টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

৩৫ বছরে চট্টগ্রামে নতুন কোন সরকারি দপ্তর হয়নি

DSC_0062চট্টগ্রাম, ৩১ অক্টোবর (সিটিজি টাইমস)::  শনিবার দুপুরে নগরীর আসকার দিঘীর পাড়ের রীমা কনভেনশান সেন্টারে চট্টগ্রাম প্রেসক্লাব অায়োজিত ‘সমস্যা ও সম্ভাবনায়’ চট্টগ্রাম শীর্ষক এক অালোচনা সভার আয়োজন করা হয়।

আলোচনায় অংশ নিচ্ছেন গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন, প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী নুরুল ইসলাম বিএসসি, ভূমি প্রতিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী জাবেদ, মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিন, সিডিএ চেয়ারম্যান আবদুচ ছালাম, সাবেক মন্ত্রী আবদুল্লাহ আল নোমান, এফবিসিসিআই সহসভাপতি মাহবুবুল আলম, নগর পুলিশ কমিশনার আবদুল জলিল মণ্ডল প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে গৃহায়ন ও গনপূর্ত মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশারফ হোসেন বলেন, “মীরশ্বরাই থেকে টেকনাফ পর্যন্ত এলাকায় যে সব পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে তাতে কমপক্ষে এক লক্ষ কোটি টাকা বিনিয়োগ হবে, কয়েক লক্ষ লোকের কর্মসংস্থান হবে, চট্টগ্রোমের চেহারা পাল্টে যাবে।”

শুধু মাত্র মহেশখালীর মাতারবাড়ীতে বিদ্যুত কেন্দ্র থেকে দশ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুত পাওয়া যাবে, আগামী ২০২১ সাল নাগাদ এই বিদ্যুত পাওয়া যাবে, চট্টগ্রামের চাহিদার কথা চিন্তা করে প্রধানমন্ত্রী এই বিদ্যুত কেন্দ্র চট্টগ্রামে স্থাপন করার কথা বলেছেন,উল্লেখ করেন মোশারফ হোসেন।

বৈদেশিক কর্মসংস্থান ও জনশক্তি রপ্তানী মন্ত্রী নুরুল ইসলাম বিএসসি বলেন, গত ৩৫ বছরে চট্টগ্রামে নতুন কোন সরকারি দপ্তর হয়নি, বরং অনেক দপ্তরই এখান থেকে ঢাকায় নিয়ে যাওয়া হয়েছে “

আমি দায়িত্ব নিয়ে চট্টগ্রামে জনশক্তি রপ্তানী সংক্রান্ত একাধিক গুরুত্বপূর্ণ দপ্তর চট্টগ্রামে নিয়ে এসেছি, এই সরকারের আমলে এই রকম আরো উন্নয়ন হয়েছে এবং হচ্ছে, উল্লেখ করেন তিনি।

এই অনুষ্ঠানে বিএনপি কেন্দ্রিয় কমিটির ভাইস চেয়ারম্যান সাবেক মন্ত্রী আবদুল্লাহ আল নোমান বলেন, “উন্নয়নের জন্য সবার কমবেশি ভুমিকা আছে, সেগুলোর মূল্যায়নের পাশাপাশি সবাইকে ঐক্যবদ্ধভাবে প্রচেষ্টা চালাতে হবে।”

পরিকল্পিত উন্নয়নের জন্য প্রতিষ্ঠানকে সমন্বয় করতে হবে, সিটি গভমেন্টের ধারণাও একটি গ্রহনযোগ্য সমাধান হতে পারে, যারা দায়িত্বে থাকে এটা তাদেরকেই করতে হবে, উল্লেখ করেন তিনি।

ভূমি প্রতিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী জাবেদ বলেন, “চট্টগ্রামের সাথে দেশ ও দেশের বাইরে যোগাযোগ যত দ্রুত হবে ততই দেশের জন্য ভালো হবে, যোগাযোগ ব্যবস্থার সমাধান হলে চট্টগ্রামের সমস্যা ৬০ শতাংশই কমে যাবে।”

অনুষ্ঠানে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের মেয়র আজম নাছির উদ্দিন বলেন, “ট্টগ্রামের উন্নয়নের জন্য উদ্যোগই আসল বিষয়, কিন্তু কেউ এসব উদ্যোগ আগে এখনকার মত গ্রহন করেনি, উদ্যোগ গ্রহণ করলে উন্নয়ন হবেই।”

শুধু শুধু সরকার গুলোকে দোষ দিয়ে লাভ নেই, সরকারে চট্টগ্রামের যারা ছিলো তাদের মধ্যে সমন্বয় ছিলোনা, যার জন্য চট্টগ্রামের কাংক্ষিত উন্নয়ন হয়নি, যথাযথ উন্নয়ন চাইলে এই অবস্থার পরিবর্ন করতে হবে, দলমতের উর্বে্ধ উঠে সবাইকে এক যোগে কাজ করতে হবে, উল্লেখ করেন তিনি।
অনুষ্ঠানে চট্টগ্রাম ওয়াসার চেয়ারম্যান প্রকৌশলী ফজলূল্লাহ জানান, পানির চাহিদা মেটাতে একাধিক প্রকল্প বাস্তবান করা হচ্ছে, ২০২১ সাল নাগাদ পানির চাহিদা অনেকাংশে কমে যাবে।

চট্টগ্রাম উন্নয়ন কতৃপক্ষের চেয়ারম্যান আবদুচ ছালাম বলেন, এই সরকার চট্টগ্রামের উন্নয়নের জন্য ৬হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ করেছে, অারো প্রয়োজন হলেও প্রধানমন্ত্রী টাকা দিতে প্রস্তুত আছেন।

সভাপতির বক্তেব্যে চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের সভাপতি কলিম সারওয়ার বলেন, প্রায় ১২শ কোটি টাকা ব্যয়ে পয়রায় সমুদ্র বন্দর তৈরী করা হচ্ছে, এটা চট্টগ্রাম বন্দর থেকে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে কিনা তা চট্টগ্রামের মন্ত্রী এমপিদের দেখতে হবে।

মতামত