টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

সীতাকুণ্ড পৌর নির্বাচন: দলীয় সমর্থন পেতে প্রার্থীদের তোড়জোড়

মো. ইমরান হোসেন
সীতাকুণ্ড প্রতিনিধি 

News-Pictureচট্টগ্রাম, ০৪  নভেম্বর (সিটিজি টাইমস)::  সীতাকুণ্ড পৌরসভা নির্বাচনে দলীয় সমর্থন পেতে তোড়জোড় শুরু করেছে দলীয় নেতারা। ইতিমধ্যে দলের সিনিয়র নেতাদের সাথে নানাভাবে যোগাযোগে ব্যাস্ত সময় পার করছে মেয়র প্রার্থী ও কাউন্সিলর প্রার্থীরা। এছাড়া নিজেদের প্রার্থীতা নিশ্চিতে মাঠ প্রচার প্রচারনা চালাচ্ছে একাধিক দলীয় লোকজন। দলীয়ভাবে নির্বাচনে সরকারী সিদ্ধান্তর ফলে দলের একাধিক প্রার্থী নির্বাচনে মাঠে নেমেছেন বলে দলীয় সুত্রে জানা যায়।

বিএনপি হতে পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদে নির্বাচনে মাঠে নেমেছেন সাবেক মেয়র আবুল কালাম আজাদ, ইউসুফ নিজামী, বর্তমান কাউন্সিলার শামসুল আলম আজাদ, এটিএম সাইফুদ্দিন শাহিন ও আলমগীর ইমরান।

কাউন্সিলার পদের জন্য প্রচার প্রচারনা করছেন ১নং ওয়ার্ডে -যুবদলের সভাপতি মো. সেলিম ও সম্পাদক মো. সেলিম, ২নং ওয়ার্ডে- মফিজ ও নুরুল আলম,৩নং ওয়ার্ডে- শামসুল ইসলাম আজাদ,আলি নেওয়াজ মামুন ও মাসুদ, ৪নং ওয়ার্ডে- জয়নাল আবেদীন , ৫নং ওয়ার্ডে মো. শহিদ ভূইয়া, ৬নং ওয়ার্ডে সাবেক কমিশনার নুরুল হুদা মিন্টু, ৭নং ওয়ার্ডে নুরুল গনি, ৮নং ওয়ার্ডে মো.রফিক, ৯নং ওয়ার্ডে বাহার উদ্দিন ও দুলাল।

২০ দলীয় জোটের অধীন হওয়ায় প্রার্থীতা নিয়ে জামায়াত কিছুটা টানাপোড়ানের মধ্যে রয়েছে। এরপরও পৌর নির্বাচনের জন্য চুপিসারে কাজ করে চলছে দলটি। তাদের দলের মেয়র প্রার্থী হিসেবে পৌরসভা জামায়াতের আমির তৌহিদুল আলমের নাম উঠে এসেছে।

পৌরসভা নির্বাচনকে ঘিরে আওয়ামীলীগে চলছে চরম দ্বন্ধ। সংসদ সদস্য ও উপজেলা চেয়ারম্যান সমর্থীত হয়ে প্রার্থীরা বিভক্ত হয়ে পড়ায় এ দ্বন্দের অন্যতম কারন বলে জানান দলীয় নেতা-কর্মীরা। ফলে দলীয় প্রার্থীরা দুই মেরুতে বিভক্ত হয়ে দলীয় সমর্থন আদায়ে উঠে পড়ে লেগেছে। এদিকে উপজেলা আওয়ামীলীগ বিভক্ত হয়ে পড়ায় দলীয় প্রার্থী ঘোষনায় চরম দ্বিধা-দ্বন্দে পড়েছে দলীয় হাইকমান্ড। এরপরও নিজেদের দলীয় প্রার্থী হিসেবে ঘোষনা মাঠ চষে বেড়াচ্ছেন প্রার্থীরা।

