টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

করাচি ইলেক্ট্রিককে হারিয়ে আবাহনীর শুভসূচনা

spচট্টগ্রাম, ২০অক্টোবর (সিটিজি টাইমস):  শেখ কামাল আন্তর্জাতিক ক্লাব কাপের সেমি-ফাইনালে খেলার প্রাথমিক লক্ষ্য পূরণের পথে প্রথম সিঁড়িটি পেরিয়েছে ঢাকা আবাহনী। পাকিস্তানের লিগ চ্যাম্পিয়ন করাচি ইলেক্ট্রিককে ৩-২ ব্যবধানে হারিয়েছে ঘরোয়া ফুটবলের ঐতিহ্যবাহী দলটি।

চট্টগ্রামের এমএ আজিজ স্টেডিয়ামে মঙ্গলবার ‘এ’ গ্রুপের ম্যাচে প্রথমার্ধে দুটি ও দ্বিতীয়ার্ধে একটি গোল পায় ঢাকা আবাহনী। ব্যবধান কমানো দুটি গোলই করাচি দ্বিতীয়ার্ধে পায়।

ইমন বাবুর হাত ধরে শুরু থেকে আবাহনী মাঝ মাঠের নিয়ন্ত্রণ নিলে সানডে চিজোবা, সামাদ ইউসুফদের আক্রমণের পথ প্রশস্ত হয়। কিন্তু শুরুর দিকের সুযোগগুলো নষ্ট করতে থাকে অমলেশ সেনের শিষ্যরা।

দ্বিতীয় মিনিটে তপু বর্মনের হেড পোস্টের ওপর দিয়ে উড়ে যাওয়ার তিন মিনিট পর চিজোবার শটও লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়। প্রথমার্ধে করাচি বলার মতো আক্রমণ করে সপ্তম মিনিটে; কিন্তু কর্নার থেকে পাওয়া বলে উমর ফারুকের শট পোস্টের ওপর দিয়ে উড়ে যায়।

একাদশ মিনিটে এগিয়ে যেতে পারত ঢাকা আবাহনী। কিন্তু ইমনের রক্ষণ চেরা পাসে কেস্টার আকনের জোরালো শট লক্ষ্যে থাকেনি। নয় মিনিট পর নাইজেরিয়ান ফরোয়ার্ড কেস্টারের আরেকটি শট করাচি গোলরক্ষক ঝাঁপিয়ে পড়ে রুখে দেন।

২৪তম মিনিটে আর হতাশ হতে হয়নি আবাহনীকে। বক্সের একটু বাইরে চিজোবা ফাউলের শিকার হলে ফ্রি-কিক পায় আবাহনী। ডান দিক থেকে শেখ রাসেল ক্রীড়া চক্র থেকে ধারে খেলতে আসা ওয়ালি ফয়সালের বাঁকানো শট ঠিকানা খুঁজে পেলে এগিয়ে যায় অমলেশের দল।

৩০তম মিনিটে ইমনের বুদ্ধিদ্বীপ্ত পাস থেকে চিজোবার চতুর হেডে ব্যবধান দ্বিগুণ করে আবাহনী। ঢাকা আবাহনীর একটি আক্রমণ ঠেকাতে পোস্ট থেকে সামান্য বেরিয়ে এসেছিলেন করাচি ইলেক্ট্রিকের গোলরক্ষক। সেটা দেখে উড়ে আসা বলে দারুণ এক হেড করেন চিজোবা। বলটি করাচি ইলেক্ট্রিকের গোলরক্ষক গোলাম নবির হাতে লেগেও জালে জড়ায়।

প্রথমার্ধের শেষ দিকে নাসিরুল ইসলামের ব্যাক পাসে চিজোবার শট পোস্টের ওপর দিয়ে উড়ে গেলে ব্যবধান বাড়াতে পারেনি ঘরোয়া লিগের চারবারের চ্যাম্পিয়নরা।

দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে রিয়াজের শট গোলরক্ষকের মাথার ‍ওপর দিয়ে উড়ে গেলে করাচি ইলেক্ট্রিকের ব্যবধান কমানোর সুযোগ নষ্ট হয়। আবাহনীর প্রাণোতোষের হেড, চিজোবার শটও লক্ষ্যে থাকেনি।

৭৫তম মিনিটে ম্যাচে ফেরার ইঙ্গিত দেয় করাচি। ডি বক্সের বাইরে থেকে ফরোয়ার্ড মোহাম্মদ রসুলের বাঁ পায়ের দুর্দান্ত একটি হাফ-ভলি ঝাঁপিয়ে পড়েও আটকাতে পারেননি আবাহনী গোলরক্ষক জিয়াউর রহমান।

৭৮তম মিনিটে আত্মঘাতী গোল খেলে ম্যাচে ফেরা অনেকটাই কঠিন হয়ে যায় করাচির। আবাহনীর ওয়ালী ফয়সালের ফ্রি-কিক বিপদমুক্ত করতে গিয়ে উল্টো নিজেদের জালেই জড়ান হায়াত উল্লাহ।

শাহেদুল আলম শাহেদের বদলি হিসেবে নামা মোহাম্মদ আতিকুর রহমানের শট অতিথি গোলরক্ষক রুখে দিলে শেষ দিকে ব্যবধান বাড়াতে পারেনি আবাহনী।

যোগ করা সময়ে পেনাল্টি থেকে লক্ষ্যভেদ করে ম্যাচে উত্তেজনা ফেরান করাচি ফরোয়ার্ড আবাইওমি সানডে; আবাহনীর ডিফেন্ডার তপু বর্মণের হাতে লাগলে পেনাল্টি পায় অতিথি দলটি। তাতে অবশ্য এমএ আজিজের গ্যালারিতে আসা হাজার দশেক আবাহনী সমর্থকের জয়োৎসব আটকায়নি।

এক ম্যাচের জয়ে তিন পয়েন্ট নিয়ে ‘এ’ গ্রুপে শীর্ষে রয়েছে আবাহনী। আগামী বৃহস্পতিবার চট্টগ্রাম আবাহনীর বিপক্ষে গ্রুপের দ্বিতীয় ম্যাচ খেলবে অমলেশের শিষ্যরা।-বিডিনিউজ

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত