টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

অপেক্ষা, আর ১০ ঘণ্টার বেশি ‘নয়’

চট্টগ্রাম, ২১  নভেম্বর (সিটিজি টাইমস): ফাঁসির দণ্ডপ্রাপ্ত শীর্ষ দুই মানবতাবিরোধী অপরাধী সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরী ও আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদকে রাষ্ট্রপতির কাছে ক্ষমা চাওয়ার জন্য সর্বোচ্চ ৪৮ ঘণ্টার বেশি সময় দেওয়া উচিত নয়। এমনটি জানিয়েছেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক।

আইনমন্ত্রীর দেওয়া সময়ের হিসাব অনুযায়ী রায় কার্যকরে সরকার বড়জোর ১০ ঘণ্টা অপেক্ষা করতে পারে। ফাঁসির আদেশ কার্যকরের সময় গণনা এরই মধ্যে শুরু হয়ে গেছে বলেও জানান আনিসুল হক।

আইনমন্ত্রীর মতে, ‘জেলখানায় আসামিদের রায় পড়ে শোনানোর পর থেকেই সময় গণনা শুরু হয়ে গেছে।’ সে হিসাবে বৃহস্পতিবার রাত সোয়া ৯টার দিকে জেল কর্তৃপক্ষ দুই আসামিকে রায় পড়ে শোনানোর পর থেকে শনিবার সকাল ১১টা পর্যন্ত ৩৯ ঘণ্টা পার হয়ে গেছে। ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে বাকি আছে আর ৯ ঘণ্টা।

রিভিউ রায়ের আদেশ আসামিদের পড়ে শোনানোর পর থেকে ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে সরকারকে সিদ্ধান্ত নিতে হয় জানিয়ে আনিসুল হক বলেন, ‘তাদের সিদ্ধান্তের অপেক্ষায় তো আমরা দিনের পর দিন অপেক্ষা করতে পারি না।’

শুক্রবার সন্ধ্যায় টেলিফোনে আইনমন্ত্রীর সঙ্গে এই প্রতিবেদকের কথপোকথন—

প্রতিবেদক: যতটুকু জানা যাচ্ছে, বিচার শেষ হওয়া ফাঁসির দুই আসামি প্রাণভিক্ষা চাইবেন কি-না তা জানাতে সময়ক্ষেপণ করছেন। এক্ষেত্রে সরকার কতক্ষণ অপেক্ষা করবে?
আনিসুল হক : যতটুকু রিজেনেবল (সময়)।

প্রতিবেদকে : কতক্ষণকে আপনি রিজেনেবল বলবেন? আমরা জানি, জেলকোড অনুযায়ী ফাঁসির আসামিরা সাত দিনের সময় পান।

আনিসুল হক : এ সব ক্ষেত্রে আমরা তো আর তাদের জন্য দিনের পর দিন অপেক্ষা করতে পারি না। তাই আমাদের তো ২৪ ঘণ্টা থেকে ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে এ সব ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নিতে হয়। ২৪ ঘণ্টা বা বড়জোর ৩৬ থেকে ৪৮ ঘণ্টার বেশি যাওয়া উচিত না।

প্রতিবেদকে : এই সময় গণনার শুরু কোন সময় থেকে?
আনিসুল হক : সময় গণনা শুরু হয়ে গেছে।

প্রতিবেদকে : কখন থেকে?
আনিসুল হক : গত রাতে (বৃহস্পতিবার) যখন তাদের রায় পড়ে শোনানো হয়েছে তখন থেকেই সময় গণনা শুরু হয়ে গেছে।

মতামত