টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

জিম্বাবুয়েকে উড়িয়ে দিলো বাংলাদেশ

finalচট্টগ্রাম, ০৭  নভেম্বর (সিটিজি টাইমস): প্রস্তুতি ম্যাচে জয় পেলেও আসল লড়াইতে বাংলাদেশের কাছে পাত্তাই পেল না জিম্বাবুয়ে। টাইগার থাবায় ১২৮ রানে প্যাকেট হলে তিন ম্যাচ সিরিজের প্রথম ওয়ানডেতে ১৪৫ রানের বড় জয় বাংলাদেশ।

খেলার শুরুতে বেশ দেখেশুনে খেলতে থাকে সফরকারীরা। নয় ওভারে তারা তুলে ফেলেন ৪০ রান। ইনিংসের ১০তম ওভারে বল করতে এসে জিম্বাবুয়ে শিবিরে প্রথম ধাক্কা দেন সাকিব।

চামু চিবাবাকে তুলে নিয়ে উপস্থিত দর্শকদের আনন্দে মাতিয়ে তোলেন তিনি। এরপর ক্রিজে এসে সেট হওয়ার আগেই তুলে নেন শন অরভিনকেও।

এরপর ওপনার জোঙ্গইউকে আউট করেছেন পেসার আল-আমিন। দলীয় ৬৫ রানের মাথায় চতুর্থ আঘাত হানেন সাকিব। এবার তার শিকার উইলিয়ামস। পরে দলীয় ৮৩ রানের মধ্যে মাশরাফি জোড়া আঘাত করলে জিম্বাবুয়ের খাদে পড়ে যায়।

পরে আরো দুই উইকেট নিয়ে ওয়ানডে ক্রিকেটে প্রথমবারের মতো ৫ উইকেট নেন সাকিব।

জিম্বাবুয়ের হয়ে যা একটু লড়াই করেছেন অধিনায়ক চিগুম্বুরা। শেষ ব্যাটসম্যান হিসেবে আউট হওয়ার আগে সর্বোচ্চ ৪১ রান করেন তিনি। আর তার উইকেট দিয়েই ইনিংসের সমাপ্তি টানেন নাসির হোসেন। ইনজুরির কারণে ব্যাট হাতে নামতে পারেননি উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান রিচমন্ড মুতায়াম্বি।

সাকিব ছাড়াও অধিনায়ক মাশরাফি ২টি, আল-আমিন হোসেন ও নাসির হোসেন নেন দুটি করে উইকে।

এর আগে টসে হেরে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে মুশফিকুর রহিমের শতকে জিম্বাবুয়ের সামনে ২৭৪ রানের জয়ের লক্ষ্য দেয় স্বাগতিক বাংলাদেশ। নির্ধারিত ওভারে টাইগাররা ৯ উইকেটে করে ২৭৩ রান।

টস জিতে ফিল্ডিং নেন জিম্বাবুয়ের অধিনায়ক এলটন চিগম্বুরা। শুরুতেই সাজঘরে ফিরে যান লিটন কুমার দাস। রানের খাতা খোলার আগেই দলীয় দুই রানে লুক জনগির বলে ক্রেইমারের তালুবন্দি হন তিনি। আর দলীয় ৩০ রানে মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ (৯) বোল্ড হন পানিয়াঙ্গারার বলে।

সেখান থেকে মুশফিকুর রহিমকে নিয়ে প্রতিরোধ গড়ে তোলেন তামিম ইকবাল। ৭০ রানের এই জুটি ভাঙেন সিকান্দার রাজা। তার বলে লুক জনগির তালুবন্দি হওয়ার আগে তামিম তিন বাউন্ডারি ও দুই ছক্কায় করেন ৪০ রান।

এরপর মুশফিক আর সাকিব জুটি বেঁধে দলের রানের গতি বাড়ানোর চেষ্টা করেন। কিন্তু ২৩ রানের এই জুটিও থামান ওই সিকান্দার রাজা। তার বলে সাকিব স্ট্যাম্পিং হওয়ার আগে ১৬ রান করেন।

বাংলাদেশ কার্যত চাপে পড়ে। তবে একপ্রান্ত আগলে চাপ কাটিয়ে দলকে সংহত করেন মুশফিকুর রহিম। সাব্বির রহমানকে নিয়ে গড়েন ১১৯ রানের জুটি। পথে নিজের ক্যারিয়ারের চতুর্থ শতক তুলে নেন মুশফিক মাত্র ১০৪ বলে।

শেষ দিকে দ্রুত উইকেট হারালে টাইগারদের বড় রানের রানের লক্ষ্যে ছেদ পড়ে। তবে অধিনায়ক মাশরাফি আর আরাফাত সানির ছোট্ট দুটি ঝড়ো ইনিংসে বাংলাদেশ ৯ উইকেটে ২৭৩ রান তুলতে সমর্থ হয়।

মুশফিকুর রহিম ১০৯ বলে ৯ চার এক ছক্কায় ১০৭ রান করেন। এছাড়া সাব্বির রহমান ৫৮ বলে চার বাউন্ডারি ও দুটি ছক্কায় ৫৭ এবং তামিম ইকবাল ৬৮ বলে তিন চার, দুই ছক্কায় করেন ৪০ রান।

জিম্বাবুয়ের পক্ষে সিকান্দার রাজা ও মুজারাবারি দুটি করে উইকেট পান। এছাড়া পানিয়াঙ্গারা ও লুক জনগি একটি করে উইকেট নেন।

ম্যাচসেরার পুরস্কার পেয়েছেন দুরন্ত সেঞ্চুরি করা মুশফিকুর রহিম। দু’দলের মধ্যকার দ্বিতীয় ওয়ানডে হবে ৯ নভেম্বর একই ভেন্যুতে।

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত