টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

চট্টগ্রামে পূজার উৎসবে কলকাতা মোহামেডান

spচট্টগ্রাম, ২৩ অক্টোবর (সিটিজি টাইমস):  দুর্গা পূজার সময়ে শেখ কামাল আন্তর্জাতিক ক্লাব কাপের আয়োজন; ভারতীয় ফুটবলের দুই ঐতিহ্যবাহী দল কলকাতা মোহামেডান ও কিংফিশার ইস্ট বেঙ্গল পূজার মধ্যে বাংলাদেশে আসবে কিনা তা নিয়ে কিছুটা সংশয় ছিল। কিন্তু দেশ, পরিবার-পরিজন ছেড়ে আসলেও পূজার উৎসবের আনন্দে খুব একটা কমতি হয়নি অতিথিদের।

শেখ কামাল আন্তর্জাতিক ক্লাব কাপের শিরোপা জয়ের লক্ষ্যে প্রতিদিন অনুশীলনের ব্যস্ততা আছে; আছে মাঠের লড়াই। কিন্তু তাই বলে পূজার আনন্দ তো আর বাদ দেয়া যায় না; সেজন্যই পূজা মণ্ডপে যাওয়ার সুযোগ হারাননি কলকাতার দল মোহামেডান।

বৃহস্পতিবার পূজার শেষ দিনে সন্ধ্যায় মোহামেডানের খেলোয়াড়, কর্মকর্তারা গেলেন লালখান বাজার এলাকার শহীদ নগর সিটি করপোরেশন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় পূজা মণ্ডপে। আধা ঘণ্টারও বেশি সময় দেখলেন পূজা।

দেবী দুর্গাকে প্রণাম, মোবাইলে ছবি তোলা, প্রিয়জনদের জন্য টুকটাক কেনাকাটা-সবই করলেন অতিথি দলের খেলোয়াড় আর কর্মকর্তারা।

দলের ম্যানেজার বেলাল আহমেদ খান বললেন, “খেলোয়াড়রা পূজার দিনে ঘর ছেড়ে বাইরে এল, পূজা না দেখলে কিভাবে হয়? তাইতো সবাইকে নিয়ে চলে এলাম।”

যখন দেশ জুড়ে বিদেশিদের নিরাপত্তা নিয়ে নানা ধরনের কথা উঠছে সে অবস্থায় অতিথি দলের জনাকীর্ণ মন্ডপে গেলেন পূজা দেখতে। কোচ সুব্রত ভট্টাচার্য্য জানালেন, কলকাতার পূজা আর বাংলাদেশের পূজার কোনই পার্থক্য খুঁজে পাননি তিনি। নিরাপত্তা নিয়েও কোনো উদ্বেগ নেই তার।

“হিন্দু সম্প্রদায়ের অন্যতম উৎসব দুর্গা পূজা। এই পূজায় ঘর ছেড়ে দেশ ছেড়ে টুর্নামেন্ট খেলতে এখানে (বাংলাদেশে) এলাম। পূজায় এসে সে অপূরণটা পূরণ হলো।”

“পূজায় এলাম; দেখলাম; নিরাপত্তার অভাব মনে হলো না। মনে হচ্ছে নিজের পূজা”, যোগ করেন তিনি।

বিকালে অনুশীলন সেরে পৌনে সাতটার দিকে হোটেলে গেলেন সুব্রতর শীর্ষরা। আর সাড়ে সাতটার দিকে গাড়ি নিয়ে তারা আসেন পূজা মণ্ডপে।

দলের মিডফিল্ডার কুনাল ঘোষ জানান, পূজায় এর আগেও পরিবার ছেড়ে বাইরে ছিলেন। কিন্তু এই প্রথম দেশের বাইরে থাকা। তবে এর মধ্যে অন্যরকম আমেজও অনুভব করছেন তিনি।

“পূজায় এসে পরিবারের কাছ থেকে দূরে থাকার আমেজটাও তো উপভোগ করা গেল।”- বিডিনিউজ

মতামত