টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

মস্কোয় তুর্কি দূতাবাসে হামলা

wচট্টগ্রাম, ২৫  নভেম্বর (সিটিজি টাইমস):: রাশিয়ার রাজধানী মস্কোয় তুরস্কের দূতাবাসে হামলা চালিয়েছে কয়েকশ তরুণ। বুধবার এ ঘটনা ঘটে। তবে এই হামলায় কেউ আহত হননি। খবর এএফপি’র।

সিরিয়া-তুরস্ক সীমান্তে গতকাল মঙ্গলবার রাশিয়ার একটি যুদ্ধবিমান গুলি করে ভূপাতিত করে তুরস্ক। সিরিয়ায় জঙ্গি সংগঠন ইসলামিক স্টেটের (আইএস) বিরুদ্ধে চলমান অভিযানে অংশ নেয়া ওই যুদ্ধবিমানটি তুর্কি আকাশসীমা লঙ্ঘন করে বলে অভিযোগ তুরস্কের। ওই ঘটনার পর থেকে দুই দেশের মধ্যে উত্তেজনা চলছে।

এএফপির একজন ফটোগ্রাফার ঘটনাস্থল থেকে জানান, কয়েকশ তরুণ তুরস্কের দূতাবাসে হামলা চালায়। তারা দূতাবাস ভবন লক্ষ্য করে পাথর ও ডিম ছুড়ে মারে। হামলাকারীরা ভবনটির বেশ কয়েকটি জানালা ভাঙচুর করে। হামলার সময় তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোয়ানবিরোধী স্লোগান দেয়া হয়। তুরস্কবিরোধী স্লোগান সংবলিত প্ল্যাকার্ড দেখা যায় হামলাকারীদের হাতে।

এএফপির ফটোগ্রাফার আরও জানান, হামলাকারীদের ঠেকানোর চেষ্টা করে পুলিশ। কিন্তু পুলিশের সেই চেষ্টা ব্যর্থ হয়।|

এক পাইলট জীবিত:
ভূপাতিত রুশ যুদ্ধবিমানটির নিখোঁজ হওয়া একজন পাইলট জীবিত আছেন বলে জানিয়েছেন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। বিমানটিতে থাকা আরেক পাইলট গতকাল ঘটনার সময়ই নিহত হন। গার্ডিয়ান অনলাইনের প্রতিবেদনে এ কথা জানানো হয়।

প্রেসিডেন্ট পুতিন আজ বুধবার রাশিয়ার একটি টেলিভিশন চ্যানেলের সঙ্গে আলাপকালে নিশ্চিত করেন, নিখোঁজ হওয়া পাইলট জীবিত আছেন। বার্তা সংস্থা এএফপি জানায়, পুতিন রুশ নাগরিকদের তুরস্ক সফরে না যাওয়ার জন্য রুশ পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সুপারিশের প্রতি সমর্থন জানিয়েছেন।

এর আগে দেশটির প্রতিরক্ষামন্ত্রী সের্গেই সোউগু বার্তা সংস্থাগুলোকে জানান, উদ্ধার হওয়া পাইলট ‘সুস্থ ও নিরাপদ’ আছেন। ১২ ঘণ্টা অভিযান চালিয়ে তাঁকে উদ্ধার করা হয়। ওই পাইলটকে সিরিয়ায় সরকারনিয়ন্ত্রিত এলাকায় রাশিয়ার সামরিক ঘাঁটিতে নেয়া হয়েছে।

এদিকে বিবিসি অনলাইনের খবরে বলা হয়, ভূপাতিত যুদ্ধবিমানের পাইলটকে উদ্ধারে গিয়ে আজ বুধবার দেশটির এক মেরিন সেনা নিহত হন। উদ্ধার অভিযানের সময় সিরিয়ার বিদ্রোহীরা গুলি চালালে ওই সেনা নিহত হন।

এদিকে মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা তুরস্কের অবস্থানের প্রতি সমর্থন জানিয়ে তুর্কি প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোয়ানকে ফোন করেছেন। তুরস্কের সার্বভৌমত্ব রক্ষায় সহায়তা দেওয়ারও আশ্বাস দিয়েছেন ওবামা। ন্যাটোর মহাসচিব জেন স্টলটেনবার্গ বলেছেন, তিনি তুরস্কের তথ্যকে সমর্থন করেন। বিমান ভূপাতিত হওয়ার ঘটনার পর এক জরুরি বৈঠক শেষে তিনি বলেন, ‘আমরা তুরস্কের প্রতি সংহতি প্রকাশ করছি। আমাদের ন্যাটোভুক্ত বন্ধুর সার্বভৌমত্ব রক্ষায় সমর্থন করছি।’

তবে ভ্লাদিমির পুতিন ওই যুদ্ধবিমান ভূপাতিত করার বিষয়টিকে ‘পেছন থেকে ছুরি মারা’ বলে অভিহিত করেছেন। এ ঘটনার পর তুরস্কের সঙ্গে বিদ্যমান সামরিক চুক্তি বাতিলও করেছে রাশিয়া।

মতামত