টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

মিরসরাই পৌরসভায় বিএনপির প্রার্থী হচ্ছেন পারভেজ

এম মাঈন উদ্দিন
মিরসরাই প্রতিনিধি

Rafikul-Islam-Parvej-(2)চট্টগ্রাম, ১১ নভেম্বর (সিটিজি টাইমস):  আসন্ন পৌরসভা নির্বাচনে মিরসরাই পৌরসভায় মেয়র প্রার্থী হচ্ছেন তরুণ সমাজকর্মী পৌরসভা বিএনপির সদস্য সচিব এজেডএম রফিকুল ইসলাম পারভেজ। নির্বাচনকে সামনে রেখে ইতমধ্যে পৌরসভায় বিভিন্ন গ্রামে গনসংযোগ চালিয়ে যাচ্ছেন তিনি। পাশাপাশি দলীয় সমর্থন আদায়েও জোর লবিং অব্যাহত রেখেছেন পারভেজ। তরুণ উদিয়মান এই নেতা নির্বাচনে অংশগ্রহণের ঘোষনায় দলের নেতা-কর্মীদের মধ্যে চাঙ্গাভাব লক্ষ্য করা গেছে। রফিকুল ইসলাম পারভেজ ১৯৭৮ সালের ১৫ নভেম্বর মিরসরাই পৌরসদরের ফজলুর রহমান মিয়া বাড়ির এক সম্ভ্যান্ত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতা মরহুম আবুল কালাম মিয়া একজন নিঃস্বার্থ সমাজসেবক ও ক্রীড়া সংগঠক ছিলেন । তার জেঠা মরহুম আবুল বরকত মিয়া দীর্ঘ সময় ধরে জনপ্রতিনিধির দায়িত্ব পালন করেন। তিনি মিরসরাই সদর ইউনিয়নে ৩৬ বছর মেম্বার ছিলেন। ৩ ভাই ২ বোনের মধ্যে পারভেজ সবার বড়।ব্যক্তিগত জীবনে তিনি ট্রান্সপোর্ট ব্যবসার সাথে জড়িত রয়েছেন। কলি এন্টার প্রাইজ নামে তার একটি ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠান রয়েছে। রফিকুল ইসলাম পারভেজ ১৯৯৫ সালে মিরসরাই পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি, ১৯৯৭ সালে মিরসরাই ডিগ্রী কলেজ থেকে এইচএসসি ও পরবর্তীতে ব্রাম্মনবাড়িয়া সরকারী কলেজ থেকে বিকম পাশ করেন। ছাত্রজীবন থেকে থেকে রাজনীতির সাথে জড়িত হন। ১৯৯৬ সালে মিরসরাই কলেজ ছাত্রদলের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। ১৯৯৯ সালে উপজেলা ছাত্রদলের যুগ্ম সম্পাদক নির্বাচিত হন। ২০০১ সালে মিরসরাই পৌরসভা বিএনপির সদস্য মনোনিত হয়। ২০১২ সালে মিরসরাই পৌর বিএনপির সদস্য সচিব নির্বাচিত হয়ে অধ্যবদি দায়িত্ব পালন করছেন। বিগত সময়ে দলের দূর্দিনে আন্দোলন সংগ্রামে অগ্রভাগে থেকে নেতৃত্ব দিয়েছেন পারভেজ। ১৯৯৭ সালে তৎকালীন ক্ষমতাসীন আওয়ামীলীগ সরকারের রেষানলে পড়ে ৪টি মামলায় দেড় মাস কারবরণ করেন তিনি। তখন মিরসরাই পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ে পুলিশ তার উপর অমানুষিক নির্যাতন করে। বর্তমানে তার বিরুদ্ধে ৮টি রাজনৈতিক মামলা রয়েছে।

নির্বাচনে মেয়র প্রার্থী হওয়ার বিষয়ে জানতে চাইলে রফিকুল ইসলাম পারভেজ বলেন, আমার পরিবার ও আমি দীর্ঘদিন ধরে এলাকায় সমাজ সেবা করে আসছি। আরো ব্যাপক আকারে সমাজ সেবা করতে আমি নির্বাচনে অংশগ্রহণ করার সীদ্ধান্ত গ্রহণ করেছি।

দলীয় সমর্থন পাওয়ার ব্যাপারে জানতে চাইলে পারভেজ বলেন, দল যদি স্থানীয় নির্বাচনে অংশগ্রহণ করে আমি দলীয় সমর্থন পাবো বলে আশাবাদী। কারণ দলের দূর্দিনে নেতা-কর্মীদের পাশে থেকে আন্দোলন সংগ্রামে নেতৃত্ব দিয়ে আসছি। বর্তমানে আমার বিরুদ্ধে ৮টি মামলা রয়েছে। সবকিছু বিবেচনা করলে আমি দল থেকে সমর্থন পাবো বলে দৃঢ বিশ্বাস। তারপরও দলের সীদ্ধান্তের বাইরে যাবো না।

নির্বাচনে প্রার্থী হিসেবে পৌরবাসির প্রতি আপনার প্রতিশ্রুতি কি? এমন প্রশ্নের জবাবে পারজে বলেন, পৌরসভায় রাস্তা, ঘাট, পুল-কালভাট, ড্রেনেজ ব্যবস্থা সহ চোখে পড়ার মত কোন উন্নয়ন হয়নি। আমি কথায় নয় কাজে বিশ্বাস করি, জনগন যদি আমাকে নির্বাচিত করে তাহলে অবকাঠামোগত সমস্যা সহ জনগনের নাগরিক সেবা নিশ্চিত করবো। এছাড়া পৌরসভাকে প্রথম শ্রেণীর পৌরসভায় উন্নিত করবো।

রফিকুল ইসলাম পারভেজ রাজীতির বাইরে বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনের দায়িত্বে রয়েছেন। তিনি লায়ন্স ক্লাবের ৩০০ বি-১৫ জেলা সেক্রেটারী, মিরসরাই পুর্বাশা ক্লাবের সাবেক ক্রীড়া সম্পাদক, রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির সদস্য, চট্টগ্রাম মা ও শিশু হাসপাতালের আজীবন সদস্য সহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের দায়িত্বে রয়েছেন। মিরসরাই পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় ও মিরসরাই সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার পেছনে তার পরিবারে অবদান রয়েছেন। ব্যাক্তগত জীবনে তিনি এক পুত্র সন্তানের জনক।

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত