টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

মিরসরাইয়ের শীর্ষ সন্ত্রাসী মানিক র‌্যাবের হাতে গ্রেপ্তার, জনমনে স্বস্তি

এম মাঈন উদ্দিন
মিরসরাই প্রতিনিধি

Mirsarai-Atok-Photoচট্টগ্রাম, ২২ অক্টোবর (সিটিজি টাইমস): মিরসরাইয়ের শীর্ষ সন্ত্রাসী মানিক মিয়া ওরফে কালা মানিককে (৩৮) গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব (র‌্যাপিড একশ্যান ব্যাটেলিয়ন)।

বৃহস্পতিবার ভোরে উপজেলার করেরহাট ইউনিয়নের ফরেষ্ট অফিস এলাকা থেকে আটক করে র‌্যাব-ফেনী ক্যাম্প। মানিক করেরহাট ইউনিয়নের বদ্ধভবানি গ্রামের মৃত রহমত আলীর ছেলে।

র‌্যাবের ফেনী ক্যাম্পের কোম্পানী কমান্ডার মেজর মো. মোজাম্মেল হোসেন জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে বুধবার সন্ধ্যায় ফরেষ্ট অফিস এলাকা থেকে র‌্যাবের তালিকাভূক্ত সন্ত্রাসী অস্ত্র, ডাকাতি, অপহরণ, চোরাচালান ও মাদক সহ বহু মামলার আসামী মানিককে গ্রেপ্তার করা হয়। এসময় তার সাথে থাকা একটি নম্বর বিহীন মোটর সাইকেল, দুই ব্লেডের ফোল্ডেবল চাকু উদ্ধার করা হয়। পরে তার দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে মানিকের বাড়ি থেকে এক রাউন্ড গুলি ভর্তি ম্যাগজিনসহ একটি বিদেশী পিস্তল, ক্যামোফ্ল্যাজ প্রিন্টের একটি প্যান্ট, কাপড়ের এক জোড়া জুতা, একটি সেনা হেলমেট, উচ্চ ক্ষমতা সম্পন্ন একটি দূরবীক্ষণ যন্ত্র ও দেশীয় তৈরি দুটি চাকু উদ্ধার করা হয়। তিনি আরো জানান, সে একটি সংঘবন্ধ চোরাচালান চক্রের সক্রিয় সদস্য। সে ও তার সহযোগীরা দীর্ঘদিন ধরে অস্ত্রের ভয়ভীতি দেখিয়ে এলাকায় চুরি, ডাকাতি, অপহরণ, ছিনতাই, চাঁদাবাজি, মাদক ব্যবসা করে আসছে। তার বসতবাড়ি ভারতীয় সীমান্ত এলাকায় হওয়ার কারনে উদ্ধারকৃত প্যান্ট, হেলমেট, জুতা ও দূরবীক্ষণ যন্ত্র দিয়ে চোরাচালান, মাদক পাচার সহ বিভিন্ন অপকর্মে ব্যবহার করে আসছিলো। তার নামে মিরসরাইয়ের জোরারগঞ্জ থানায় গ্রেপ্তারী পরোয়ানা জারি হয়েছে। গ্রেপ্তারকৃত সন্ত্রাসী মানিকের বিরুদ্ধে অস্ত্র আইনে জোরারগঞ্জ থানায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে বলে জানান তিনি।

কে এই মানিক?
স্থানীয় যুবলীগের রাজনীতির সাথে জগিত মানিক এক সময় বারইয়ারহাট-খাগড়াছড়ি সড়কে ডাকাতি করতো। পরে স্থানীয় এক আওয়ামীলীগ নেতার শেল্টারে চোরাচালানের সাথে জড়িত হয়। একসময় চুরি, ডাকাতি, ছিনতাই, মারামারি, হামলা, চাঁদাবাজি, অস্ত্রবাজি, চোরাচালান ও মাদক ব্যবসা যার নিত্য ব্যাপার। ভয়ে তার বিরুদ্ধে কথা বলারও সাহস পায়না কেউ। বিভিন্ন অবৈধ কর্মকান্ডের জন্য গড়ে তুলেছেন বিশাল একটি সন্ত্রাসী বাহিনী। গত উপজেলা নির্বাচনের সময় বদ্ধবভানী এলাকায় প্রতিপক্ষের উপর গুলিবর্ষণ করে আতঙ্ক সৃষ্টি করে ও ভোটারদের ভোট দিতে বাঁধা দিয়ে নতুন করে আলোচনায় আসে। সম্প্রতি পূর্ব শত্রুতার জের ধরে বভানী এলাকার আবু বকর সিদ্দিকীর ছেলে মোশাররফ হোসেনকে কয়েকজন সহযোগীসহ গুলি করে মানিক। এছাড়া হারুন নামে এক দোকান কর্মচারীকে করেরহাট বাজার থেকে তুলে ডাকবাংলো এলাকায় নিয়ে পায়ে গুলি করে পরে নলখো এলাকায় নিয়ে ফেলে দেয় মানিক ও তাঁর সহযোগীরা। এছাড়াও সম্প্রতি অস্ত্র আদান প্রদান ও সীমান্ত পার হয়ে ভারতে গিয়ে গোলাগুলির ঘটনায় অংশ নেয়ার ও অভিযোগ আছে মানিকের বিরুদ্ধে। এঘটনায় বিজিবি-বিএসএফ পর্যায়ে বৈঠক হয়েছে বলেও জানা যায়। স্থানীয় রাজনৈতিক নেতার ছত্রছায়ায় উপজেলার সীমান্তবর্তি এলাকা করেরহাটে দীর্ঘ সময় ধরে আধিপত্য বিস্তার করছে সে। পাশ্ববর্তি ছাগলনাইয়া উপজেলার গোপাল ইউনিয়নের বাসিন্দা সন্ত্রাসী রনি ও শাহদাতকে অস্ত্রের যোগান দেন মানিক।

এদিকে সন্ত্রাসী মানিককে গ্রেপ্তারের খবরে এলাকা মানুষের মধ্যে স্বস্তি ফিরে এসেছে।

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত