টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

এখনও বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে সাইট ইন্টেলিজেন্স: পুলিশ

site-intelligenceচট্টগ্রাম, ২৮ অক্টোবর (সিটিজি টাইমস):  দুই বিদেশি হত্যা এবং শিয়া সম্প্রদায়ের মিছিলে হামলার ঘটনায় মধ্যপ্রাচ্যভিত্তিক জিহাদী সংগঠন ইসলামিক স্টেটকে (আইএস) জড়িয়ে ‘জঙ্গি তৎপরতা পর্যবেক্ষণকারী’ বেসরকারি সংস্থা সাইট ইন্টেলিজেন্স গ্রুপ এখনও ‘বিভ্রান্তি’ ছড়াচ্ছে বলে মন্তব্য করেছেন ঢাকা মহানগর পুলিশের মুখপাত্র যুগ্ম কমিশনার মনিরুল ইসলাম।

এসব হামলার ঘটনায় আইএস জড়িত বলে আবারও দাবি করে সাইট ইন্টেলিজেন্সের সর্বশেষ সংবাদ বিজ্ঞপ্তি প্রসঙ্গে বুধবার জানতে চাইলে তিনি এ মন্তব্য করেন।

‘বাংলাদেশের সরকার আইএসের হামলার দাবির তথ্য গ্রহণ করতে অনিচ্ছুক’ শিরোনামে মঙ্গলবার ‘জরুরি সংবাদ বিজ্ঞপ্তি’ প্রকাশ করে সাইট ইন্টেলিজেন্স।

দুই বিদেশি হত্যা এবং শিয়া সম্প্রদায়ের মিছিলে হামলার ঘটনায় আইএস জড়িত বলে আবারও দাবি করে সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে দাবি করা হয়, গত ২৮ সেপ্টেম্বর ঢাকায় ইতালির নাগরিক সিজার তাভেলা, রংপুরে জাপানের নাগরিক কোনিও হোশি এবং সর্বশেষ শিয়া সম্প্রদায়ের তাজিয়া মিছিলে বোমা হামলার ঘটনায় ইসলামিক স্টেট বা আইসিস দায় স্বীকার করে নিয়েছিল। কিন্তু বাংলাদেশের সরকার এসব হামলার ঘটনায় আইএসের সম্পৃক্ততার বিষয়টি তীব্রভাবে নাকচ করে দিয়েছে। আইএসের সম্পৃক্ততার দাবি নাকচের মাধ্যমে তাদের আড়ালে রাখার বিভ্রান্তিকর প্রচেষ্টা ব্যর্থ হয়েছে বলেও ওই সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে দাবি করা হয়েছে।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে অভিযোগ করা হয়, সরকার এই সাইট এবং এর পরিচালক রিটা ক্যাটজের বিরুদ্ধে নেতিবাচক প্রচারের মাধ্যমে মানহানির চেষ্টা চালিয়েছে।

সাইটের নতুন এ দাবির বিষয়ে বুধবার ঢাকা মহানগর পুলিশের মুখপাত্র যুগ্ম কমিশনার মনিরুল ইসলাম বলেন, এখনও সাইট নামের ওই গ্রুপটি বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে। তারা যেসব ঘটনার সঙ্গে আইএস সংশ্লিষ্টতার কথা বলছে, তা তদন্ত করে এর কোনো সত্যতা পাওয়া যায়নি। ইতালির নাগরিক হত্যায় সরাসরি জড়িত চারজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

মনিরুল বলেন, তারা বিশ্লেষণ করে দেখেছেন, আইএস কোনো কার্যক্রম চালালে নিজস্ব মাধ্যমে তার দায় স্বীকার করে। তবে সাইট নামের সংস্থাটি আইএসের দায় স্বীকারের বিষয়টি কোন লিংকে পেয়েছে সে বিষয়ে তথ্য দিচ্ছে না।

এর আগে গত সোমবার এক সংবাদ সম্মেলনে ঢাকা মহানগর পুলিশের কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া বলেছিলেন, ইতালির নাগরিক হত্যায় জড়িতদের আড়াল করতেই আইএস নাটক সাজানো হয়েছিল। সাইট গ্রুপটি ওই ঘটনার সঙ্গে আইএস সম্পৃক্ততা কোথায় পেল তা জানতে তাদের ইমেল করা হলেও তারা কোনো জবাব দেয়নি।

আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী সূত্র জানায়, বিশ্ব গণমাধ্যমেও রিটা ক্যাটজ পরিচালিত ‘সাইট’ গ্রুপটি নিয়ে সমালোচনা হয়েছে। আইএস সদস্যরা মার্কিন সাংবাদিক স্টিফেন জোয়েলকে হত্যার পর জিহাদীদের আগেই সাইট গ্রুপ ওই হত্যাকাণ্ডের ভিডিও প্রকাশ করে। এরপরই যুক্তরাজ্যভিত্তিক গণমাধ্যম তাদের কার্যক্রম নিয়ে প্রশ্ন তোলে।-সমকাল

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত