টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

কক্সবাজারে পুলিশের চিরুনী অভিযান: বিপুল অস্ত্র উদ্ধার, আটক ১৩

Arms cox_1
ইমাম খাইর, কক্সবাজার ব্যুরো:
কক্সবাজারের ঈদগাঁও-ঈদগড় সড়ক থেকে সাবেক ইউপি সদস্যসহ তিন ব্যক্তির অপহরণ পরবর্তী পুলিশের বিশেষ চিরুনী অভিযান চলছে।
শনিবার মধ্যরাত থেকে ও রবিবার সকাল পর্যন্ত পৃথক অভিযান চালিয়ে বিপুল পরিমাণ অস্ত্রশস্ত্রসহ ১৩ জনকে আটক করেছে পুলিশ। এদের মধ্যে কয়েকজনকে সন্দেহ জনক আটক করা হয়েছে বলে পুলিশ জানায়।
শনিবার মধ্যরাত থেকেই পর দিন রোববার পর্যন্ত অভিযানে ঈদগড়ের ক্রাইম পয়েন্ট কুদালিয়াকাটা, পানিস্যাঘোনা, ধুমছাকাটা, হাসনাকাটাসহ বিভিন্ন স্থান থেকে অপরাধে জড়িত সন্দেহে ১০ জনকে আটক করা হয়।
অন্যদিকে রবিবার ভোরে সদর উপজেলার ইসলামাবাদ ইউনিয়নের গজালিয়ার দূর্গম পাহাড়ী এলাকায় অপহরণকারীদের আস্তানায় অভিযান চালিয়ে তিনজনকে আটক করে পুলিশ।
এ সময় তাদের কাছ থেকে ২টি দেশীয় একনলা বন্দুক, ১টি কাটা বন্দুক, দা-ছুরি ৩টি, ১১ রাউন্ড তাজা কার্তুজ, ১টি হাতুড়ি, মহিশের শিং ও গাছের তৈরি ২টি বিশেষ সংকেত যন্ত্র, চেক বই, আইডি কার্ড ও মানিব্যাগ উদ্ধার করে পুলিশ।
পৃথক অভিযানে আটককৃতরা হচ্ছে সদর উপজেলার ইসলামাবাদ পশ্চিম বোয়ালখালীর জয়নাল আবেদীনের ছেলে জাগির হোসাইন, ইসলামপুর ভিলিজার পাড়ার মৃত ফরিদুল আলমের ছেলে মোহাম্মদ সালাম, রামুর ঈদগড় বড় বিলের আবুল কাশেমের ছেলে শহিদু, পানিস্যাঘোনার শহর আলীর ছেলে নুর মোহাম্মদ কালু, মমতাজ আহমদের ছেলে সেলিম, আলী হোসেনের ছেলে সাঈদুল হক, ধুমছাকাটার জাফর আলমের ছেলে নবী হোসেন প্রমুখ।
ঈদগাঁও পুলিশ তদন্ত কেন্দ্র টু আইসি মো. জাহাঙ্গীর আলম জানান, উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ফেরদৌস আলী চৌধুরীর নেতৃত্বে এএসপি সদর সার্কেল ছত্রধর ত্রিপুরা, রামু ও চকরিয়া থানার ওসি, ঈদগাঁও পুলিশ তদন্ত কেন্দ্র আইসি, ঈদগড় পুলিশ ফাঁড়ি আইসি দূর্গম পাহাড়ী এলাকায় পৃথক অভিযান চালায়।
তিনি বলেন, সশস্ত্র সন্ত্রাসীদের নির্মূলে তৃণমূল পর্যায়ের এ চিরুনী অভিযানে ইসলামাবাদ গজালিয়ার অদূরে সংরক্ষিত রাজঘাট বনাঞ্চলের দূর্গম পাহাড়ী এলাকায় হানা দিয়ে পুলিশ দল অস্ত্রশস্ত্রসহ তিনজনকে আটক করে।
এদিকে গত ২৩ অক্টোবর শুক্রবার সকালে রামু উপজেলার বাইশারী-ঈদগাঁও-সড়কের হিমছড়িঢালা নামক এলাকা থেকে সড়কে গাছ ফেলে অ্যাম্বুলেন্স আটকে অপহৃত ইউপি সদস্যসহ তিনজনকে ছেড়ে দিয়েছে অপহরণকারীরা। শনিবার রাত তিনটার দিকে তাদের গজালিয়ার একটি পাহাড়ের পাদদেশ থেকে উদ্ধার করে ঈদগাঁও পুলিশ।
তারা হলেন- পার্বত্য বান্দরবান জেলার নাইক্ষ্যংছড়ির বাইশারী ইউনিয়নের ৭ নম্বর ওয়ার্ডের সাবেক সদস্য জামায়াত নেতা আবু তৈয়ব (৩৮), ব্যবসায়ী আবু বক্কর (২৮) ও তার বন্ধু শাহ আলম (৩৬)।
ঈদগাঁও পুলিশ তদন্ত কেন্দ্র আইসি মো. মিনহাজ মাহমুদ ভূঁইয়া জানান, অপহরণের খবরটি বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ায় ব্যাপক প্রচার হয়। ঘটনাটি দেশব্যাপী আলোচিত হলে উর্ধ্বতন পুলিশের টনক নড়ে।
কক্সবাজার জেলা পুলিশ ছাড়াও পার্শ্ববর্তী পার্বত্য বান্দরবানের লামা ও নাইক্ষ্যংছড়ি থানার পুলিশ ঘটনাটি নিয়ে বেশ তৎপর হয়ে উঠে। এক পর্যায়ে অপহরণকারীরা অপহৃতদের ছেড়ে দিতে বাধ্য হয়।
পুলিশ সুপার শ্যামল কুমার নাথ বলেন, অপরাধ ও অপরাধীদের দমণে পুলিশ তৎপর রয়েছে। পুলিশের এ চিরুনী অভিযান আরো কয়েকদিন অব্যাহত থাকবে।

মতামত