে মাল্টিমিডিয়া প্রজেক্টরের মাধ্যমে প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ইউএসআইডি’র প্রকল্প ব্যবস্থাপনা বিশেষজ্ঞ ডা ফেরদৌসি বেগম।
মহিলা জনিত ফিস্টুল সম্পর্কে জনসচেতনতা সৃষ্টির কৌশল সম্পর্কে বক্তব্য রাখেন ফিস্টুলা কেয়ার প্লাস প্রকল্পের দেশীয় ব্যবস্থাপক ডা. শেখ নাজমুল হুদা।
সভায় জানানো হয়, দেশে প্রতি বছর ৩ হাজার মহিলা ফিস্টুলা রোগে আক্রান্ত হচ্ছে। তবে চিন্তার কোন কারণ নেই। ফিস্টুলা রোগ চিকিৎসা করলে ভাল হয়। সরকার বিনামূল্যে এ রোগের চিকিৎসা ব্যবস্থা করেছে। দেশের ১৯টি জায়গায় ফিস্টুলার অপারেশন ও চিকিৎসা হচ্ছে। কক্সবাজারেও এ রোগের চিকিৎসাসেবা দেয়া হচ্ছে।
Fistula-2_1

মতামত