দলীয় প্রার্থী হতে যারা তোড়জোড় করছেন তারা হলেন, মেয়র পদে জুলফিকার আলি শামিম, সিরাজ-উদ-দৌলা ছুট্টু, বদিউল আলম বদি, এজেএম হোসেন লিটন, ইঞ্জিনিয়ার শাহ আলম ও মুরাদসহ একাধিক প্রার্থী।

কাউন্সিলার পদে রয়েছেন, ১নং ওয়ার্ডে সোলেমান খোকন ও মো. মোশারফ হোসেন, ২নং ওয়ার্ডে বদিউল আলম জসিম, সাবেক কাউন্সিলার মাইমুন উদ্দিন মামুন, ৩নং ওয়ার্ডে মো. ইব্রাহিম ও স্বপন বনিক, ৪নং ওয়ার্ডে মো. নাছির উদ্দিন, হারাধন চৌধুরী বাবু ও দীপক দে ভোলা, ৫নং ওয়ার্ডে কাউন্সিলার শফিউল আলম মুরাদ, ৬নং ওয়ার্ডে জহুরুল আলম জকু, ও দিদারুল আলম এপোলো, ৭নং ওয়ার্ডে রতন মিত্র, মুনচুর, আবদুল মান্নান, তরিকুল হক চৌধুরী, ৮নং ওয়ার্ডে রফিকুন্নবী বাহার , ৯নং ওয়ার্ডে জুলফিকার আলি মাসুদ শামিম, মো. কামাল উদ্দিন, ও চন্দন রায় চৌধুরী।

জামায়াতের নেয় মহাজোটের শরিক হিসেবে নির্বাচন নিয়ে জাতীয়পার্টিতেও চলছে নানা রকমের হিসাব-নিকাশ। তারাও এক পায়ে খাড়া পৌর নির্বাচনে অংশ গ্রহনে। তবে এ নিয়ে আওয়ামীলীগের সাথে তাদের দেনদরবার চলছে বলে দলীয় সুত্রে জানায়। এরপরও নির্বাচনে প্রতিটি পদে প্রতিদ্বন্ধিতা করতে জাতীয় পার্টি সর্বদা প্রস্তুত রয়েছে বলে জানান উপজেলা জাতীয় পার্টির সভাপতি রেজাউল করিম বাহার।

আগামী ডিসেম্বরে পৌরসভা নির্বাচনের ঘোষনা দেয়ায় পৌর এলাকার প্রতিটি ওয়ার্ডে শুরু হয়েছে নির্বাচনী সংলাপ। নির্দিষ্ট সময়ের প্রায় ২ বছর অতিবাহিত করে নির্বাচন হতে যাচ্ছে সীতাকুণ্ড পৌরসভায়। নতুন ধারার দলীয় প্রতিকের নির্বাচন নিয়ে প্রতিটি দলের মধ্যে উঠেছে নানা রকম আলোচনার ঝড়। স্থানীয় সরকার নির্বাচনে দলীয় প্রতিকে নির্বাচনের ঘোষনায় অন্যান্য সময়ের তুলনায় দলগতভাবে নির্বাচনে দলীয় লোকদের আগ্রহটা অন্যন্য সময়ের চেয়ে বেশী।

দলের একজন ত্যাগী ও নির্যাতীত কর্মী হিসেবে উপজেলা যুবলীগের যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক বদিউল আলম জসিম বলেন, জামাত-বিএনপির নৈরাজ্যের বিরুদ্ধে সব সময় দলের নেতা-কর্মীদের নিয়ে রাজপথে সক্রিয় ভূমিকা পালন করেছি। দলের দুঃস্য সময়ে প্রতিটি মুহুর্তে রাজপথে অতন্দ্র প্রহরী ছিলাম। রাজনীতি ছাড়াও সমাজের উন্নয়নে একজন নিবেদিত কর্মী হয়ে কাজ করে যাচ্ছি। দল থেকে মনোনয়ন পেলে জয় লাভের ব্যাপারে শতভাগ আশাবাদী।

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত